Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২০ মঙ্গলবার, আগষ্ট ২০১৯ | ৫ ভাদ্র ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ছাত্রীর শরীরে হাত, অতঃপর...

রাবি প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৯, ১০:২৬ PM
আপডেট: ১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৯, ১০:২৬ PM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত


রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রেম প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ইতিহাস বিভাগের এক শিক্ষার্থীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের এক কর্মীর বিরুদ্ধে।

মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ কলাভবনের সামনের চত্বরে এ ঘটনা ঘটে বলে জানান ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী।

অভিযুক্ত ছাত্রলীগ কর্মীর নাম মানিক। তিনি মতিহার হল ছাত্রলীগের সদস্য ও বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়ার অনুসারী এবং ইতিহাস বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর অভিযোগ, বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস শুরু হওয়ার পর থেকে বিভিন্নভাবে বিরক্ত করে আসছেন ছাত্রলীগ কর্মী মানিক। এছাড়া ফোন নম্বর সংগ্রহ করে প্রতিদিন বিভিন্ন সময়ে ফোন করেন। বিভাগের বড় ভাই হওয়ায় আমি কয়েকবার তার সঙ্গে কথা বলেছি। এরপর যখন তিনি প্রেমের প্রস্তাব দেয়া শুরু করেন তার পর থেকে তার ফোন রিসিভ করা বন্ধ করে দেই। তবুও তিনি আমাকে বারবার ফোন করে বিরক্ত করেন।

হঠাৎ মঙ্গলবার বিকেলে ফোন দিয়ে ক্লাস শেষ হওয়ার পর আমাকে দেখা করতে বলেন। ক্লাস শেষ হলে বিকেল ৫টায় তিনি বিভাগের সামনে আমাকে দাঁড় করান এবং আমার সঙ্গে জরুরি কথা আছে বলে ম্লান চত্বরে নিয়ে যান। সেখানে তিনি আমাকে প্রেম প্রস্তাবে রাজি হওয়ার জন্য জোর জবরদস্তি করতে থাকেন। আমি বারবার সেই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করি। শেষ পর্যন্ত প্রস্তাবে রাজি করতে না পারায় একপর্যায়ে তিনি আমার শরীরে হাত দেন।

ভুক্তভোগী ছাত্রী বলেন, আমি খুবই নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি। তিনি আমাকে বিভিন্নভাবে ভয় দেখিয়েছেন। হয়তো আমার আর এখানে পড়াশুনা করা হবে না। আমি পড়াশুনা বাদ দিয়ে বাড়ি চলে যাব।

এ বিষয়ে জানতে ছাত্রলীগের কর্মী মানিকের ফোনে কল দিলে রং নম্বর বলে ফোন কেটে দেন। ঘটনার বিষয়ে জানতে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়াকে ফোন দেয়া হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

এ ব্যাপারে ইতিহাস বিভাগের সভাপতি ড. মর্তুজা খালেদ বলেন, ঘটনাটি মাত্র জানলাম। কাল বিভাগে গিয়ে খোঁজ নিয়ে বিষয়টি দেখব।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমান বলেন, ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীকে অভিযোগ দেয়ার জন্য বলেছি। অভিযোগের সত্যতা মিললে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Bootstrap Image Preview