Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৪ শুক্রবার, ডিসেম্বার ২০১৮ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

নয়াপল্টনে সংঘর্ষ: ভিডিও ফুটেজ দেখে শনাক্ত করা হচ্ছে অপরাধীদের

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ০৬:০৭ PM
আপডেট: ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ০৬:০৭ PM

bdmorning Image Preview
ফাইল ছবি


নয়াপল্টনে পুলিশের গাড়ি পোড়ানোসহ নাশকতার ঘটনায় ভিডিও ফুটেজ দেখে অপরাধীদের শনাক্ত করা হচ্ছে।

শুক্রবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে ডিবেট ফর ডেমোক্রসি অনুষ্ঠানে এ তথ্য জানান পুলিশের কাউন্টার টেররিজমের প্রধান মনিরুল ইসলাম। তবে এ ঘটনায় নিরপরাধী কোনো ব্যক্তিকে হয়রানি করা হবে না বলে জানিয়েছেন তিনি।

মনিরুল ইসলাম বলেন, সেদিন আমরা শক্তি প্রয়োগ করতে চাইলে সেটা ছিল ‘ম্যাটার অব মিনিট।’ যেকোনো অবৈধ জনতা ছত্রভঙ্গ করার সক্ষমতা ডিএমপির ছিল। বড়সড় সমাবেশ ‘ডিসপাচ’ করার আমাদের যে সক্ষমতা তার বিশ্বজুড়ে সুনাম রয়েছে। কিন্তু আমরা তা না করে তাদের অনুরোধ করেছিলাম। কিন্তু তারা হেলমেটসহ লাঠিসোটা নিয়ে পুলিশকে আক্রমণ করেছিল।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মনিরুল ইসলাম বলেন, পল্টনের নাশকতার ঘটনায় ভিডিও ফুটেজ দেখে সুনির্দিষ্টভাবে অপরাধীদের শনাক্ত করা হচ্ছে। এ ঘটনায় নিরপরাধ কাউকে হয়রানি করা হবে না।

তিনি আরও বলেন, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে অযথা কাউকে গ্রেফতার করা হবে না। তবে ‘নির্বাচনের সময় ফৌজদারি অপরাধ না করলে এবং নির্বাচনী আচরণবিধি না ভাঙলে কাউকে গ্রেফতার করা হবে না।

মনিরুল ইসলাম বলেন, নির্বাচনের সময় জঙ্গি তৎপরতার আশঙ্কা নেই। তবে জঙ্গিবাদ যেন মাথাচাড়া না দিতে পারে, এ জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সতর্ক রয়েছে।

গত বুধবার নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে সহিংসতার ঘটনার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে সিটিটিসি প্রধান বলেন, নির্বাচনী আচরণবিধি অনুযায়ী মিছিল-সমাবেশ করে মনোনয়ন ফরম উত্তোলন বা জমা দেয়ার সুযোগ নেই। যেকোনো অবৈধ জনতা ছত্রভঙ্গ করার সক্ষমতা ডিএমপির ছিল। তাদের অনুরোধ করেছিলাম, কিন্তু তারা হেলমেটসহ লাঠিসোটা নিয়ে পুলিশকে আক্রমণ করেছিল। এতো লাঠি তো আর মাটির নিচ থেকে আসেনি। পুলিশের দুটি গাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়েছিল এবং পুলিশের গাড়ির ওপর উঠে যে লাফালাফির দৃশ্য আপনারা দেখেছেন এটি কোনভাবেই আইনি কর্মকাণ্ড নয়।

প্রসঙ্গত, গত বুধবার দুপুরে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে পুলিশের সঙ্গে দলটির নেতাকর্মীদের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। এ সময় পুলিশের দুটি গাড়ি পোড়ানো হয়, ভাঙচুর করা হয় অনেক গাড়ি। এ ঘটনায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসকে আসামি করে তিনটি মামলা করেছে পুলিশ।

Bootstrap Image Preview