Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৩ বৃহস্পতিবার, মে ২০১৯ | ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চেয়ারম্যান প্রার্থীর গাড়িবহরে হামলায় আহত ২০

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৬ মে ২০১৯, ০৪:৪৮ PM
আপডেট: ১৬ মে ২০১৯, ০৪:৪৮ PM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত ছবি


ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে এক চেয়ারম্যান প্রার্থীর  ৮টি গাড়ি আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। 

বুধবার (১৫ মে) দিবাগত রাতের এ ঘটনায় স্বতন্ত্র প্রার্থী নাছিমা লুৎফুরের ২০ সমর্থকও আহত হয়।

হামলায় ফরিদ মিয়া (৪০), মামুন ভূইয়া (৪২), রাজা মিয়া (৭০), সোহরাব হোসেন ইকবাল (৩৫), মজিবুর (৫৫), লিটন (৪৫), আমির হোসেন (৫০) শফিকুর রহমান (৫০), গাড়ির ড্রাইভার লাক্ষু (৪০), রমজান (৪৫), মোঃ মোশাররফ গনি (৩৮) আহত হন। আহতরা বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসা নিয়েছে।

জানা গেছে, হামলার সময় প্রার্থী গাড়ি বহরে ছিলেন না। ঘটনার পর পুলিশ ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

প্রার্থীর নির্বাচনী সমন্বয়ক ইঞ্জিনিয়ার মোশাহেদ হোসেন ভূইয়া জানান, উপজেলার হরষপুর ইউনিয়নের এক্তারপুর গ্রামে গণসংযোগ শেষে গাড়ি বহর নিয়ে নাছিমার সমর্থকরা ফিরছিলেন। পথে বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে বুল্লা গ্রামের এক্তারপুর ব্রিজ এলাকায় হামলার এ ঘটনা ঘটে।

তারা হরষপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সারোয়ার রহমান ভূইয়ার বাড়ির সামনে পৌঁছুলে চেয়ারম্যানের ছেলে উপজেলা যুবলীগের সহ-সম্পাদক দর্পন রহমান ভূইয়া ও যুবলীগ সদস্য মোঃ আসমত আলীর নেতৃত্বে ৩০/৪০ জন রামদা, বল্লম, লাঠি-সোটা, রড নিয়ে অর্তকিত গাড়ি বহরে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর করে।

এ সময় একটি গাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে। গাড়িতে থাকা সমর্থকরা প্রাণ বাঁচাতে দিগ্বিদিক পালাতে থাকে।

মাধবপুর থেকে দমকলবাহিনী ঘটনাস্থলে পৌঁছে গাড়ির আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। তবে ততক্ষণে গাড়িটি সম্পূর্ণরূপে ভষ্মীভূত হয়।

ঘটনার রাতেই সহকারী কমিশনার (ভূমি) এবিএম মসিউজ্জামান ও বিজয়নগর থানার ওসি  সুমন কুমার আদিত্য ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানান প্রধান নির্বাচনী সম্বনয়ক ইঞ্জিনিয়ার মোশাহেদ হোসেন ভূইয়া।

বিজয়নগর থানার ওসি  সুমন কুমার আদিত্য জানান, রাতেই তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তারা ঘটনায় জড়িতদের খুঁজে বের করার চেষ্টা করছেন। তবে এখনো মামলা হয়নি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আলমগীর হোসেন বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত,  আগামী ১৮ই জুন বিজয়নগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন নাছিমা লুৎফর রহমান। তিনি কুয়েত-বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিলের সভাপতি লুৎফর রহমানের স্ত্রী।

 

Bootstrap Image Preview