Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৫ সোমবার, অক্টোবার ২০১৮ | ৩০ আশ্বিন ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

বৈদ্যুতিক শক দিয়ে বন্ধুর হত্যা

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৩ জানুয়ারী ২০১৮, ০৯:১১ PM
আপডেট: ১৩ জানুয়ারী ২০১৮, ০৯:১১ PM

bdmorning Image Preview


ক্রাইম ডেস্ক-

নিখোঁজ হওয়ার ২৭ দিন পর সিরাজুল ইসলাম (৪০) নামের এক ব্যক্তির লাশ আসামিদের বাড়ির রান্নাঘরের মাটি খুঁড়ে উদ্ধার করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটে রংপুরের কাউনিয়া উপজেলায়। দাদনের টাকা লেনদেনের জের ধরে বৈদ্যুতিক শক দিয়ে নির্যাতন চালাতে গিয়ে প্রাণ কেড়ে নেন নিহত সিরাজুলের বন্ধু ফরিদুল ও তার স্ত্রী মিনি আক্তার।

নিহত সিরাজুল উপজেলার মালিয়াটারী কানাটারী গ্রামের মফেল উদ্দিলের ছেলে। সিরাজুল ও ফরিদুল বন্ধু ছিলেন। পুলিশ জানায়, সিরাজুল পেশায় দাদন ব্যবসায়ী ছিলেন। দাদনের টাকা লেনদেনের জের ধরে ফরিদুল ও তার স্ত্রী সিরাজুলকে ১৭ ডিসেম্বর তাদের বড়িতে ডেকে নিয়ে আসেন। এরপর বাড়িতে আটকে রাখেন। ওই দিনই সিরাজুলকে তারা বৈদ্যুতিক শক দিয়ে নির্যাতন চালান। একপর্যায়ে সিরাজুল মারা যায়। পরে তারা সিরাজুলের লাশ বাড়ির রান্নাঘরের মাটি খুঁড়ে পুঁতে রাখেন।

আসামিদের বাড়ি উপজেলার হারাগাছ পৌরসভার হক বাজার মালিয়াটারী এলাকায়। আজ শনিবার লাশটি উদ্ধার করা হয়। এর আগে পুলিশ ওই বাড়ির মালিক ফরিদুল ইসলাম (৩৯) ও তার স্ত্রী মিনি আক্তারকে (২৫) গ্রেপ্তার করে।

পুলিশ ও নিহত সিরাজুলের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ১৭ ডিসেম্বর দিবাগত রাত ১০টার দিকে সিরাজুল তার বন্ধু ফরিদুলের ফোন পেয়ে তার বাড়ির উদ্দেশে বের হন। এরপর থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন। কোনো সন্ধান না পেয়ে ১৯ ডিসেম্বর সিরাজুলের বড় ভাই সেরেকুল ইসলাম কাউনিয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন

এরপর পুলিশ অনুসন্ধান শুরু করে। একপর্যায়ে পুলিশ গত শুক্রবার রাতে সিরাজুলের বন্ধু ফরিদুল ও তার স্ত্রী মিনি আক্তারকে গ্রেপ্তার করার পর তারা সিরাজুলকে হত্যার কথা স্বীকার করেন। পরে তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী শনিবার বাড়ির রান্নাঘরের মাটি খুঁড়ে সিরাজুলের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

কাউনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন অর রশিদ প্রথম আলোকে বলেন, এ ঘটনায় সিরাজুলের স্ত্রী মবিনা খাতুন বাদী হয়ে শুক্রবার রাতে কাউনিয়া থানায় হত্যা মামলা করেছেন।

Bootstrap Image Preview