Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২০ বৃহস্পতিবার, জুন ২০১৯ | ৫ আষাঢ় ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

এবার অ্যাপলকে বয়কটের সিদ্ধান্ত চীনের

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ২০ মে ২০১৯, ০২:১৮ PM
আপডেট: ২০ মে ২০১৯, ০২:১৮ PM

bdmorning Image Preview


গুগলের হুয়াওয়েকে বয়কটের পর এবার অ্যাপলকে বয়কটের সিদ্ধান্ত নিচ্ছে চীনারা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেশটির অনেক নাগরিক ইতোমধ্যে তাদের সিদ্ধান্তের কথা জানাতে শুরু করেছে।

চীনা আইফোন ব্যবহারকারী যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে বাণিজ্য যুদ্ধ চলাকালীন সময়ে এমন ঘোষণা দেওয়া শুরু করেছে।এরইমধ্যে নতুন করে মার্কিন জায়ান্ট গুগল হুয়াওয়ের সঙ্গে চুক্তি বাতিলের ঘোষণা দিয়েছে।

এ ঘোষণার পর থেকেই চীনা নাগরিক আরও বেশি পরিমাণে আইফোনসহ অ্যাপলের পণ্য বয়কটের ঘোষণা দিতে শুরু করেছে।দেশটির সামাজিক মাধ্যম সাইট উইবোতে ইতোমধ্যে এমন ঘোষণা ছড়িয়ে পড়েছে।

উইবোতে এক ব্যক্তি লিখেছেন, ‘আমি চেয়েছিলাম এরপর স্মার্টফোন হিসেবে অ্যাপলের আইফোন কিনবো। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের এই অবস্থা চীনের পক্ষে মেনে নেওয়া সম্ভব নয়। আমি অ্যাপলকে বয়কট করছি’।

গত বছরের মাঝামাঝি সময় থেকেই বাণিজ্য ক্ষেত্রে বিশেষ করে হুয়াওয়েকে কেন্দ্র করে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করছে।

যুক্তরাষ্ট্রের অভিযোগ,যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুয়াওয়ের ডিভাইস হুমকীস্বরূপ। চীন এসব ডিভাইসের মাধ্যমে নজরদারী ও তথ্য হাতিয়ে নেওয়ার কাজ করছে। কিন্তু চীন এবং হুয়াওয়ে কর্তৃপক্ষ বিষয়টি অস্বীকার করে এসেছে।

এরপর যুক্তরাষ্ট্র বিষয়টি নিয়ে কঠোর অবস্থান নিয়েছে। গত বুধবার এক বৈঠকে দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প হুয়াওয়েকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে। ফলে হুয়াওয়ের সঙ্গে ব্যবসা করতে গেলে মার্কিন সরকারের কাছ থেকে আলাদা লাইসেন্স নিতে হবে। এ ঘটনার পরই মার্কিন জায়ান্ট গুগল হুয়াওয়ের সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তি বাতিল করেছে।

হুয়াওয়ের নতুন ফোনে গুগলের প্লে স্টোর, জিমেইল, ম্যাপ, ক্রোম ব্রাউজারের মতো সেবা ব্যবহার করতে পারবে না। এই ঘোষণার পর উইবোতে চীনের অধিবাসীরা ফুঁসে উঠেছে।

উইবোতে এক চীনা নাগরিক লিখেছেন, হুয়াওয়ে যে অবস্থান ধরে রেখেছে সেটা প্রশংসার দাবিদার। তাদের এমন কৌশলেই থাকা উচিত। আমরা বরং অ্যাপলকে ছাড়বো।

অন্যদিকে চীন সরকার বলছে, যুক্তরাষ্ট্র হুয়াওয়ের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করেছে, তা তাদের সরকারের তরফ থেকে করা হচ্ছে না। এটি দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের একান্তই ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত,যা সরকারিভাবে চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

উইবোতে অন্য এক নাগরিক পোস্ট করেছেন,এখনও চাইলে আমরা অ্যাপলের বিকল্প হিসেবে অন্য ফোন ব্যবহার করতেই পারি।অ্যাপলই যে সেরা ফোন এমন কোন কথা নয়। চীনেই এখন তাদের চেয়ে গুণে মানে আরও ভালো ফোন তৈরি হচ্ছে ।

অন্যদিকে বিশ্লেষকরা ধারণা করছেন,গুগলের হুয়াওয়ের সঙ্গে চুক্তি থেকে সরে যাওয়ার ফলে চীন- যুক্তরাষ্ট্র বাণিজ্য যুদ্ধ নতুন একটা মাত্রায় পৌঁছাবে। এই সিদ্ধান্তের ফলে হুয়াওয়ে এখন পশ্চিমা বাজারে তাদের অবস্থান হারাতে পারে। কেননা গুগলের এসব সেবা ছাড়া অনেকেই ফোন কিনতে চাইবেন না।

এদিকে চীনারা অ্যাপল পণ্য বয়কট করলে সেটি যুক্তরাষ্ট্রকে কতটা চাপে ফেলতে পারবে সেটা বলা মুশকিল। কেননা হুয়াওয়ে যদি যুক্তরাষ্ট্রে ব্যবসা করতে না পারে, তবে অ্যাপল স্বাভাবিকভাবেই সেখানে বড় বাজার দখল করবে। আর সেটা অ্যাপলের জন্য ‘শাপে বর’ হবে বলেও বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

Bootstrap Image Preview