Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৩ বৃহস্পতিবার, মে ২০১৯ | ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

হাতীবান্ধায় শতাধিক সরকারি গাছ কাটার অভিযোগ

আসাদুজ্জামান সাজু, লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ
প্রকাশিত: ১৬ মে ২০১৯, ১০:০৭ PM
আপডেট: ১৬ মে ২০১৯, ১০:১২ PM

bdmorning Image Preview


লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় রাস্তার শতাধিক সরকারি গাছ কাটার অভিযোগ উঠেছে মোস্তাফিজার রহমান মঞ্জু ও মিলন নামের দুই ঠিকাদারের বিরুদ্ধে।

মঙ্গলবার (১৪ মে) উপজেলার পাটিকাপাড়া ইউনিয়নের দক্ষিণ পারুলিয়া এলাকায় এসব গাছ কাটা হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, অভিযুক্ত মোস্তাফিজার রহমান মঞ্জু ওই উপজেলার টংভাঙ্গা ইউনিয়নের হাফিজুর রহমানের ও মিলন ওই এলাকার মোস্তফা মিয়ার পুত্র।

পাটিকাপাড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান শফিউল আলম রোকন বলেন, উপজেলা প্রকৌশলী অজয় কুমার সরকার এবং হাতীবান্ধা থানা পুলিশসহ আমি সরেজমিনে গিয়ে তদন্ত করে উক্ত ঘটনার সত্যতা পাই। তখন বিষয়টি আমি তাৎক্ষণিক ইউএনও ও ওসিকে অবগত করি।

এবিষয়ে হাতীবান্ধা উপজেলা প্রকৌশলী অজয় কুমার সরকার জানান, ঘটনাটি শোনা মাত্রই তিনি সরজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। রাস্তার কাজ নিম্নমানের করার পাশাপাশি সরকারি গাছ কাটা ও পার্শ্ববর্তী ভুট্টা ক্ষেতের ক্ষতি করার সত্যতা পেয়েছেন।  

তিনি আরও বলেন, ইতিমধ্যেই পত্র দিয়ে উক্ত রাস্তার কাজ বন্ধ করে দেয়ার পাশাপাশি বিষয়টি আমার ঊধ্বর্তন কর্তৃপক্ষকেও অবগত করেছি। উক্ত ঠিকাদারদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। 

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে হাতীবান্ধা থানার অফিসার ইনচার্জ ওমর ফারুক বলেন, রাস্তার সরকারি গাছ কাটার দুটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। থানা পুলিশ ইতিমধ্যে সরেজমিনে তদন্ত করেছেন। আসামিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রস্ততি চলছে। 

প্রসঙ্গত, দক্ষিণ পারুলিয়ার ৮নং ওয়ার্ডের একটি রাস্তা পাকা করনের কাজ চলছে। যার মূল ঠিকাদার পাটগ্রামের বর্ষা এন্টারপ্রাইজের অজয় কুমার সুর। মূল ঠিকাদারের কাছ থেকে কাজটির ঠিকাদারি কিনে নেন হাতীবান্ধার মোস্তাফিজার রহমান মঞ্জু ও মিলন নামে দুই ঠিকাদার। 

পরবর্তীতে তারা রাস্তার মাটি কাটার নামে মঙ্গলবার সারাদিন রাস্তার দু’ধারের শতাধিক মেহগনি ও নীম গাছ কেটে নিয়ে যায়। এসময়ে রাস্তার দু পাশে বেশ কয়েকজন কৃষকের উঠতি ভুট্টা ক্ষেতও নষ্ট করা হয়েছে বলে দাবি করে এলাকাবাসী।

এ ঘটনায় পাটিকাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সদস্য আব্দুর রশিদ ও ওই এলাকার নছিব উদ্দিনের পুত্র আব্দুল আজিজ বাদি হয়ে হাতীবান্ধা থানায় পৃথক দুটি অভিযোগ করেছেন।

তবে অভিযুক্ত মোস্তাফিজার রহমান মঞ্জুর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, রাস্তার পাশে যাদের জমি তারাই গাছ কেটে নিয়ে গেছে। উল্টো এলাকাবাসী আমার শ্রমিককে মারধর করেছে।
 

Bootstrap Image Preview