৭ কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে হাজার হাজার শিক্ষার্থীর বিক্ষোভ

প্রকাশঃ ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১৮

মোঃ আরিফুল ইসলাম, ঢাবি প্রতিনিধি-

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত ৭ কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। এ সময় রাজু ভাস্কর্যের সামনে এসে তারা স্লোগান দেয় যে, ‘দাবি মোদের একটাই। বোঝামুক্ত ঢাবি চাই।’

আজ ১২ ফেব্রুয়ারি (সোমবার) বেলা ১১ টায় অনুষ্ঠিত বিক্ষোভে হাজার হাজার শিক্ষার্থী অংশ নেন।

‘সাত কলেজ মুক্ত সুখী ঢাবি, হাজারো শিক্ষার্থীর প্রাণের দাবি।’ ‘বাতিল হোক অধিভুক্ত, ঢাবি হোক বহিরাগতমুক্ত।’ ‘ঢাবি মোদের একটাই, ঢাবির কোন শাখা নাই।’ ‘এক দফা এক দাবি, অধিভুক্ত মুক্ত ঢাবি।’ দাবি মোদের একটাই, শাখাবিহীন ঢাবি চাই।’ ‘রাখতে ঢাবির সম্মান,সাত কলেজ বেমানান।’ ‘দাবি মোদের একটাই, সাত কলেজ মুক্ত ঢাবি চাই।’ ‘আমরা শুধু আমরাই,অন্য কারো ঠাঁই নাই।’ ‘অধিভুক্ত মুক্ত কর, ঢাবির মান রক্ষা কর।’ ইত্যাদি স্লোগানও শোনা গেছে শিক্ষার্থীদের মুখে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব বিভাগের ছাত্র মোঃ আরিফ পরাগ বলেন, ‘রেজিস্ট্রার ভবনে অধিভুক্ত কলেজের শিক্ষার্থীদের ভিড়ে আমাদের ছাত্র-ছাত্রীরা তাদের কাজ সময়মত করতে পারছে না। ফলে প্রতিক্ষেত্রে তারা হয়রানির শিকার হচ্ছে। পুরো ক্যাম্পাসে তাদের চলাচল বেড়ে যাওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয় তার স্বাভাবিক পরিস্থিতি থেকে বিচ্যুত হচ্ছে। শুধু তাই নয়, অধিভুক্ত সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা নিজেদের কলেজের পরিচয় না দিয়ে ঢাবির পরিচয় দিয়ে নানা অনৈতিক কাজ-কর্মে লিপ্ত হচ্ছে। ফলশ্রুতিতে বদনাম হচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের। সুতরাং এই সাত কলেজ ঢাবির অধিভুক্ত থাকলে, ভবিষ্যতে ঢাবির সম্মানহানি হতে পারে। তাই প্রশাসনের এই বিষয়টি আরেকটু বিবেচনা করা উচিত।’

তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক কৌশল বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র সোহেল মোহাম্মদ বিডিমর্নিংকে জানান, ‘সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিল করে, তাদেরকে পূর্বের অবস্থানে ফিরিয়ে দিতে চাই। আগের অবস্থানেই সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা অনেক ভালো ছিল। ঢাবির অধিভুক্ত হয়ে থাকলে অনেক জটিলতার সৃষ্টি হবে। অধিভুক্তি বাতিল করলে দুই পক্ষের জন্যই ভালো।’

পদার্থবিজ্ঞানের ছাত্র কাজী মাহমুদুল হাসান বলেন, ‘অধিভুক্তরা এখন নিজেদের ঢাবিয়ান হিসেবে পরিচয় দেয়। এক্ষেত্রে তারা কোন অপরাধ করলে দোষটা পরোক্ষভাবে ঢাবির ঘাড়েই এসে পরে। এতে আসল ঢাবিয়ানরা বিব্রতকর পরিস্থিতির স্বীকার হয়।

এছাড়া তারা ঢাবির বাস এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার অংশীদার দাবি করে, যা আসলেই হওয়া উচিত না। তাই তাদেরকে ঢাবির অধিভুক্তি তালিকা থেকে বাদ দিতে হবে।’

ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদে শিক্ষার্থী ফাহাদ হোসেন জানান, ‘সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের কোন প্রকার আন্দোলন ছাড়াই অধিভুক্ত করে ঢাবির শিক্ষার্থীদের অধিকার খর্ব করা হয়েছে। অহেতুক অধিভুক্ত করে সেশনজট সৃষ্টি ও প্রশাসনিক কাজে কচ্ছপ গতি মানি না। শাহবাগ ব্রাঞ্চ নামক পরিচয় সংকটে পড়তে চাই না।’

উল্লেখ্য যে, গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ, কবি নজরুল সরকারি কলেজ, বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজ, মিরপুর সরকারি বাঙলা কলেজ ও সরকারি তিতুমীর কলেজ ঢাবির অধিভুক্ত হয়। এসব কলেজে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে ১ লাখ ৬৭ হাজার ২৩৬ জন শিক্ষার্থী ও ১ হাজার ১৪৯ জন শিক্ষক রয়েছেন।

কমেন্টস