Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৭ শনিবার, আগষ্ট ২০১৯ | ২ ভাদ্র ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

সরকারকে কর দেয় না ৭৭ শতাংশ কোম্পানি

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৩ মে ২০১৯, ০১:১৩ PM
আপডেট: ১৩ মে ২০১৯, ০১:১৩ PM

bdmorning Image Preview
প্রতীকী ছবি


ফাইন্যান্সিয়াল রিপোর্টিং কাউন্সিলের (এফআরসি) তথ্য অনুযায়ী রেজিস্ট্রার অব জয়েন্ট স্টক কোম্পানিজ অ্যান্ড ফার্মস (আরজেএসসি)-এ নিবন্ধিত হলেও সরকারকে কর দেয় না প্রায় সোয়া লাখ কোম্পানি। অর্থাৎ ৭৭ শতাংশ কোম্পানি।ফলে সরকার বড় অঙ্কের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হয়েছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সারাদেশে নিবন্ধিত মোট কোম্পানির সংখ্যা তিন লাখ। আরজেএসসি’তে নিবন্ধিত মোট কোম্পানি ও সংগঠনের সংখ্যা দুই লাখ ১৩ হাজার ৫০০টি। তবে শুধু কোম্পানির সংখ্যা এক লাখ ৬৫ হাজার ৫০০টি। এর মধ্যে সরকারি কোম্পানি সাড়ে তিন হাজার এবং বেসরকারি কোম্পানি এক লাখ ৬২ হাজার। এর মধ্যে গত বছর এনবিআরে রিটার্ন দাখিল করেছে মাত্র ৫৫ হাজার কোম্পানি বা ২৩ শতাংশ কোম্পানি। আর এক লাখ ১০ হাজার ৫০০টি অর্থাৎ প্রায় ৭৭ শতাংশ কোম্পানি আয়কর রিটার্ন দাখিল করেনি। কিন্তু কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধে তেমন কোনো কার্যকর ব্যবস্থাও নেয়নি এনবিআর, ফাইন্যান্সিয়াল রিপোর্টিং কাউন্সিলের (এফআরসি) তত্যে এসব উঠে আসে।

অর্থনীতিবিদ ও সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রতিবছর বাজেটের আকার বাড়ছে, তাতে সরকার এনবিআর থেকে রাজস্ব আয়ের পরিমাণও বাড়াচ্ছে। রাজস্ব বাড়াতে এনবিআরও সাধারণ মানুষের ওপর পরোক্ষ ও প্রত্যক্ষ কর বাড়াচ্ছে। কিন্তু বিশাল এ খাতের দিকে নজর দিচ্ছে না। রাজস্ব আদায়ের স্বার্থে বিষয়টি তদন্ত করা উচিত। কারণ, এর সঙ্গে রাজস্ব খাতের সুশাসনও জড়িত।

এনবিআর সূত্রে জানা গেছে, দেশে নিবন্ধিত কোম্পানিগুলোকে এনবিআর-এ আয়কর রিটার্ন দাখিল করতে হলে অডিট করা বাধ্যতামূলক। এক্ষেত্রে সরকার অনুমোদিত ১৫৪টি চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট ফার্মের মাধ্যমে অডিট করাতে হবে। এর বাইরে কোনও প্রতিষ্ঠানের অডিট করার সুযোগ নেই। এক্ষেত্রে চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট ফার্মগুলোর তথ্যে দেখা গেছে, গত বছর ২২ হাজার কোম্পানির হিসাব অডিট করা হয়েছে। কিন্তু এনবিআরের হিসাবে আলোচ্য সময়ে ৫৫ হাজার কোম্পানি রিটার্ন জমা দিয়েছে।

এনবিআর’র সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ  বলেন, করের বোঝা সাধারণ মানুষের ওপর না চাপিয়ে, যারা কর ফাঁকি দেন তাদের দিকে নজর দেওয়া উচিত। তাহলে করের আওতা যেমন বাড়বে, তেমনি যারা করযোগ্য তারাও কর দিতে উৎসাহিত হবে। তাই এ রকম কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া জরুরি।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম, রাজস্ব আদায় বাড়াতে এনবিআর কর্তৃপক্ষকেই বিষয়টি খতিয়ে দেখতে হবে। এ ধরনের অনিয়ম চিহ্নিত করার ক্ষেত্রে ফাইন্যান্সিয়াল রিপোর্টিং কাউন্সিলও ভূমিকা রাখতে পারে।

সার্বিক বিষয়ে এনবিআর চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, করের আওতা বাড়াতে আমরা শহরে জরিপ পরিচালনা করছি। যারা কর আদায় যোগ্য কিন্তু কর দিচ্ছেন না, তাদের চিহৃত করছি। বাজেটের পর দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

Bootstrap Image Preview