Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৫ বৃহস্পতিবার, নভেম্বার ২০১৮ | ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

খাশোগি হত্যায় সারা বিশ্বে তোলপাড়, ছক্কা মারলেন ইমরান!

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮ নভেম্বর ২০১৮, ১০:৫৩ PM
আপডেট: ০৮ নভেম্বর ২০১৮, ১০:৫৩ PM

bdmorning Image Preview
সংগৃহীত ছবি


পাকিস্তানের একমাত্র ক্রিকেট বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক। বিশ্বকাপ জেতার পর ক্রিকেট মাঠ ছাড়লেও মাঠের বাইরে এক কঠিন লড়াইয়ে উত্তীর্ণ হন তিনি। সবাই ওয়াকিবহাল যে- পাকিস্তানের সবচেয়ে কঠিন কাজ রাজনীতি। আর সেই রাজনীতির ময়দানে একসময় যিনি ছিলেন নবীশ।

আজকালের আবর্তে ক্রিকেট দলের নেতৃত্ব ছাড়ার ২৬ বছর পর তিনি নিজ দেশের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব হাতে নেওয়ার খুব কাছাকাছি পর্যায়ে পৌঁছে গেছেন। তিনি আর কেউ নন, এই মুহূর্তে বিশ্ব গণমাধ্যমের সবচেয়ে বহুল আলোচিত নাম, ইমরান খান।

কিন্তু প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর চার-ছক্কা দূরের কথা, মাঠে টিকে থাকাই কঠিন হয়ে পড়েছে ইমরানের জন্য। দেশ চালানোরই টাকা নেই তার রাজভাণ্ডারে।

গত্যান্তর না পেয়ে ইমরান খান সরকারি গাড়ি বিক্রির উদ্যোগ নেন, জনগণকে রাজকোষে টাকা দেয়ার আহ্বান জানান; কিন্তু কিছুতেই চূড়ান্ত কোনো চার-ছক্কা হয়নি তার। বন্ধুদের কাছেও হাত পেতেছেন তিনি। তাতেও বাউন্ডারি হাঁকানো হয়নি ইমরানের।

ফলে নিজের পারফর্মেন্স ধরে রাখতে অন্য দেশ থেকে বৈদেশিক মুদ্রা সংগ্রহের দিকে নজর দেন ইমরান খান। চীন বহু আগেই তাকে সহায়তার ঘোষণা দিলে নগদ অর্থ এখনো মেলেনি। এতে যারপরনাই বিপাকে ছিলেন পাকিস্তানের নয়া প্রধানমন্ত্রী।

পাকিস্তানের সঙ্গে সৌদি আরবের সম্পর্ক দীর্ঘ দিনের। ইয়েমেনে সৌদি আরবের আগ্রাসী নীতিতে নিরবে সমর্থন দিচ্ছে পাকিস্তান। সৌদি আরবে পাকিস্তানের বহু সৈন্য একপ্রকার স্থানীয়ভাবে বসবাস করছে। অন্যদিকে সৌদি আরবে পাকিস্তানের কয়েক লাখ মানুষ কাজ করছে।

গত ২ অক্টোবর সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যাকাণ্ডের পর অনেকটা বন্ধু হারা হয়ে পড়ে সৌদি যুবরাজ ও রাজপরিবার। আন্তর্জাতিকভাবে ইতিহাসের সবচেয়ে বড় সঙ্কটে পড়ে দেশটি। সুযোগ বুঝে ব্যাট চালিয়েছেন ইমরান খান।

সৌদি আরব খাশোগি হত্যার বিষয়টি প্রথমে সম্পূর্ণ অস্বীকার করলেও পরে তা স্বীকার করতে বাধ্য হয়। তবে এখনো পর্যন্ত খাশোগির লাশের কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। বিষয়টি নিয়ে সৌদি আরবের ওপর এখনো চাপ অব্যাহত রয়েছে।

ব্যাপক আন্তর্জাতিক চাপের মধ্যেই গত ২৩ অক্টোবর রিয়াদে রিৎজ হোটেলে অনুষ্ঠিত হয়েছে দেশটির 'ফিউচার ইনভেস্টমেন্ট ইনিশিয়েটিভ সম্মেলন'। বিশ্বব্যাপী বিনিয়োগকারীদের সৌদি আরবের বিনিয়োগে আগ্রহী করতে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্বের বহু গণমাধ্য, আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও ব্যবসায়ী এ সম্মেলন বয়কট করলেও হাজির হয়েছিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

২২ গজের এক সময়ের এই চ্যাম্পিয়ন যে মাঠে নামলে খাতি হাতে ফিরতে জানেন না। তাই ফিউচার ইনভেস্টমেন্ট ইনিশিয়েটিভ সম্মেলন থেকেও কোনো চার-ছক্কা হাকিয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী যে উদ্দেশ্য নিয়ে সৌদি আরবের বিনিয়োগ সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন, তা অনেকটাই অর্জিত হয়েছে।

দেশটির অর্থনৈতিক সংকট কাটাতে ৬ বিলিয়ন ডলার ঋণ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে সৌদি আরব। এর আগে গতকাল সৌদি আরবের উদ্দেশ্যে পাকিস্তান ত্যাগ করার পূর্বে ইমরান খান বলেন, তার দেশ ঋণ পেতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। এ খবর দিয়েছে আল জাজিরা।

পাকিস্তানের অর্থনৈতিক সংকট কাটাতে এক বছরের চুক্তিতে ৩০০ কোটি ডলারের ঋণ প্রদান করতে আগেই রাজি হয়েছিল সৌদি আরব। এছাড়া, তেল আমদানির ক্ষেত্রে বিলম্বে মূল্য পরিশোধ সুবিধার আওতায় আরো দীর্ঘমেয়াদে আরো ৩০০ কোটি ডলারের ঋণ দেবে সৌদি আরব। নির্ধারিত তিন বছর মেয়াদ শেষে এই সুবিধা পুনর্বিবেচনা করা হবে।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এখন সৌদি সফরে রয়েছেন। সফরকালে তিনি বাদশা সালমান বিন আব্দুল আজিজ ও ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের সঙ্গে সাক্ষাত করেন। এর পরই দু’দেশের মধ্যে ঋণ-চুক্তিটি স¤পন্ন হয়।

রিয়াদে আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ সম্মেলনে বক্তৃতা করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিনি বলেন, এই মূহুর্তে আমাদের সরকারের মূললক্ষ্য হল রপ্তানি বৃদ্ধি, আমাদের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বাড়ানো এবং ব্যাংকে বিদেশি রেমিটেন্সের প্রবাহ বাড়ানো। পাশাপাশি টাকা পাচারের বিরুদ্ধেও কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করা।

সৌদি আরবের সঙ্গে পাকিস্তানের অর্থনৈতিক ও কৌশলগত ঘনিষ্ট স¤পর্ক রয়েছে। এছাড়াও দেশটিতে কমপক্ষে ১৯ লাখ পাকিস্তানি শ্রমিক কর্মরত রয়েছে। সৌদি থেকে সবচেয়ে বেশি রেমিটেন্স আয় করে এমন দেশগুলোর মধ্যে পাকিস্তান অন্যতম।

প্রসঙ্গত, গত জুলাই মাসে ইমরান খান ক্ষমতায় আসার পর থেকেই তার সরকার তীব্র অর্থনৈতিক সংকটের সম্মুখীন হয়। রিয়াদের উদ্দেশ্যে দেশত্যাগ করার আগে ইমরান খান জানিয়েছিলেন, অর্থনৈতিক সংকট কাটিয়ে উঠতে সৌদি আরবের থেকে ঋণ পাবার জন্য তিনি মরিয়া।

সম্মেলনে সৌদি আরব ও পাকিস্তানের মধ্যে একটি সমঝোতা স্বাক্ষর হয়েছে। ওই সমঝোতা অনুযায়ী সৌদি আরব পাকিস্তানকে ৬০০ কোটি ডলার দেবে। সম্মেলনে গিয়ে ইমরান 'খানের চাওয়ার চেয়ে বেশি পাওয়া'তে বেশ খুশি তার অনুসারীরা।

তবে এতে শুধু ইমরান খানই খুশি নয়। পাকিস্তানকে অর্থ দিতে পেরে খুশি সৌদি আরবও। খাশোগি হত্যার পর বন্ধুহীন হয়ে পড়া সৌদি যুবরাজ এই অর্থ দিয়ে বন্ধু খুঁজে পেল মনে করছেন বিশ্লেষকরা। তাই বলাই যায়, প্রাণ দিল খাশোগি, ছক্কা মারলেন ইমরান।

Bootstrap Image Preview