Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২২ শুক্রবার, নভেম্বার ২০১৯ | ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ | ঢাকা, ২৫ °সে

চলতি অর্থবছরে জিডিপির প্রবৃদ্ধি ৭ শতাংশ হতে পারে: বিশ্ব ব্যাংক

কূটনৈতিক প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২ অক্টোবর ২০১৮, ০৬:৩৩ PM
আপডেট: ০২ অক্টোবর ২০১৮, ১০:৪৯ PM

bdmorning Image Preview


চলতি অর্থবছরে মোট দেশজ উৎপাদন বা  জিডিপির প্রবৃদ্ধি ৭ শতাংশ হতে পারে বলে জানিয়েছে বিশ্ব ব্যাংক। তবে  এর সুফল কারা পাচ্ছে তা নিয়েও প্রশ্ন তুলে প্রতিষ্ঠানটি। তা ছাড়া দেশে খেলাপি ঋণের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করে সংস্থাটি।

দেশিয় চাহিদা অনুসারে বাংলাদেশের অর্থনীতি উন্নয়নশীল বিশ্বের দ্রুততম ক্রমবর্ধমান অর্থনীতিগুলির মধ্যে একটি। অর্থনৈতিক সংস্কার বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে এটি আরও দ্রুত গতিতে বৃদ্ধি পাবে বলে আশা প্রকাশ করা হচ্ছে বিশ্ব ব্যাংকের নতুন একটি রিপোর্টে।

আজ ২ অক্টোবর মঙ্গলবার Bangladesh Development Update: Powering the Economy Efficiently শীর্ষক প্রতিবেদনে এসব কথা বলা হয়।

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে, অর্থনীতির ক্ষমতায়ন বৃদ্ধি স্থিতিশীল থাকবে। দেশিয় চাহিদা এবং কাঠামোগত রূপান্তর দ্বারা প্রয়োজন। তবে এতে প্রশান্তির জন্য কোন স্থান রাখা হয়নি। প্রবৃদ্ধির আকাঙ্ক্ষা অর্জনে ব্যক্তিগত বিনিয়োগ বৃদ্ধি, রপ্তানি বৈচিত্র্য এবং মানবিক পুঁজি গড়ে তোলার মাধ্যমে বাংলাদেশকে আরও ভাল কাজ করতে হবে।

দেশকে ব্যবসা ক্ষেত্রে আরও সহজীকরণ করতে হবে বলেও প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

তা ছাড়া মেগা প্রকল্পগুলি দ্রুতগতিতে সম্পন্ন করতে হবে। আর্থিক সেক্টরে উন্নতি করতে হলে বিদ্যুতের নির্ভরযোগ্য সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে বলে তারা জানান।

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে রপ্তানি ও রেমিট্যান্স বৃদ্ধির ধারাবাহিকতা অপরিহার্য।

তা ছাড়া অবকাঠামো, নগর ব্যবস্থাপনা, পরিবেশ সংরক্ষণের দিকেও দৃষ্টি দিতে হবে।

বিশ্ব ব্যাংকের বাংলাদেশ, ভুটান ও নেপালের পরিচালক কিমিয়ো ফ্যান বলেন, দারিদ্র্য হ্রাস ও নাগরিকদের জন্য সুযোগ সৃষ্টির ক্ষেত্রে বাংলাদেশ তার অসাধারণ অগ্রগতির জন্যে বিশ্বে পরিচিত। বিশ্বের দ্রুততম ক্রমবর্ধমান অর্থনীতিগুলির মধ্যে অন্যতম এবং মানব উন্নয়নে প্রশংসনীয় অগ্রগতি অর্জন করেছে বাংলাদেশ।

বর্তমান প্রবৃদ্ধির গতিপথ বজায় রাখার জন্য উদ্যোক্তা, নতুনত্ব এবং কাঠামোগত রূপান্তরকে উত্সাহিত করতে হবে। বাংলাদেশকে দ্রুত পরিবর্তনশীল প্রযুক্তির এবং বিশ্বব্যাপী চাহিদাগুলির আলোকে তার কর্মকাণ্ডের উন্নতি করতে হবে। সেক্ষেত্রে শিক্ষা, দক্ষতা, পুষ্টি এবং অভিযোজনযোগ্যতা উন্নত করার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করা প্রয়োজন।

রিপোর্টটি প্রধান রপ্তানি বাজারে সম্ভাব্য মন্থরতা বা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রবাহ মোকাবেলায় দাতাদের সহায়তায় হ্রাসের স্থিতিশীলতা বৃদ্ধির গুরুত্বকেও তুলে ধরেছে। ব্যাংকিং সেক্টর কর্মক্ষমতা বাড়াতে হবে। বিশেষ করে নন-পারফরম্যান্স লোন (এনপিএল) ২০১৮ অর্থবছরে সমস্ত ঋণের ১০ দশমিক ৪ শতাংশে পৌঁছেছে। এইগুলো ছয় বছরে সমানভাবে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো মোট এনপিএলগুলোর ৪৮ শতাংশের জন্য বিবেচিত, আর ৪০টি বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক ৪৪ শতাংশ এনপিএল অ্যাকাউন্টে অংশ নেয়।

রিপোর্টে ক্রমবর্ধমান অর্থনীতির চাহিদা মেটাতে নির্ভরযোগ্য বিদ্যুৎ সরবরাহ বাড়ানোর পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

সাম্প্রতিক ২০০৯ সালে ৪৭ শতাংশ জনসংখ্যা বিদ্যুৎ ব্যবহার করলেও ২০১৭ সালে তা ৮০ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। ২০৩০ সালের মধ্যে বিদ্যুৎ চাহিদা ৩৪ গিগাবাইটে বাড়তে পারে বলে আশা করা হচ্ছে।

Bootstrap Image Preview