Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৮ সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | ৬ ফাল্গুন ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

গাড়িতে উঠতে না দেয়ায় শিক্ষার্থীদের পেটালো প্রধান শিক্ষক

রোমানুল সোহেব, দৌলতখান (ভোলা) প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৯, ০৫:৩০ PM
আপডেট: ১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৯, ০৬:০৮ PM

bdmorning Image Preview


ভোলার দৌলতখান উপজেলায় পরীক্ষার্থীদের রিজার্ভকৃত অটোতে প্রধান শিক্ষককে না উঠানোর কারণে তাদের উপর চড়াও হয়ে আট পরীক্ষার্থীকে মারধর করেছে এক প্রধান শিক্ষক। এতে আট পরীক্ষার্থীসহ মোট ৯ জন আহত হয়েছে।

সোমবার (১১ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ২টার দিকে উপজেলার উত্তর জয়নগর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের গোডাউনের কাছে এ ঘটনা ঘটে। 

আহতরা হলেন ফারজানা আক্তার, লিমা আক্তার, রাবেয়া আক্তার, নিলুফা বেগম, সোনিয়া বেগম, হাফসা আক্তার, রাফিয়া বেগম, মো. রাশেদ ও অটো ড্রাইভার মো. জামাল উদ্দিন। আহত পরীক্ষার্থীরা উপজেলার দক্ষিণ পূর্ব নলগড়া দাখিল মাদরাসা থেকে এ বছর দাখিল পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন।           

আহত পরীক্ষার্থীরা জানান, সকালে প্রতিদিনের মতো তারা রিজার্ভ অটোতে মাদরাসার কাছের চৌমুহনী থেকে দৌলতখান আবি আব্দুল্লাহ কলেজ কেন্দ্রে পরীক্ষা দেয়ার উদ্দেশ্যে রওনা হয়। এ সময় পার্শ্ববর্তী নলগড়া শরিফ বাড়ি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কাছে গেলে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মিজানুর রহমান শরিফ তাদের অটো থামাতে বলেন। পরীক্ষার্থীরা অটো থামিয়ে সিট খালি নেই বললে প্রধান শিক্ষক তাদেরকে গালামন্দ করেন এবং তাদের দেখে নিবে বলে হুমকি দেয়। এ অবস্থায় তারা সেখান থেকে পরীক্ষা দিতে চলে যায়।     

পরে পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফেরার পথে উপজেলার উত্তর জয়নগর ৩নং ওয়ার্ডের গোডাউনের কাছে আসলে ওই প্রধান শিক্ষক একটি মোটরসাইকেল নিয়ে তাদের অটোর সামনে গিয়ে পথ রোধ করে। তখন তার সাথে একজন লোক ছিল।

সেই মুহুর্তে প্রধান শিক্ষক মিজান ও তার সহযোগী মিলে অটোর ড্রাইভার ও পরীক্ষার্থীদের মারধর করতে থাকে। এতে অটোতে থাকা সাত ছাত্রী, এক ছাত্র ও অটো ড্রাইভার জামাল উদ্দিন আহত হয়। এসময় তাদের আর্তচিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসলে প্রধান শিক্ষক পালিয়ে যায়।

পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে নিয়ে আসে। বর্তমানে তারা ভোলা সদর হাসপাতালে চিকিসাধীন রয়েছে। আহতদের পরীক্ষার্থী ফারজানা আক্তার ও অটো ড্রাইভার জামাল উদ্দিনের অবস্থা গুরুতর বলে জানা গেছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে স্থানীয়রা বিক্ষোভ মিছিল করে প্রধান শিক্ষকের শাস্তির দাবি করেছে।  

দৌলতখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনায়েত হোসেন জানান, এ ঘটনায় অটোরিকশার ড্রাইভারের স্ত্রী বাদী হয়ে প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করলে ঘটনার ৫ ঘন্টা পর সোমবার রাত ৯টার দিকে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে ।       

এ ব্যাপারে ভোলার  জেলা প্রশাসক মো. মাসুদ আল সিদ্দিক বলেন, আমি ঘটনা শুনেছি এবং তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমানকে গ্রেফতার করা হয়েছে।


 

Bootstrap Image Preview