Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১০ সোমবার, ডিসেম্বার ২০১৮ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

অরিত্রির মোবাইলের ছবির সঙ্গে উত্তরপত্রের কোনো মিল নেই: তদন্ত কমিটি

বিডিমর্নিং ডেস্ক-
প্রকাশিত: ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৮:২০ PM
আপডেট: ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৮:২০ PM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত ছবি


ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের ছাত্রী অরিত্রি যে অন্যায় করেছিলো সেটার বিপরীতে টিসি দেয়ার মতো কোনো নীতিগত আইন ছিলোনা, তা স্বত্তেও তাকে টিসি দেয়ার ভয় দেখানো হয় বলে তদন্তে উঠে এসেছে। অরিত্রির কাছ থেকে জব্দ করা ফোনে যে ছবি পাওয়া গেছে তার সাথে উত্তরপত্রেরও কোনো মিল পাওয়া যায়নি বলে জানায় তদন্ত কমিটি।

কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ২ ডিসেম্বর বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় বিষয়ের বার্ষিক পরীক্ষা চলছিল অরিত্রির। পরীক্ষা চলাকালে আনুমানিক ৩ টা ২০ মিনিট থেকে তিনটা ২৫ মিনিটের সময় দুই পরিদর্শক অরিত্রীর কাছ থেকে একটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করেন। অরিত্রীর কাছ থেকে উদ্ধার করা মোবাইলে ওই দিনের পরীক্ষার বিষয়ের পাঠ্যবইয়ের সিলেবাসের অংশটুকু ছবি তোলা ছিল। তার কাছে মোবাইল পাওয়ার পর উত্তরপত্রের সঙ্গে মোবাইলে ধারণ করা বিষয়ের কোনো মিল আছে কি না তা নিশ্চিত না হয়েই অরিত্রীকে পরীক্ষার হল থেকে বের হয়ে যেতে বলেন এবং পরের দিন ৩ ডিসেম্বর অভিভাবকসহ অধ্যক্ষ ও শাখা প্রধানের সঙ্গে দেখা করতে বলেন। তবে কক্ষ পরিদর্শকেরা অরিত্রীকে কোনো তিরস্কারমূলক কথা বলেননি বলে ছাত্রীরা মত দেয়।

ঘটনার প্রেক্ষাপটে এবং বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ৩ ডিসেম্বর অরিত্রী অধিকারীর বাবা দিলীপ অধিকারী ও তাঁর স্ত্রী আনুমানিক ১০টায় বিদ্যালয়ে যান এবং কিছু সময় অবস্থান করার পর অনুমতি সাপেক্ষে শাখা প্রধান জিনাত আখতারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। জিনাত আখতার ইন্টারকমে অধ্যক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে প্রতিষ্ঠানের নিয়মানুযায়ী ‘নকলকারীকে’ আর পরীক্ষা দিতে দেওয়া হবে না বলে সাফ জানিয়ে দেন এবং শিক্ষার্থীর বাবা-মার সঙ্গে অশোভন আচরণ করেন। শুধু তাই নয়, অরিত্রীকে টিসি দেওয়ার সিদ্ধান্ত মৌখিকভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়। শাখা প্রধানের সঙ্গে অরিত্রীর বাবা-মা দেখার করার সময় বাবাকে একটি ময়লা চেয়ারে বসতে বলেন। কিন্তু অসুস্থ মাকে বসতে বলেননি। অরিত্রীর মা শাখা প্রধানের সঙ্গে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে কথা বলেছেন। এ বিষয়ে সিসি ক্যামেরার ফুটেজও সংরক্ষিত আছে।

শাখা প্রধানের কাছ থেকে হতাশ হয়ে তাঁরা শেষ সুযোগের আশায় অধ্যক্ষের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। অরিত্রীর ভুলকে স্বীকার করে তাঁর বাবা অধ্যক্ষের কাছে হাতজোড় করে শেষবারের মতো তাঁর মেয়েকে পরীক্ষা দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন। কিন্তু অধ্যক্ষ প্রতিষ্ঠানের চলমান নীতিমালা জানিয়ে বলেন, তাঁর মেয়ের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করার কোনো সুযোগ নেই। প্রয়োজনে আগামী দিনে এসে মোবাইলসহ টিসি নিয়ে যেতে বলেন।

এই ঘটনার সময় অরিত্রী ও তার মা অধ্যক্ষের টেবিলের সামনে দাঁড়িয়ে থাকলেও কখনো অসুস্থ মাকে বসতে বলেননি। অরিত্রী দাঁড়িয়ে তাঁর বাবা-মার অনুনয়-বিনয় ও আকুতি পর্যবেক্ষণ করার পর যখন দেখতে পায় তাঁর বাবা মায়ের আবেদন রক্ষা করা তো দূরের কথা বরং তাদের অপমান করা হচ্ছে, তখন সে বাবা-মাকে কিছু না বলে অধ্যক্ষের কক্ষ থেকে বেরিয়ে বাসায় চলে যায়। কিন্তু তার বাবা-মা তখনো শেষবারের মতো সুযোগ দেওয়ার জন্য অধ্যক্ষকে অনুরোধ করে যাচ্ছিলেন। শেষ ভরসা হারিয়ে মা বাসায় চলে যান এবং বাবা পরিচালনা কমিটির সভাপতির শরণাপন্ন হয়ে বিষয়টি পুন: বিবেচনার জন্য পদক্ষেপ নিতে বলেন। কিন্তু কোনো সমাধান তিনি পাননি। এ ছাড়া তিনি অন্য কোনো মাধ্যমে উপকার পেতে পারেন কি না সে চিন্তায় বিভিন্ন ব্যক্তির কাছে দৌঁড়াদৌঁড়ি করতে থাকেন। আনুমানিক বেলা একটা থেকে দেড়টার মধ্যে বাসা থেকে ফোনে আসে। বলা হয়, অরিত্রী বাসার কক্ষে দরজা আটকে দিয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে অরিত্রীর বাবা বাসায় ফিরে যান এবং দরজা ভাঙতে না পেরে ভেন্টিলেটর ভেঙে দেখতে পান অরিত্রী ফ্যানের সঙ্গে গলায় ফাঁস নিয়েছে। তাকে দ্রুত নামিয়ে কাছের হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখান থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসক তাকে মৃত বলে জানিয়ে দেয়।

তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, শিক্ষার্থীর পরীক্ষায় খাতায় যে উত্তর লিখেছে তার সঙ্গে জব্দ করা মোবাইলে ধারণ করা বিষয়ের সঙ্গে কোনো মিল আছে কি না তাও যাচাই করে দেখা হয়নি। তদন্তে স্পষ্টতই প্রতীয়মান হয়েছে যে, উত্তরপত্রের সঙ্গে মোবাইলে ধারণ করা বিষয়ের কোনো মিল নেই।

শিক্ষার্থীকে টিসি দেওয়ার যে হুমকি দেওয়া হয়েছে তার আইনগত কোনো ভিত্তি ছিল না বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

এ সংক্রান্ত ১৯৬১ সালের আইনের তথ্য তুলে ধরে বলা হয়, আইনে তাৎক্ষণিক এ ধরনের কোনো শাস্তি দেওয়ার সুযোগ নেই। এই হুমকি ও শিক্ষার্থীর সামনে অপমান ও অপদস্থ করার বিরূপ প্রতিক্রিয়ায় অরিত্রী আত্মহত্যার মতো কঠিন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

তদন্ত কমিটি বলছে এই অবস্থা এক দিনে তৈরি হয়নি। প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ ও শাখা প্রধান (শিফট ইনচার্জ) অভিভাবকদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে চান না এবং অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সদাচরণ করেন না। হঠাৎ সাক্ষাতের সুযোগ হলেও তাঁরা অভিভাবকদের সঙ্গে চরম অশোভন আচরণ করেন বলে তদন্তকালে অনেক অভিভাবক অভিযোগ করেন। প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের সঙ্গে কোনো বিষয়ে কাউন্সেলিং বা মতবিনিময় না করে কথা কথায় টিসি দেওয়ার ভয় দেখান।

তদন্ত কমিটি ওই তিন শিক্ষকের বিরুদ্ধের আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করে। এর ভিত্তিতে ইতিমধ্যে ওই শিক্ষকদের বরখাস্ত এবং এমপিও (বেতন-ভাতার সরকারি অংশ) বন্ধ করা হয়েছে। শ্রেণি শিক্ষক হাসনা হেনাকে গ্রেফতারও করা হয়েছে।

কমিটি মনে করে, প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা কমিটি এই পরিস্থিতিকে যথাযথ গুরুত্বের সঙ্গে গ্রহণ করেনি। কমিটির মনে হয়েছে, পরিচালনা কমিটি অভিযুক্তদের রক্ষার চেষ্টা করেছে। এমন পরিস্থিতিতে বর্তমান পরিচালনা কমিটি ভেঙে দিয়ে নতুন পরিচালনা কমিটি গঠন করা যেতে পারে বলে কমিটি মনে করে।

Bootstrap Image Preview