Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২০ মঙ্গলবার, নভেম্বার ২০১৮ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

মাংস নয়, ষাঁড়ের বীজ আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৩ জানুয়ারী ২০১৮, ০১:৫২ PM
আপডেট: ১৩ জানুয়ারী ২০১৮, ০১:৫২ PM

bdmorning Image Preview


বিডিমর্নিং ডেস্ক-

দেশে মাংসের চাহিদা মেটাতে হিমায়িত মাংস আমদানি না করে ব্রাহামা জাতের ষাঁড়ের বীজ (সিমেন) আমদানি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার এ লক্ষ্যে ‘বিফ ক্যাটল উন্নয়ন’ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। প্রকল্পের আওতায় ‘ব্রাহামা’ জাতের ষাঁড়ের বীজ আমদানি করে মাংসল জাতের গরু দেশেই উৎপাদন করা হবে।

সঠিক খাদ্য ও ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে উৎপাদন করা ব্রাহামা জাতের গরুর গড় ওজন এক টন (এক হাজার কেজি) পর্যন্ত হয়। ইতোমধ্যে প্রাণিসম্পদ অধিদফতর গবাদিপশুর জাত উন্নয়নে ‘ব্রিড আপগ্রেডেশন থ্রু প্রেজেনি টেস্ট’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ‘প্রুভেন বুল’ উৎপাদন করছে। এই ষাঁড়ের মাধ্যমেই গবাদি পশুর বীজ উৎপাদন করা হচ্ছে। সম্প্রতি চাহিদা মেটাতে ভারত থেকে হিমায়িত গরুর মাংস আমদানির আবেদন করেন ব্যবসায়ীরা। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ জানিয়েছেন, ‘দেশে লাল মাংসের চাহিদা মেটাতে অধিক মাংস উৎপাদনে সক্ষম ব্রাহামা জাতের মাংসল গরুর সিমেন আমদানি করা হবে। আর এই জাতের গরু উৎপাদনে যারা খামার প্রতিষ্ঠা করবে তাদের সহায়তা দেবে সরকার। ইতোমধ্যেই সরকারের এ উদ্যোগ বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে। আগামী ২/৩ বছরের মধ্যে ফলাফল পাওয়া যাবে।’

এ বিষয়ে মৎস্য ও প্রাণি সম্পদমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ বলেন, ‘দেশে উৎপাদিত গরুর মাধ্যমে যদি মাংসের চাহিদা মেটানো যায় তাহলে কেন তা আমদানি করতে হবে? গরুর মাংস আমদানির অনুমতি দিলে দেশের খামারিরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। এই বিষয়টি বিবেচনায় নিয়েই সরকার গরুর মাংস আমদানি না করে ব্রাহামা জাতের ষাঁড়ের বীজ আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

এ বিষয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘গরুর মাংস আমদানির সিদ্ধান্ত সরকার নেয়নি। ব্যবসায়ীরা ভারত থেকে গরুর মাংস আমদানির আবেদন করেছিল। কিন্তু আমরা তা আমলে নেইনি।’

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশে প্রাণীজ আমিষের প্রধান উৎস গরুর মাংস। বছরে দেশে চাহিদা আছে ৭১ লাখ ৫৪ হাজার মেট্রিক টন মাংসের।

Bootstrap Image Preview