Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৪ শুক্রবার, ডিসেম্বার ২০১৮ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

অতিথি পাখির মাংসে ভরা পাঁচভাই রেস্টুরেন্টের ফ্রিজ

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ০৭:৪৫ PM
আপডেট: ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ০৭:৪৫ PM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত


সিলেট নগরীর জিন্দাবাজারের পাঁচ ভাই রেস্টুরেন্টে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ জবাই করা অতিথি পাখিসহ বিভিন্ন প্রজাতির পাখি জব্দ করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে যৌথভাবে অভিযান চালায় ভ্রাম্যমাণ আদালত।

অভিযানে খাবারের সঙ্গে অতিথি পাখি অবৈধভাবে বিক্রি ও সংরক্ষণের অভিযোগে পাঁচভাই রেস্টুরেন্টের দুই ব্যবস্থাপককে গ্রেফতার করা হয়। তারা হলেন- আব্দুল আওয়াল ও কাউসার আহমদ।

অভিযানকালে রেস্টুরেন্টে রান্না করা ৩৯টি পাখি ও ফ্রিজ থেকে আটটি বালিহাঁস, ২৫টি পরিযায়ী পাখি, ২০টি বকসহ মোট ১০১টি পাখির মাংস জব্দ করা হয়। এ সময় রেস্টুরেন্টের মালিক পক্ষের কাউকে পাওয়া যায়নি।

পাঁচ ভাই রেস্টুরেন্টের মালিকসহ আটক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে নিয়মিত আইনে মামলা দায়েরসহ আটক ব্যক্তিদের কোতোয়ালি থানায় হস্তান্তর করা হবে বলে জানিয়েছেন র‌্যাব ৯-এর সিনিয়র এএসপি মাইনউদ্দিন।

জানা যায়, সম্প্রতি বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন সিলেটের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম ওই রেস্টুরেন্টে খেতে যান। এ সময় তিনি দেখতে পান রেস্টুরেন্টে খেতে আসা অনেক অতিথিকে রান্না করা পাখির মাংস পরিবেশন করা হচ্ছে। তিনি বিষয়টি বন বিভাগ ও র‌্যাবকে অবহিত করেন।

তার অভিযোগের ভিত্তিতে মঙ্গলবার দুপুরে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) সিলেটের নেতৃবৃন্দকে সঙ্গে নিয়ে অভিযানে নামে র্যাব-৯, সিলেট জেলা প্রশাসন এবং বন বিভাগ। অভিযানে নেতৃত্ব দেন সিলেট জেলা প্রশাসনের এনডিসি মো. হেলাল চৌধুরী, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাহাঙ্গীর আলম, র্যাব-৯-এর সিনিয়র এএসপি মাঈন উদ্দিন চৌধুরী ও বন বিভাগের রেঞ্জার মো. দেলোয়ার রহমান।

অভিযানে সহযোগিতা করেন- বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন-বাপা সিলেটের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ছামির মাহমুদ ও বাপার সংগঠক বদর চৌধুরী।

জেলা প্রশাসনের এনডিসি মো. হেলাল চৌধুরী বলেন, এরা অতিথি পাখি জবাই ও রান্না করে বিক্রি করে বন্যপ্রাণি সংরক্ষণে অপরাধ করেছেন। তাই শুধু জরিমানা করে তাদের ছেড়ে দেয়া যায় না। থানায় মামলা দিয়ে বিচারিক প্রক্রিয়ায় তাদের শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

পরিবেশ আন্দোলন সিলেটের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম বলেন, ‘শীত মৌসুমে বাংলাদেশে অনেক অতিথি পাখি আসে। এক শ্রেণির অসাধু লোক এগুলোকে শিকার করে বিক্রি করেন। অনেক রেস্টুরেন্টে পাখির মাংসও পরিবেশন করা হয়। এ অভিযানের ফলে আশা করছি তারা সবাই সচেতন হবেন।’

তিনি আরও বলেন, পাঁচভাই রেস্টুরেন্টে অবৈধভাবে পাখি বিক্রির অভিযোগটি দীর্ঘদিনের। ৮-১০ দিন আগে বিষয়টি বন বিভাগকে জানাই। কিন্তু আইনি কিছু বিধি-নিষেধের কারণে এতে সম্পৃক্ত হয় র্যাব-৯ ও জেলা প্রশাসন। সর্বশেষ মঙ্গলবার ক্রেতা সেজে পাখি রেস্টুরেন্টে আছে বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে প্রশাসনকে নিয়ে অভিযান চালানো হয়।

Bootstrap Image Preview