Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২২ শনিবার, সেপ্টেম্বার ২০১৮ | ৭ আশ্বিন ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

যাবজ্জীবন কারাদণ্ড 'অত্যন্ত কঠোর' : ধর্ষক ধর্মগুরু আসারাম

মোঃ মাসুদ রানা
সাব এডিটর
প্রকাশিত: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০১:১৩ PM আপডেট: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০১:১৩ PM

bdmorning Image Preview


১৬ বছরের এক কিশোরীকে ধর্ষণের দায়ে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন ভারতের আলোচিত ধর্মগুরু আসারাম বাপু। ধর্মগুরু আসারাম বাপু দণ্ড মওকুফের আবেদন করেছেন। রাজস্থানের এই ধর্ষক ধর্মগুরু রাজ্য সরকার কাছে ওই আবেদন করেছেন।

পাঁচ বছর আগে নিজের আশ্রমে এক কিশোরীকে ধর্ষণের দায়ে ভারতের স্বঘোষিত ধর্মগুরু আশারাম বাপুকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই দোষে তার পুত্র নারায়ণ সাই-সহ দু’জনকে ২০ বছর করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। 

গত ২ জুলাই আদালতের এই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে আপিল করেন আসারাম। তবে আদালতের শুনানি তালিকায় এখনো উঠেনি তার এই আপিল। কড়া নিরাপত্তার মধ্যে ২৫ এপ্রিল রাজস্থান রাজ্যের যোধপুরের কারাগারে অস্থায়ী আদালতে এ তিনজনের বিরুদ্ধে রায় ঘোষণা করা হয়।

সম্প্রতি রাজস্থানের গভর্নর কল্যাণ সিংহের কাছে আসারামের সাজা মওকুফের আবেদন পৌঁছেছে। তবে এ ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য জানার জন্য তিনি রাজ্যের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে পাঠিয়েছেন আসারামের আবেদন।

আদালতের দেয়া যাবজ্জীবন কারাদণ্ড বয়সের বিবেচনায় 'অত্যন্ত কঠোর' বলে আবেদনে উল্লেখ করেছেন আসারাম বাপু।

২০১৩ সালের ১৫ আগস্ট রাতে জোধপুরের মানাই এলাকায় নিজের আশ্রমে ১৬ বছরের এক কিশোরীকে ডেকে নেন আসারাম। পরে সেখানে তাকে ধর্ষণ করে এই ধর্মগুরু।

বিশ্বব্যাপী চার শতাধিক আশ্রম রয়েছে এই ধর্মগুরুর। সেখানে তিনি মেডিটেশন এবং ইয়োগা শেখান। গুজরাট শহরে আরও একটি ধর্ষণের ঘটনাও তিনি বিচার চলছে।

আসারামের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলার রায় নিয়ে জোধপুরে ব্যাপক বিশৃঙ্খলা তৈরি হয়েছিল। ওই সময় বিশেষ সতর্কতা জারির পাশাপাশি রাজস্থান, গুজরাট ও হরিয়ানায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়।

এর আগে আরও এক ধর্মগুরু গুরমিত রাম রহিমের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলার শাস্তি ঘোষণা করা হয়। এর পরই বিক্ষোভ-সংঘাতে ৩৬ জন নিহত এবং প্রায় দুইশ কোটি টাকার সম্পত্তি নষ্ট হয়। আসারাম বাপুরও ভক্তের সংখ্যা অনেক।

Bootstrap Image Preview