Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৮ রবিবার, নভেম্বার ২০১৮ | ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

রাষ্ট্রদ্রোহের পর এবার চাদাবাজির অভিযোগ জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে!

বিডিমর্নিং ডেস্ক-
প্রকাশিত: ১৬ অক্টোবর ২০১৮, ১১:১৮ AM
আপডেট: ১৬ অক্টোবর ২০১৮, ১১:১৮ AM

bdmorning Image Preview


রাষ্ট্রদ্রোহ ও চাঁদাবাজির অভিযোগে মামলা হয়েছে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে। ঢাকার আশুলিয়ায় জমি বিক্রিতে বাধ্য করার চেষ্টাসহ এক কোটি টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগে চাঁদাবাজি মামলা এবং বেসরকারি টিভি আলোচনায় বর্তমান সেনাপ্রধানকে নিয়ে মিথ্যাচারের অভিযোগে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলায় অভিযুক্ত হচ্ছেন জাফরুল্লাহ চৌধুরীর।

 

বেসরকারি টিভির এক আলোচনা অনুষ্ঠানে ৯ অক্টোবর রাতে ২১ অগাস্ট গ্রেনেড হামলা সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ মামলার রায়ের পূর্বে সেনাপ্রধানকে নিয়ে জাফরুল্লাহ চৌধুরীর করা মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করে সেনাবাহিনী। প্রতিবাদের মুখে আনুষ্ঠানিকভাবে ‘ভুল ছিল’ স্বীকার করে দুঃখও প্রকাশ করেন জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

৯ অক্টোবর রাতে বেসরকারি টিভির আলোচনা অনুষ্ঠান সম্পাদকীয়তে জাফরুল্লাহ চৌধুরী দাবি করেন, বর্তমান সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ যখন ‘চট্টগ্রামের জিওসি’ ছিলেন, সেখান থেকে ‘সমরাস্ত্র ও গোলাবারুদ চুরি’ যাওয়ার ঘটনায় তার ‘কোর্ট মার্শাল’ হয়েছিল। তার এমন মন্তব্যের পর চারকিদে হৈচৈ পড়ে যায়। এর পরই তার বক্তব্যকে অপ্রাসঙ্গিকভাবে সেনাপ্রধান সম্পর্কে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত, বিদ্বেষপ্রসূত ও ষড়যন্ত্রমূলক ও রাষ্ট্রদ্রোহিতার শামিল করে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে এক সেনা কর্মকর্তা ঢাকার ক্যান্টনমেন্ট থানায় একটি জিডি করেন। যা এখন রাষ্ট্রদ্রোহের মামলায় পরিণত হতে যাচ্ছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পাওয়ার পর ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (দক্ষিণ) ইতোমধ্যে এর তদন্ত শুরু করেছে। তদন্তে উপাদান পাওয়া গেলে আদালতের অনুমোদন সাপেক্ষে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি হবেন জাফরুল্লাহ।

ঢাকার ক্যান্টনমেন্ট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কবির হোসেন হাওলাদার জানান, সেনা সদরে দায়িত্বরত মেজর এম রকিবুল আলম গত শুক্রবার থানায় এসে ডা. জাফরুল্লাহর বিরুদ্ধে একটি জিডি করেন। জিডিতে উল্লেখ করা হয়, “ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর মত একজন উচ্চ শিক্ষিত ব্যক্তি কেন, কী উদ্দেশ্যে এবং কাদের প্ররোচনায় এ ধরনের উদ্দেশ্যমূলক, বানোয়াট ও অসত্য বক্তব্য টকশোতে বলেছেন, তা তদন্তের দাবি রাখে।”

ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার আবদুল বাতেন গণমাধ্যমকে জিডির সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এই জিডিটি রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হিসেবে গ্রহণের অনুমতি আমরা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে পেয়েছি। মামলা তদন্তের জন্য ডিবিকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

প্রতিবাদলিপিতে আরো বলা হয়, বর্তমান সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ চাকরি জীবনে কখনোই চট্টগ্রামের জিওসি বা কমান্ড্যান্ট ছিলেন না। ওই সময় চট্টগ্রাম বা কুমিল্লা সেনানিবাসে কোনো সমরাস্ত্র বা গোলাবারুদ চুরি বা হারানোর ঘটনা ঘটেনি। জেনারেল আজিজ আহমেদ চাকরি জীবনে কখনো কোর্ট মার্শালের মুখোমুখি হননি। জাফরুল্লাহর বক্তব্যকে ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিত’ হিসেবে বর্ণনা করে সেনাসদরের প্রতিবাদ লিপিতে বলা হয়, ওই বক্তব্য “সেনাবাহিনী প্রধানসহ সেনাবাহিনীর মত রাষ্ট্রীয় একটি প্রতিষ্ঠানকে জনসম্মুখে হেয় করার হীন অপচেষ্টা মর্মে স্পষ্টতঃ প্রতীয়মান হয়।”

সেনাসদরের প্রতিবাদের পর গত শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে এসে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, টেলিভিশনের আলোচনায় তার বক্তব্যে ভুল ছিল এবং সেজন্য তিনি দুঃখিত। এইসময় তিনি সেনাপ্রধানের প্রশংসা করে বলেন, জেনারেল আজিজ একজন দক্ষ আর্টিলারি সেনা কর্মকর্তা। তিনি চট্টগ্রাম সেনানিবাসের জিওসি ছিলেন না, কমান্ডেন্টও ছিলেন না। তিনি তার কর্মজীবনের এক সময়ে চট্টগ্রাম সেনাছাউনিতে আর্টিলারী প্রশিক্ষক ছিলেন। তার বিরুদ্ধে কোর্ট মার্শাল হয়নি, একবার কোর্ট অব ইনকোয়ারি হয়েছিল।”

তবে তার দেওয়া পূর্বের বক্তব্য প্রত্যাহার করবেন কি না, এমন প্রশ্নে জাফরুল্লাহ বলেন, “খুব সহজ-সরলভাবেই এখানে বলেছি, আমার শব্দচয়নে ভুল ছিল। এই ভুলের জন্য নিশ্চয়ই দুঃখ প্রকাশ করছি।”

জাফরুল্লাহর সংবাদ সম্মেলনের পর  তার ওই বক্তব্যেরও প্রতিবাদ জানিয়েছে সোমবার আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর)। তারপর বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে  আইএসপিআর থেকে আরেকটি প্রতিবাদলিপি পাঠানো হয়।

সেখানে বলা হয়,  ডা. জাফরুল্লাহ ‘কোর্ট অব ইনকোয়ারি’র যে কথা বলেছেন, সে তথ্যও ‘সঠিক নয়’। ব্যক্তি আজিজের বিরুদ্ধে কখনও কোর্ট মার্শালতো হয়নি, জেনারেল আজিজের সুদীর্ঘ বর্ণাঢ্য চাকরি জীবনে তার বিরুদ্ধে কোনো কোর্ট অব ইনকোয়ারিও হয়নি। বস্তুতপক্ষে ডা. জাফরুল্লাহর বক্তব্যটি চরম মিথ্যাচারের শামিল।”

বেসরকারি টিভিতে ‘ভুল, দায়িত্বজ্ঞানহীন ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত’ বক্তব্যের জন্য ভুল স্বীকার ও দুঃখ প্রকাশ করতে জাফরুল্লাহ পুনরায় অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে ও চতুরতার সাথে মিথ্যা তথ্য দিয়ে জেনারেল আজিজ আহমেদের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার অপচেষ্টা চালিয়েছেন। জাফরুল্লাহ ২১ অগাস্টের গ্রেনেড হামলার ঘটনায় ব্যবহৃত আর্জেস গ্রেনেডের উৎস হিসেবে ‘সুকৌশলে’ সেনাবাহিনীকে সম্পৃক্ত করার একটি চেষ্টা করেছেন, যা ‘দুরভিসন্ধিমূলক’। ২১ অগাস্টের গ্রেনেড হামলা সংক্রান্ত মামলার রায় ঘোষণার আগের দিন টেলিভিশন লাইভ টকশোতে এ ধরনের অসত্য বক্তব্য প্রদান উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অসত্য বক্তব্যকে সংশোধন করার কোনো চেষ্টা করেননি। তার সামগ্রিক বক্তব্যে এটা স্পষ্ট যে তিনি সেনাবাহিনীতে কর্মরত সকল পদবীর সদস্যদের মধ্যে বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টার পাশাপাশি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে সেনাবাহিনী প্রধানের ভাবমূর্তি এবং স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের প্রতীক দেশপ্রেমিক বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে প্রশ্নবিদ্ধ করার অপপ্রয়াস চালিয়েছেন।

অন্যদিকে সাভারের আশুলিয়ায় জমি বিক্রিতে বাধ্য করার চেষ্টা এবং এক কোটি টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহসহ চারজনের বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা হয়েছে। ঢাকার আশুলিয়ার পাথালিয়ায় জমি বিক্রিতে বাধ্য করার চেষ্টা এবং এক কোটি টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগ এনে সোমবার রাতে এই মামলাটি করা হয়।

মানিকগঞ্জের মোহাম্মদ আলী নামে এক ব্যক্তির করা এই মামলায় গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য জাফরুল্লাহসহ মোট চারজনকে আসামি করা হয়েছে বলে আশুলিয়া থানার ওসি রিজাউল হক জানিয়েছেন।

রিজাউল হক গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে তদন্ত করে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। জাফরুল্লাহ প্রতিষ্ঠিত গণবিশ্ববিদ্যালয় সাভারের আশুলিয়া থানা এলাকায় অবস্থিত।

মামলার বাদী মোহাম্মদ আলী বলেন, পাথালিয়া মৌজার প্রায় চার একর ২৪ শতাংশ জমি তিনিসহ আরও দুজন ২০০৩ সালে কিনেছিলেন। ওই জমি নেওয়ার জন্য জাফরুল্লাহ ও তার লোকজন তাকে নানাভাবে ‘ভয়ভীতি‘ দেখিয়ে আসছে। তারা নাম মাত্র মূল্যে বিক্রির জন্য আমাকে এবং আমার শরিকদের চাপ দেওয়ার পাশাপাশি জীবননাশের হুমকি পর্যন্ত দিয়েছে। তারা আমাদের জমি থেকে জোর করে প্রায় ৩০ লাখ টাকার মাটি কেটে নিয়ে গেছে। তাদের অত্যাচারে আমি এক পর্যায়ে অসুস্থ হয়ে পড়ি। এজন্য আমার বাইপাস সার্জারি করতে হয়েছে। এসব ঘটনায় সাভার ও আশুলিয়া থানায় আগে একাধিকবার আমি জিডি করেছি।

সর্বশেষ গত ১৪ অক্টোবরের এক ঘটনার বর্ণনা দিয়ে এজাহারে বলা হয়, “ওইদিন সকালে মোহাম্মদ আলী ও তার শরিক আনিছুর রহমান জমিতে থাকাবস্থায় জাফরুল্লাহর সহযোগী দেলোয়ার হোসেন (৫৭), সাইফুল ইসলাম শিশির (৫৫) এবং আওলাদ হোসেন (৪৮)সহ ৩/৪জন জমিতে ঢুকে জানায়, তারা জাফরুল্লাহ নির্দেশে এসেছে। তারা আমার জমি তাদের কাছে বিক্রির জন্য চাপ দেয়। সেই সঙ্গে বলে, এই জমি গণবিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য পূর্বে না দেওয়ার কারণে তাদের অনেক ক্ষতি হয়েছে। এজন্য এক কোটি টাকা চাঁদা দাবি করে তারা। চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় তারা হুমকি দেয় এবং জমির কাঁটাতারের বেষ্টনি, সাইনবোর্ড ও একটি গেইট ভাংচুর করে।”

Bootstrap Image Preview