Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৩ বৃহস্পতিবার, মে ২০১৯ | ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

রোজা থাকলে শরীরে যেসব পরিবর্তন ঘটে

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৩ মে ২০১৯, ১০:১২ AM
আপডেট: ১৩ মে ২০১৯, ১০:১২ AM

bdmorning Image Preview


চলছে মুসলমানদের সবচেয়ে পবিত্র মাস রমজান। বিশ্বের নানা প্রান্তের মুসলমিরা সুবহে সাদিক থেকে সূর্য ডোবা পর্যন্ত না সকল প্রকার পানাহার থেকে বিরত থাকছেন। রোজার বিভিন্ন উপকারের কথা ইসলাম ধর্মে বর্ণনা করা হয়েছে। আর এর সত্যতা সম্পর্কে স্বীকার করেছেন বর্তমান বিজ্ঞানীরাও। দীর্ঘ এক মাস রোজা থাকার ফলে শরীরে বেশকিছু পরিবর্তন ঘটে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন রোজা থাকার বিভিন্ন উপকারের কথা।

রোজা রাখার সময় প্রথম কয়েকদিনই একটু বেশি কষ্ট হয়। শেষ বার খাবার খাওয়ার পর অন্তত আট ঘন্টা পার না হওয়া পর্যন্ত কিন্তু শরীরে সেই অর্থে রোজার প্রভাব পড়ে না। আমরা যে খাবার খাই, পাকস্থলীতে তা পুরোপুরি হজম হতে এবং এর পুষ্টি শোষণ করতে অন্তত আট ঘন্টা সময় লাগে। যখন এই খাদ্য পুরোপুরি হজম হয়ে যায়, তখন আমাদের শরীর যকৃৎ এবং মাংসপেশীতে সঞ্চিত গ্ল‌ুকোজ থেকে শক্তি শুষে নেওয়ার চেষ্টা করে।

শরীর যখন এই চর্বি খরচ করতে শুরু করে, তা আমাদের ওজন কমাতে সাহায্য করে। এটি কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায় এবং ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়। তবে যেহেতু রক্তে শর্করার মাত্রা কমে যায়, সেই কারণে হয়ত কিছুটা দুর্বল এবং ঝিমুনির ভাব আসতে পারে। এছাড়া কারও কারও ক্ষেত্রে মাথাব্যাথা, মাথা ঘোরা, বমি বমি ভাব বা নিশ্বাসে দুর্গন্ধ হতে পারে।

প্রথম কয়েকদিনের পর আপনার শরীর যখন রোজায় অভ্যস্ত হয়ে উঠছে, তখন শরীরে চর্বি গলে গিয়ে তা রক্তের শর্করায় পরিণত হচ্ছে। কিন্তু রোজার সময় দিনের বেলায় যেহেতু আপনি কিছুই খেতে বা পান করতে পারছেন না, তাই রোজা ভাঙার পর অবশ্যই আপনাকে সেটার ঘাটতি পূরণের জন্য  যথেষ্ট পানি খেতে হবে। বিশেষ করে এই গরমের দিনে। আর যথেষ্ট শক্তিদায়ক খাবার, যেমন কার্বোহাইড্রেট বা শর্করা এবং চর্বি খেতে হবে। একটা ভারসাম্যপূর্ণ খাবার খুব গুরুত্বপূর্ণ, যেখানে সব ধরণের পুষ্টি, প্রোটিন, লবণ এবং জল থাকবে।

এই পর্যায়ে এসে আপনি অনুভব করতে পারবেন যে আপনার শরীর-মন ভালো লাগছে, কারণ রোজার সঙ্গে আপনার শরীর মানিয়ে নিতে শুরু করেছে।  চিকিৎসকরা বলছেন, ‘সাধারণত দৈনন্দিন জীবনে আমরা অনেক বেশি ক্যালরিযুক্ত খাবার খাই এবং এর ফলে আমাদের শরীর অন্য অনেক কাজ ঠিকমত করতে পারে না। কিন্তু রোজার সময় উপোস থাকার কারণে শরীর অন্যান্য কাজের দিকে মনোযোগ দিতে পারে। যেমন শরীর নিজেই নিজেকে সারিয়ে তুলতে পারে এই সময়।’

রমজান মাসের দ্বিতীয়ার্ধে আপনার শরীর পুরোপুরি রোজার সঙ্গে মানিয়ে নেবে। শরীরের পাচনতন্ত্র, লিভার, কিডনি এবং ত্বক এখন এক ধরনের পরিবর্তনের ভেতর দিয়ে যাবে। সেখানে থেকে সব দূষিত বস্তু বেরিয়ে শরীর যেন শুদ্ধ হয়ে উঠবে।

Bootstrap Image Preview