Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৭ সোমবার, ডিসেম্বার ২০১৮ | ২ পৌষ ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

গ্রাহকরা আয়কর মেলা থেকে যেসব সুবিধা পাবেন? 

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ০২:০৬ PM
আপডেট: ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ০২:০৬ PM

bdmorning Image Preview


জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আয়োজিত সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলায় গ্রাহকদের জন্য রাখা হয়েছে ১২ সুবিধা। আর এ জন্য অন্যান্য বছরের চেয়ে এবার বেশি কর জমা পড়ছে।

মঙ্গলবার সকাল ৯টায় রাজধানীর বেইলি রোডের অফিসার্স ক্লাবে শুরু হওয়া মেলা প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত চলবে। শেষ হবে ১৯ নভেম্বর বিকাল ৫টায়।

এবারের মেলায় আয়কর রিটার্ন দাখিল, ই-টিআইএন সেবা গ্রহণের পাশাপাশি মুক্তিযোদ্ধা, নারী, প্রতিবন্ধী ও প্রবীণ করদাতাদের জন্য আলাদা বুথ রাখা হয়েছে।

এ ছাড়া ঢাকাসহ সারা দেশে ২০১৮-১৯ করবর্ষের আয়কর রিটার্ন জমা দিতে পারা। ঢাকার মেলা থেকে সব বিভাগের মানুষের জন্য আলাদা আলাদা বুথের ব্যবস্থা। এ ছাড়া একটি বুথে করদাতাদের ই-টিআইএন রেজিস্ট্রেশন ও রি-রেজিস্ট্রেশন করানো হচ্ছে।

সেই সঙ্গে এনবিআরের ই-পেমেন্ট ওয়েবসাইটে (www.nbrepayment.gov.bd) অনলাইনে আয়কর পরিশোধ করা হচ্ছে। মুক্তিযোদ্ধা, মহিলা, প্রতিবন্ধী ও প্রবীণ করদাতাদের জন্য আলাদা করে বুথ রাখা।

মেলায় সোনালী, জনতা ও বেসিক ব্যাংকের শাখা খোলা আছে, যাতে করদাতারা আয়কর জমা দিচ্ছেন। সঞ্চয় অধিদফতরের জন্য আলাদা বুথ রয়েছে। সেখান থেকে করদাতারা সঞ্চয়ের যে কোনো তথ্য জানতে পারছেন।

আয়কর রিটার্ন, ই-টিআইএন আবেদন ফরম এবং চালান ফরম ও করদাতাদের সুবিধার্থে হেল্পডেস্ক, তথ্যকেন্দ্র ও আয়করসংক্রান্ত বুথ রাখা হয়েছে। এসব বুথের মাধ্যমে করদাতাদের আয়কর রিটার্ন ফরম পূরণ, চালান ও পে-অর্ডার তৈরিসহ প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

করদাতাদের সুবিধার্থে ৪৩টি আয়কর রিটার্ন বুথ, ৩১ হেল্পডেস্ক ও ব্যাংক বুথ (সোনালী ব্যাংক ১৩, জনতা ব্যাংক পাঁচটি এবং বেসিক ব্যাংক তিনটি) রয়েছে মেলায়। এ ছাড়া ই-পেমেন্টের জন্য তিনটি ও ই-ফাইলিংয়ের জন্য দুটি আলাদা বুথ রাখা হয়েছে।

এ ছাড়া তাৎক্ষণিক স্বাস্থ্যসেবা দেয়ার জন্য মেডিকেল বুথও রাখা হয়েছে। সবশেষ করদাতাদের সুবিধার জন্য মেলায় ফটোকপির ব্যবস্থাও নিশ্চিত রয়েছে।

এগুলোর পাশাপাশি মেলায় যাতায়াতের সুবিধার জন্য প্রথমবারের মতো রাজধানীর টিএসসি, রামপুরা, বেইলি রোড, মতিঝিল, মিরপুর ও উত্তরা থেকে ১৫টি শাটলবাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

ভবিষ্যৎ আয়করদাতা সৃষ্টি ও কর সচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে শিক্ষার্থীদের জন্য কর শিক্ষণ ফোরাম রাখা হয়েছে মেলাটিতে। শিক্ষার্থীদের কর সম্পর্কে ধারণা দেয়ার পর আবার কুইজ প্রতিযোগিতার মাধ্যমে ১০ জনকে পুরস্কৃতও করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (কর প্রশাসন ও মানবসম্পদ ব্যবস্থাপনা) জিয়া উদ্দিন মাহমুদ।

আর এতে মেলায় নতুনরা বেশি উদ্বুদ্ধ হচ্ছেন। তাদের মধ্যে কর দেয়ার প্রবণতা বেড়েছে। ফলে মেলার প্রথম দিন এক লাখ ১৩ হাজার ৬৯৯ জন সেবা নিয়েছেন। তাদের মধ্যে আয়কর দিয়েছেন ৪৬ হাজার ৪০১ জন। আর কর জমা হয়েছে ২১৮ কোটি ৪২ লাখ ৭৭ হাজার ৪৮ টাকা।

Bootstrap Image Preview