Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৪ শুক্রবার, ডিসেম্বার ২০১৮ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

যে কারণে বের করা হচ্ছে কাঁকড়াদের রক্ত

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ০৩:৩৩ PM
আপডেট: ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ০৩:৩৩ PM

bdmorning Image Preview


পৃথিবীর সৃষ্টির প্রথমদিকে আবির্ভূত হওয়া জীবগুলোর মাঝে এই প্রজাতির প্রাণীগুলো অন্যতম গুরুত্বপূর্ণশুধু ইতিহাসের সাক্ষী হিসেবে নয়, এরা জ্ঞান-বিজ্ঞানের প্রসারেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেএদের রক্তের ঔষধি গুণে জীবন বাঁচছে লক্ষ লক্ষ মুমূর্ষ রোগীরআমাদের আজকের আলোচনায় থাকছে সেই ঐতিহাসিক দর্শকদের জীবনবৃত্তান্ত

যুক্তরাষ্ট্র ও মেক্সিকোর উপসাগরীয় অঞ্চলের উপকূলবর্তী এলাকায় বিশেষ প্রজাতির এক কাঁকড়ার সংখ্যা দিনদিন কমে যাচ্ছে। তাদের এই বিলুপ্তির পেছনে দায়ি তাদেরই দেহের নীল রক্ত। এই নীল রক্ত সংরক্ষণে কাঁকড়াদের ধরে রক্ত বের করে নিচ্ছে আমেরিকানরা।

অশ্বক্ষুরের ন্যায় দেখতে উপবৃত্তাকার এই কাঁকড়াকে জীবন্ত জীবাশ্ম বলেন প্রাণিবিজ্ঞানীরা। এদেরকে জীব বৈচিত্রের বিস্ময় বলছেন তারা।

প্রাণি বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, ডাইনোসর যুগেরও পূর্বের প্রাণি এই কাঁকড়া। প্রায় ৪৪ কোটি ৫০ লক্ষ বছর আগেও পৃথিবীতে এদের অস্তিত্ব ছিল।

রক্ত সংরক্ষণের উদ্দেশে এমন প্রজাতির কাঁকড়ার অস্তিত্বকে হুমকির মুখে ঠেলে দিচ্ছে আমেরিকানরা। ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর দ্য কনসার্ভেশন অব নেচার (আইইউসিএন) জানিয়েছে, আগামী ৪০ বছরে আমেরিকায় এই কাঁকড়ার সংখ্যা প্রায় ৩০ শতাংশ কমে যাবে।

কারণ এদের নীল রক্তের মূল্য অনেক। এই অশ্বক্ষুরাকৃতি কাঁকড়ার রক্তের দাম লিটার প্রতি প্রায় ১১ লক্ষ টাকা!

চিকিৎসাবিজ্ঞানে এদের রক্তের গুরুত্ব অপরিসীম। এদের রক্ত যে কোনো ধরণের ব্যাকটেরিয়া ও বিষাক্ত পদার্থ নিমিষেই ধ্বংস করে দিতে সক্ষম।

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, এদের রক্তে আছে অ্যামিবোসাইট। এই অ্যামিবোসাইটে মাত্র এক ট্রিলিয়ন ভাগের এক ভাগ ব্যাকটেরিয়ার উপস্থিতিতে রক্ত জমাট বেঁধে যায়। যেখানে স্তন্যপায়ী প্রাণীর ক্ষেত্রে সময় লাগে ৪৮ ঘণ্টা।কীভাবে এই অ্যামিবোসাইট তৈরি হয় তা নিয়ে এখনও গবেষণা চলছে।

চিকিৎসায় ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি বা ভ্যাকসিনেও ব্যাকটিরিয়ার উপস্থিতি পরীক্ষায় ব্যবহৃত হয় এই অ্যামিবোসাইট।

এদের রক্তের রঙ নীল কেন?

বিজ্ঞানীরা জানান, মেরুদণ্ডী প্রাণিরা সাধারণত হিমোগ্লোবিনে লোহার উপস্থিতিকে কাজে লাগিয়ে রক্তে অক্সিজেন পরিবহন করে থাকে। কিন্তু এই কাঁকড়াদের ক্ষেত্রে ব্যাপারটি অন্যরকম।

এরা হিমোসায়ানিনের সাহায্যে অক্সিজেন পরিবহন করে। এতে তামার উপস্থিতির কারণে রক্তের রঙ নীল হয়। তবে আমেরিকার প্রাণি বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন অন্য তথ্য। তারা বলছেন, এই কাঁকড়াগুলি নিজেরাই নিজেদের রক্ত দেয়।

উল্লেখ্য, আমেরিকার সমুদ্রতীর থেকে প্রতি বছর প্রায় ছয় লক্ষ কাঁকড়া ধরা হয়। এর মধ্যে তাদের থেকে ৩০ শতাংশ রক্ত নেওয়া হয়।

তবে সম্প্রতি এ নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। কারণ বেশ কয়েকজন প্রাণীবিজ্ঞানী জানিয়েছেন, সব নয়, ১০-২০ শতাংশ কাঁকড়া রক্ত দিয়ে মারা যায়।

ইতিমধ্যে কাঁকড়া থেকে এভাবে রক্ত নেয়ার বিষয়কে আইইউসিএন ‘সমালোচনার যোগ্য’ ঘোষণা করে তাদের ‘রেড লিস্ট’-এ রেখেছে। শুরু হয়েছে এই জলজ প্রজাতির সংরক্ষণ।

Bootstrap Image Preview