Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২১ শনিবার, সেপ্টেম্বার ২০১৯ | ৫ আশ্বিন ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

ঘরে বসে যেভাবে কাটবেন ঈদের টিকিট

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৮ মে ২০১৯, ০১:১৫ PM
আপডেট: ১৮ মে ২০১৯, ০১:১৫ PM

bdmorning Image Preview
প্রতীকী ছবি


আসন্ন ঈদুলফিতরে নাড়ির টানে পরিবার নিয়ে দেশের বাড়ি যাবেন অনেকেই। কিন্তু তার আগে নামতে হবে টিকিট সংগ্রহের প্রতিযোগিতায়। লাইনে না দাঁড়িয়েও ঘরে বসে কেনা যায় বাস, ট্রেন, লঞ্চ ও বিমানের টিকিট। চলুন জেনে নি কিভাবে?  সহজে কাটা যায় টিকিট।

ওয়েবসাইটের মাধ্যমে

বাংলাদেশ রেলওয়ের ওয়েবসাইট http://www.esheba.cnsbd.com-এ ঢুকতে হবে। ঢুকলেই একটি পেজে দুটি অপশন থাকবে—একটি সাইন ইন, অন্যটি সাইন আপ। যাদের আইডি খোলা আছে তারা ই-মেইল, পাসওয়ার্ড, সিকিউরিটি কোড দিয়ে সাইন ইন করে আইডিতে ঢুকবেন। যাদের আইডি খোলা নেই, তাদের নতুন আইডি খুলতে সাইন আপে ক্লিক করে নিবন্ধন করে নিতে হবে।

ওয়েবসাইট থেকে টিকিট কাটতে চাইলে ‘Purchase Ticket’ অপশনে ক্লিক করুন। ক্লিক করলে একটি পেজে ঢুকবেন। সেখানে ‘Station from’ এবং ‘Station to’ বাছাই করবেন। ভ্রমণের দিনক্ষণ বাছাই করবেন। এবার ক্লাস বাটনে ক্লিক করবেন। আপনার যে ধরনের টিকিট দরকার, সেটা বাছাই করবেন। সব শেষে ‘search train’ বাটনে ক্লিক করতে হবে।

যেভাবে বাছাই করবেন ট্রেন

আপনি যে তারিখে যে রুটে বাছাই করেছেন, সেই রুটে এক বা একাধিক ট্রেন আছে। কোনটা কখন ছাড়বে, সব দেখা যাবে ওয়েবসাইটে। এখন যে ট্রেনে ভ্রমণ করতে চান, সেটার অপশনে কতজন প্রাপ্তবয়স্ক, কতজন বাচ্চা—এসব বাছাই করবেন। সর্বোচ্চ চারজন বাছাই করতে পারবেন। প্রাপ্তবয়স্ক, বাচ্চাসহ মোট চারজনের বেশি টিকিট আপনাকে দেওয়া হবে না।

টিকিট বাছাইকরণ

এবার আসা যাক টিকিট বাছাইকরণে। এখানে দুটি অপশন থাকবে: ‘Auto Selection’ ও ‘Seat Selection’। যদি অটো সিলেকশন সিলেক্ট করেন, সার্ভার কম্পিউটারে যেসব টিকিট পাওয়া যাবে, সেখান থেকে যেকোনো আসন দিয়ে দেবে। কিন্তু সিট সিলেকশনে ক্লিক করলে নিজের পছন্দ অনুযায়ী আসন বেছে নিতে পারবেন।

আসন বাছাইকরণ

সিট সিলেকশনে ক্লিক করলে আপনাকে নির্ধারণ করা বগির বা বগিগুলোর আসন পরিকল্পনা দেখাবে। যেসব আসন কালো দেখবেন, সেগুলো কাউন্টারের জন্য নির্ধারিত। যেসব আসন লাল ও সবুজ, সেগুলো অনলাইনের জন্য। লাল মানে এসব আসন এরই মধ্যে বিক্রি হয়ে গেছে, সবুজগুলো এখনো কেনা যাবে। এসব থেকে আপনার পছন্দমতো আসন বা আসনগুলো বাছাই করবেন। বাছাই করলে পাশের ছোট্ট ট্যাবে আপনার আসনগুলোর নম্বর, ভাড়া, ভ্যাট, সার্ভিস চার্জসহ মোট ভাড়া দেখাবে। এরপর আপনার লিঙ্গ (পুরুষ বা নারী), বয়স—এগুলো সিলেক্ট বা পূরণ করবেন। অটো সিলেকশন করলে তারাই আপনাকে দেখাবে কয়টি আসন আছে, ভাড়া কত। তবে কোন বগি, কোন আসন—এসব দেখাবে না। এরপর লিঙ্গ, বয়স সিলেক্ট বা বাছাই করুন। ভ্রমণের ১০ দিন আগে থেকে ৪৮ ঘণ্টা আগ পর্যন্ত সময়ের মধ্যে আসন বাছাই করতে পারবেন। ভ্রমণের ৪৮ ঘণ্টা আগে থেকে ভ্রমণের পূর্বমুহূর্ত পর্যন্ত সিট সিলেকশন বা বাছাইকরণ অপশন থাকবে না। তখন আপনাকে অটো সিলেকশনে যেতে হবে।

টিকিট কাটার সময়

টিকিট কেনার সময় সকাল ৮টা থেকে রাত ১০টা। রাত ১০টার পর টিকিট কাটার চেষ্টা করলে ব্যর্থ হবেন।

পেমেন্ট : টিকিটের বিল মেটাতে পারবেন ভিসা, মাস্টারকার্ড, আমেরিকান এক্সপ্রেস, ডিবিবিএল নেক্সাস, ডিবিবিএল মোবাইল ব্যাংকিং থেকে। যেটা দিয়ে ভাড়া মেটাবেন, সেটাতে ক্লিক করবেন। একবার টিকিট কাটলে আগামী সাত দিন একই কার্ড থেকে টিকিট কাটতে পারবেন না। যদি কাটেন তাহলে আপনার টাকা কেটে রেখে দেবে, কিন্তু কোনো টিকিট দেবে না।

এরপর ই-মেইলে ঢুকলে বাংলাদেশ রেলওয়ে থেকে একটি মেইল আসবে। সঙ্গে একটি পিডিএফ ফাইল থাকবে। এখানে ডাউনলোড প্রিন্ট আউট অপশন আছে। পছন্দমতো পিডিএফ ডাউনলোড বা প্রিন্ট আউট করুন। যদি কাউন্টার থেকে টিকিটের হার্ডকপি নিতে চান তাহলে মোবাইল নম্বর এবং টিকিটের পিন নম্বর একটা কাগজে লিখে কাউন্টারে দিন, তারা আপনাকে টিকিট দেবে।

যাঁর নামে আইডি খোলা হয়েছে, টিকিটও তাঁর নামেই হবে। যদি তিনি ভ্রমণ করেন, তাহলে শুধু পিডিএফের প্রিন্ট কপি নিয়েই ভ্রমণ করতে পারবেন, কাউন্টার থেকে টিকিট তোলা লাগবে না। কিন্তু অন্য কেউ এই পিডিএফ দিয়ে ভ্রমণ করতে পারবে না। এ ক্ষেত্রে তাঁকে কাউন্টার থেকে টিকিট তুলতে হবে।

অ্যাপেও কাটা যাবে ট্রেনের টিকিট : অবশেষে নিজেদের মোবাইল অ্যাপ এনেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। ওয়ান স্টপ মোবাইল অ্যাপ ‘রেলসেবা’। প্রথমে এই ঠিকানা https://play.google.com/store/apps/details?id=com.cnsbd.railsheba থেকে অ্যাপটি ডাউনলোড করতে হবে। আপাতত শুধু অ্যানড্রয়েড সংস্করণে রয়েছে অ্যাপটি। তবে কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে আইওএস সংস্করণও আনা হবে শিগগিরই। অ্যাপটি ডাউনলোডের পর ইনস্টল করে চালু করলে লগইন অপশন দেখা যাবে। যদি রেলসেবা অ্যাপে আপনি নিবন্ধন করে থাকেন তাহলে ফোন নম্বর ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে হবে। আর আগেই যদি আপনি বাংলাদেশ রেলের ই-সেবা ওয়েবসাইট নিবন্ধন করে থাকেন তাহলে সেই আইডি ব্যবহার করে লগইন করতে পারবেন। আর যদি অ্যাপটি নিবন্ধন না করে থাকেন তাহলে নতুন করে সাইন আপ বাটনে ক্লিক করতে হবে। তারপর নতুন একটি পেজ চালু হবে। সেখানে নাম, ফোন নম্বর, আইডির পাসওয়ার্ড, জাতীয় পরিচয়পত্র বা জন্ম নিবন্ধন নম্বর দিয়ে নিবন্ধন করতে হবে। তারপর আপনার ফোনে একটি কোড যাবে। সেই কোডটি অ্যাপে সাবমিট করলেই আইডিটি তৈরি হয়ে যাবে।

যেভাবে কিনবেন টিকিট : প্রথমে অ্যাপের ‘purchase’ অপশনে যেতে হবে। তারপর ‘from station’ অপশনে ক্লিক করে ড্রপ ডাউন মেন্যু থেকে কোন স্টেশন থেকে যাবেন নির্ধারণ করতে হবে। যদি স্টেশন না থাকে তাহলে সার্চ বাটন থেকে কিওয়ার্ড লিখে স্টেশন খুঁজে পাওয়া যাবে। একই পদ্ধতিতে কোথায় যাবেন তা নির্ধারণ করতে হবে ‘to station’ অপশন থেকে। এরপর ‘journey date’ থেকে কোন তারিখ যাবেন নির্ধারণ করে ‘search train’ বাটন চাপতে হবে। তাহলে ট্রেনের তালিকা পাওয়া যাবে। সেখান থেকে যে ট্রেনের টিকিট কাটা যাবে দেখা যাবে। সেখানে ‘select class’ অপশনে ক্লিক করে কোন ধরনের আসন নেবেন তা নির্ধারণ করতে হবে। তারপর ‘adult’ ও ‘child’ অপশন থেকে টিকিটের ধরন ও সংখ্যা নির্ধারণ করতে হবে। তারপর ‘select seat’ অপশনে ক্লিক করতে হবে। এরপর আসন নির্বাচন করতে হবে। তারপর নতুন একটি পেজে টিকিটের সম্পর্কে বিস্তারিত দেখা যাবে। সেখান থেকে ‘pay now’ বাটনে ক্লিক করতে হবে। তাহলে অনলাইনের পেমেন্ট অপশনগুলো দেখা যাবে। ভিসা, মাস্টারকার্ড, এমেক্স কার্ড এবং বিকাশের মাধ্যমে অর্থ পরিশোধ করা যাবে। ফিরতি মেইল ও এসএমএসে টিকিট কনফারমেশন পাবেন গ্রাহকরা।

টিকিট কিনতে ব্যবহার করতে পারেন ভিসা, মাস্টারকার্ড, বিকাশ, ব্যাংক এশিয়া, মাই ক্যাশ, ব্র্যাক ব্যাংক, এমটিবি, আমেরিকান এক্সপ্রেস, নেক্সাস।

লঞ্চের টিকিট

ঈদে অনেকেই লঞ্চে ঘরে ফিরবেন। এর জন্য এবার ঈদের টিকিটের জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা লঞ্চঘাটে অপেক্ষা করতে হবে না। সহজ ডটকমে পাওয়া যাবে লঞ্চের টিকিট। এর জন্য প্রথমে এই ঠিকানায় যেতে হবে— https://www.shohoz.com। তারপর হোম পেজের ওপরে থাকা ‘launch’ অপশনে ক্লিক করতে হবে। এরপর ঠিক বাসের টিকিট কেনার মতোই যাওয়া-আসার সময়, যাত্রীসংখ্যা এবং লঞ্চ নির্ধারণ করে সহজ ডটকম থেকে টিকিট কেনা যাবে। অ্যাপেও এই সুবিধা পাওয়া যাবে। এ ছাড়া বিডিটিকেটস ডটকমেও (https://bdtickets.com) লঞ্চের টিকিট কাটা যাবে।

লঞ্চের টিকিট কেনা যাবে ভিসা, মাস্টারকার্ড, বিকাশ, ব্যাংক এশিয়া, মাই ক্যাশ, ব্র্যাক ব্যাংক, এমটিবি, আমেরিকান এক্সপ্রেস, নেক্সাস ব্যবহার করে।

Bootstrap Image Preview