Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ২৩ রবিবার, সেপ্টেম্বার ২০১৮ | ৮ আশ্বিন ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

মাঈনুল আলমকে চিনলাম নতুনভাবে

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ০২ নভেম্বর ২০১৭, ১২:০৪ PM আপডেট: ০২ নভেম্বর ২০১৭, ১২:১৯ PM

bdmorning Image Preview


আঙ্গুর নাহার মন্টি-

দীর্ঘদিন ধরে চিনলেও ২০১৪ সালে মাঈনুল আলম ভাইকে চিনলাম নতুনভাবে। তিনি তখন আমার সবচাইতে প্রিয় সংগঠন ডিকাবের প্রেসিডেন্ট। এই অধম সাধারণ সম্পাদক। সিনিয়রদের বিশেষ করে মাসুদ করিম ভাইয়ের বকা খেতে খেতে ডিকাবের সেক্রেটারি না হলে জানতেই পারতাম না লিডারশিপের অনন্য রূপ, নেতৃত্বের দক্ষতা। বলা যায় হাতে ধরে ধরে শিখিয়েছেন ডিকাবের কাজ।

কূটনৈতিক বিটে দীর্ঘদিন কাজ করলেও এসাইনমেন্ট ছাড়া কোথাও যেতাম না বললেই চলে। ভোরের কাগজে কাজ করার সময় আমি আর শ্যামল দা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে দাওয়াত পেতাম। দাদা একসাথে নিয়ে যাবেন বললে জানাতাম, আমার রিপোর্ট লিখে যেতে দেরি হবে। পরে আর যেতাম না। নিউজ হবে না এমন কোন অনুষ্ঠান-আড্ডায় যেতাম না বললেই চলে। ২০১৪ সালে মাঈনুল ভাই অনুধাবন করালেন, আমরা না গেলে কূটনীতিকরা কেন আমাদের ইভেন্টে আসবেন! টানা একটা বছর একটার পর একটা ইভেন্ট করিয়ে ইভেন্ট ম্যানেজম্যান্টই শিখিয়ে ফেললেন।

আমি বরাবরই সিনিয়রদের সম্মান করি। আর যোগ্য নেতৃত্বকে স্যালুট জানাই। মাঈনুল ভাই হচ্ছেন সেই নেতা, যিনি সংগঠনের স্বার্থটাকে সবার আগে দেখেন। ডিকাব প্রেসিডেন্ট হয়েও কখনও অর্ডার দেননি। আমি অসুস্থ থাকা অবস্থায় সেক্রেটারির কাজও করেছেন, যা অকল্পনীয়। ছোটদের কাছ থেকে কাজ আদায় করার অনন্য কৌশল তার।

২০১৬ সালে ডিকাব প্রেসিডেন্ট হলাম যখন তখনও পেলাম অসাধারণ সহযোগিতা। আমি তখন একমনে ২০১৪ সালকে অনুসরণ করে গেছি। আর বিনিময়ে পেয়েছি ডিকাবের একঝাঁক ছোট ভাই-বোন। হলি আর্টিজান বাস্তবতার পরও যাদের কারণে ডিকাবের গতি শ্লথ হয়নি। আমার সিনিয়রদের আস্থা বজায় রাখা কিছুটা হলেও সম্ভব হয়েছে।

যাই হোক, এমন গুণসম্পন্ন মানুষকে যখন জাতীয় প্রেসক্লাবে স্বতন্ত্র নির্বাচন করতে হয়, তখন অবাক হয়েছি, কষ্ট পেয়েছি। তবে জয়ের মাধ্যমে তিনি নিজের যোগ্যতা ও জনপ্রিয়তার প্রমাণ রেখেছেন। আমার প্রিয় ফরিদা ইয়াসমিন আপা ও মাঈনুল ভাই আগামীতে প্রেসক্লাবকে যে নতুন উচ্চতায় নেবেন, তার নজির তারা রাখতে শুরু করেছেন। নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন।

ভাল ব্যবহারে দুনিয়া জয় করার সেরা পিআর ম্যানেজার শুধুই একজন সহকর্মী থেকে আদর্শ নেতা, বড় ভাই, তমি ও তোড়ার অনন্য সুহৃদ, আমার মোস্ট গর্জিয়াস ও অসাধারণ মানুষ মুন্নী আপার বর, আমার ভাগ্নি-ভাস্তি মম ও মিতির বাবা মাঈনুল ভাইয়ের আজ শুভ জন্মদিন। আপনার ঋণ কখনো শোধ হবে না যোগ্যতম প্রেসিডেন্ট! শুভেচ্ছা নিরন্তর। সুস্থ থাকুন। ভাল থাকুন।

Bootstrap Image Preview