Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২০ শনিবার, অক্টোবার ২০১৮ | ৫ কার্তিক ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

বিদেশি পণ্যের হিড়িকে বেচাকেনায় খরা দেশি প্যাভিলিয়নে

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৭ জানুয়ারী ২০১৮, ০৪:১৯ PM
আপডেট: ১৭ জানুয়ারী ২০১৮, ০৪:২৬ PM

bdmorning Image Preview


রায়হান শোভন।।

বাণিজ্য মেলার ২৩তম আসর মোটামুটিভাবে জমে উঠলেও তেমন বেচা-কেনা নেই ক্ষূদ্র ঋণ গ্রহীতা ব্যবসায়ীদের এসএমই প্যাভিলিয়নে। মেলার প্রায় মাঝামাঝি সময়ে এসেও তেমন ক্রেতাদের সাড়া পায়নি এই প্যাভিলিয়নের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা।

সারাদিন মোটামুটি ফাঁকাই থাকে এসএমই প্যাভিলিয়ন। শুধুমাত্র সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্র ও শনিবার এই প্যাভিলিয়নে কিছুটা বেচা-কেনা হয়। সপ্তাহের অনান্য দিন ক্রেতা শূন্যই থাকে এই প্যাভিলিয়ন। এসএমই প্যাভিলিয়নের সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা মনে করছেন মেলায় তাদের প্যাভিলিয়নটি সঠিক জায়গায় দেওয়া হয়নি যার কারণে ক্রেতাদের নজরে পরছেনা তাদের প্যাভিলিয়ন।

এসএমই প্যাভিলিয়নের ফারহানা ফ্যাশনের বিক্রয়কর্মী আশুরা আক্তার ইতি বিডিমর্নিংকে বলেন, ‘আমাদের স্টলে তেমন বেচাকেনা নেই। আমাদের স্টল সবসময় ফাঁকাই থাকে। আমরা এবারই প্রথম বাণিজ্য মেলায় স্টল নিয়েছি। শুনেছি বাণিজ্য মেলায় অনেক বেচাকেনা হয় কিন্তু আমরা এখন পর্যন্ত তেমনভাবে সাড়া পায়নি। শুধুমাত্র সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্র ও শনিবারে আমাদের বেচাকেনা ভালো হয়।’

উল্লেখ্য যে, এসএমই প্যাভিলিয়নে ক্রেতারা পাচ্ছেন, ১২০০ থেকে ১৫০০ টাকায় ওয়ান পিস, ১৮০০ থেকে ২৪০০ টাকায় থ্রি পিস, ৬০০ টাকায় ওড়না, কটি ৬০০ থেকে ৮০০ টাকায়, বেড কাভার ১৫০০ থেকে ২৫০০ টাকায়, কোশন কাভার সেট ১০০০ থেকে ১৬০০ টাকায়। এছাড়া ছেলেদের পাঞ্জাবি পাওয়া যাচ্ছে ১২০০ থেকে ২৫০০ টাকায়। ছোটদের ফতুয়া পাওয়া যাচ্ছে ৫০০ থেকে ৬০০ টাকায়। বিভিন্ন ধরনের চামড়ার ব্যাগ, মানিব্যাগ ও অনান্য পণ্য বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ৬২০০ টাকায়।

তবে ভিন্ন কথা শোনা গেলো ঢাকা এক্সপোর্ট লেদারের কর্ণধার মোঃ সাব্বির হাওলাদারের মুখে। তারা এবার মেলায় ৮২টি চামাড়ার পণ্য নিয়ে এসেছেন। বিভিন্ন ধরনের চামড়ার ব্যাগ, মানিব্যাগ ও অনান্য পণ্য বিক্রি করছেন। বেচা-কেনাও ভালো বলে জানিয়েছেন তারা। তবে তারা আশা করছেন মেলার শেষের দিকে তাদের বেচাকেনা আরো বাড়বে।

এস এম ফ্যাশনের কর্ণধার শান্তা ইসলাম বিডিমর্নিংকে বলেন, ‘নানা রকম দেশি পণ্য নিয়ে আমরা এসেছি। কিন্তু মেলায় নানা রকম মুখরোচক ছাড় ও বিদেশি পণ্যের হিড়িকে আবেদন হারাতে বসেছে আমাদের দেশি পণ্যের স্টলগুলো।’
Bootstrap Image Preview