Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২২ শনিবার, সেপ্টেম্বার ২০১৮ | ৬ আশ্বিন ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

৪৩ দিন পর মালয়েশিয়া থেকে এলো সাজেদার ১২ টুকরো লাশ!

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৮ আগস্ট ২০১৮, ১২:১১ PM আপডেট: ১৮ আগস্ট ২০১৮, ১২:১৫ PM

bdmorning Image Preview


বিডিমর্নিং ডেস্ক-

৪৩ দিন পর মালয়েশিয়ায় স্বামীর হত্যার শিকার হওয়া আইনজীবী সাজেদার ১২ টুকরো লাশ পেল পরিবার। গতকাল শুক্রবার(১৭আগস্ট) ভোর ৬টায় বাংলাদেশে পৌঁছে সাজেদার মরদেহ।

এরপর ঢাকা থেকে অ্যাম্বুলেন্সে বিকেল সাড়ে ৫ টায় সাজেদার মরদেহ পটুয়াখালী পৌঁছায়। বিশেষ করে সাজেদার ৬ বছরের শিশুকন্যা মুগ্ধ এবং সাজেদার বাবা আনিস হাওলাদার ও মা মমতাজ বেগম এবং স্বজনদের কান্নার রোল পরে যায়।

এরপর বাদ মাগরিব বড় জামে মসজিদ প্রাঙ্গণ মাঠে তার জানাজা শেষে পটুয়াখালীতে চিরনিদ্রায় শায়িত হয়েছেন নারী আইনজীবী সাজেদা-ই-বুলবুল। রাত সাড়ে ৮টার দিকে শহরের মুসলিম কবরস্থানে দাফন করা হয় তাকে। এদিকে গত ৭ আগস্ট মালয়েশিয়ার একটি আদালত স্বামী সাজুকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ৫ জুলাই মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি নারী আইনজীবী সাজেদা-ই-বুলবুলকে (২৯) নৃশংসভাবে খুন করেন তার স্বামী শাহজাদা সাজু।

 এ ঘটনায় ২৫ জুলাই শাহজাদাকে গ্রেফতার করে সে দেশের (সিআইডি) পুলিশ। পরে ৭ আগস্ট মালয়েশিয়ার আদালত তাকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেয়। ঘাতক শাহজাদা নৃশংসভাবে খুনের পর সাজেদার মরদেহ ১২ টুকরো করে একটা লাগেজে ভরে জঙ্গলে ফেলে দেন। ওই দিন স্থানীয় লোকজন ওই ল্যাগেজ দেখে পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ দুটি ল্যাগেজ থেকে বুলবুলের লাশের টুকরো উদ্ধার করে। এঘটনার পর স্বামী শাহজাদা সাজুকে ২৫ জুলাই মালয়েশিয়ার পুলিশ সীমান্তবর্তী জহুর বারু এলাকা থেকে আটক করে।

সাজেদা-ই-বুলবুল প্রাইম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলবি এবং এলএলএম পাস করেন। বিয়ের পর ২০১৬ সালের ৩ ডিসেম্বর স্বামীর সঙ্গে মালেয়েশিয়া যান তিনি। সেখানে যাওয়ার পর শাহজাদা মালয়েশিয়ায় নিজে প্রতিষ্ঠিত হলেও স্ত্রীকে স্থায়ীভাবে বসবাসের সুযোগ তৈরি করে দেননি। নিয়মিত নির্যাতন করতেন।

Bootstrap Image Preview