Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৫ বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২০১৯ | ১২ বৈশাখ ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

ভিজিডি চাল আত্মসাত, ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা

ঝালকাঠি প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ১৫ এপ্রিল ২০১৯, ১০:৩৮ PM
আপডেট: ১৫ এপ্রিল ২০১৯, ১০:৩৮ PM

bdmorning Image Preview


ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলা ইউএনও সোহাগ হাওলাদারের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে শুক্তাগড় ইউনিয়নের এক ভুয়া আইনজীবীর বাড়ি থেকে ভিজিডির ১২ বস্তা চাল উদ্ধারের ঘটনায় রাজাপুর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মামলায় ইউপি আ.লীগ সভাপতি ও শুক্তাগড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মজিবুল হক মৃধা, দুলাল হোসেন হাওলদার ওরফে ভুয়া আইনজীবী ও তার স্ত্রী সেনোয়ারা বেগমসহ ৩ জনকে এজাহার নামীয় আসামি করা হয়েছে।

দুঃস্থ নারী উন্নয়ন কর্মসূচি ভিজিডি'র দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপজেলা সমাজসেবা অফিসার উম্মে আয়সা সিদ্দিকা বাদী হয়ে দঃ বিঃ ৪০৯/ ১০৯ ও ১৯৭৪ সালের দুর্নীতি দমন আইনের ৫ (২) ধারায় মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার বিবরণে উল্লেখ করা হয়, রাজাপুর উপজেলা ইউএনওর ডিও অনুযায়ী উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কার্যালয় ভিজিডি কর্মসূচির আওতায় কার্ডধারীদের প্রতিমাসে ৩০ কেজি চাল বিতরণের লক্ষে শুক্তাগড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মজিবুল হক মৃধা ৮১০ বস্তা চাল নিজ জিম্মায় গ্রহণ করে। উক্ত চাল বিতরণের সরকারি নীতিমালা থাকলেও আসামি শুক্তাগড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মজিবুল হক মৃধা জনপ্রতি কার্ডধারীদের ৩০ কেজি হারে চাল বিতরণ না করে নিজে আত্মসাতের পরিকল্পনা করে।

সেই লক্ষে আসামি দুলাল হোসেন হাওলদার ও তার স্ত্রী সেনোয়ারা বেগমের যোগসাজসে ইউনিয়ন পরিষদের গোডাউন থেকে বিজিডি কার্ডের ১২ বস্তা চাল অসৎ উদ্দেশ্যে হস্তান্তর করে ও আসামি সেনোয়ারা বেগমের বসতঘরে লুকিয়ে রাখে।

বিবরণে আরো উল্লেখ করা হয়, বাদী ভিজিডির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপজেলা সমাজসেবা অফিসার উম্মে আয়সা সিদ্দিকা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিষয়টি জানতে পেরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহাগ হাওলাদারকে অবহিত করেন। তিনি ১২ এপ্রিল রাত সাড়ে ৭টায় থানা পুলিশকে সাথে নিয়ে তিনি কেওতা গ্রামের মৃত মালেক হাওলাদারের ছেলে দুলাল হোসেন হাওলাদার ও তার স্ত্রী সেনোয়ারা বেগমের বসতঘরে মজুদ রাখা অবস্থায় চালগুলো উদ্ধার করেন।

জব্দকৃত মালামাল থানা হেফাজতে নিয়ে উল্লেখিত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে রাজাপুর থানায় মামলা দায়ের করা হয়। এ রিপোর্ট লেখার সময় পর্যন্ত এজাহার নামীয় আসামিরা পালাতক রয়েছে বলে থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

প্রসঙ্গত, শুক্তাগড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউপি আ.লীগ সভাপতি মজিবুল হক মৃধার ঘনিষ্ঠ কেওতা গ্রামের মৃত মালেক হাওলাদারের ছেলে দুলাল হোসেন হাওলাদার বাড়ি থেকে এলাকার বিভিন্ন ব্যক্তির নামের ভুয়া তালিকা করে পরাষ্পর যোগসাজসে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে এ ১২ বস্তা চাল নিয়ে তার বসতঘরের উত্তর পাশের একটি কক্ষে মজুদ রেখ।

শুক্রবার রাত ৮টার দিকে ঝালকাঠির রাজাপুর ইউএনও সোহাগ হাওলাদারের নেতৃত্বে একদল পুলিশ অভিযান চালিয়ে এ চাল উদ্ধার করে। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে শুক্তাগড় ইউনিয়নে ২নং ওয়ার্ড সদস্য মনিরুজ্জমান মনিরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসে। পরবর্তীতে ইউপি সদস্য মনির ইউপি চেয়ারম্যান মজিবুল হক মৃধা ও তার সকল অপকর্মের সহযোগী ভুয়া আইনজীবী দুলাল হোসেন হাওলাদার জোগসাজসের বিষয়ে স্বাক্ষ-প্রমাণ দিলে দায়েরকৃত মামলায় তাকে স্বাক্ষী করা হয়।

Bootstrap Image Preview