কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নিবন্ধিত ও অনিবন্ধিত শরণার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষ,আহত সাত

প্রকাশঃ আগস্ট ১৮, ২০১৭

এস এম সুজা উদ্দিন ।।

টেকনাফের কুতুপালং অনিবন্ধিতিত রোহিঙ্গা শরণার্থীদের হামালায় নিবন্ধিত ক্যাম্পের সাতজন আহত হওয়ার ঘটনা ঘটে। প্রতেক্ষ্যদর্শী থেকে জানা যায়, আনুমানিক ৮ টার দিকে কুতুপালং ক্যাম্পের  পূর্ব  পাশে নতুন তাল ডি- ফাইভের মাঝামাঝি  এসে  অনিবন্ধিত ক্যাম্পের পনের থেকে বিশজন অতর্কিত হামলা চালায়, হামলাকারী প্রত্যেকে মুখ  বাঁধা ছিল। তাদের হাতে  বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র থাকার কথা ও জানা যায়। আহত সাতজনকে  প্রথমে  স্থানীয় হাসপাতালে পরে সরকারি সদর হাসপাতালে রেফার করা হয়। নিবন্ধিত ক্যাম্পের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রতেক্ষ্যদর্শী বলেন, ‘নিবন্ধিত ক্যাম্পের ১০ জনের মতো তারা বরাবরি অনিবন্ধিত ক্যাম্পের ওইদিক দিয়ে আসছিল ,আচমকা পেছন থেকে একদল যুবক তাদের ওপর হামলা করে,আরেকজন বলেন,ঘটনায় অন্য কোন বিষয় থাকতে পারে । মাদক কিংবা আদিপত্য । সকালে জানা যাবে।

এই ব্যাপারে ক্যাম্প ইনচার্জ রেজাউল করিমের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রাত  ৮ টার দিকে  অনিবন্ধিত ক্যাম্পের একজনের সাথে নিবন্ধিত ক্যাম্পের ছয়জনের  প্রথমে কথা কাটাকাটি হয়, এক পর্যায়ের অনিবন্ধিত ক্যাম্পের ২০ থেকে ৫০ জন এসে নিবন্ধিত ক্যাম্পের ছয়জনকে প্রচুর মারধর করে এবং টানা হেঁচড়া করে পাহাড়ের দিকে নিয়ে যায়। সেখানেও মারধর করে এবং ফেলে রাখে। আমরা খবর পেয়ে  পুলিশ পাঠায়। আমাদের সদস্যরা তাদেরকে সেখান থেকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে। প্রাথমিকভাবে তাদেরকে চিকিৎসা দেওয়া হলেও তাদের অবস্থার অবনতি হওয়ায় সরকারি হাসপাতালে রেফার করা হয়। ক্যাম্প নিরাপদ কিনা জিজ্ঞেস করলে তিনি জানান, নিবন্ধিত ক্যাম্পে  এই ঘটনা তেমন ঘটে না। ঘটলেও আমাদের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। কিন্তু নিবন্ধিত ক্যাম্পের চারপাশে অনিবন্ধিত ক্যাম্প থাকায় কোনভাবেই তা নিরাপদ রাখা যায় না। গতকালও তিনজনকে তুলে নেওয়া যাওয়া হয়েছিল পাহাড়ে , যারা নিয়ে গিয়েছিল তারা অনিবন্ধিত ক্যাম্পের।

নিবন্ধিত ক্যাম্পে ৪০ হাজারের মতো মানুষ থাকলেও (নামে বেনামে) অনিবন্ধিত ক্যাম্পে ৭০ হাজারেরও উপরে।  তার ওপর প্রতিদিন পার হচ্ছে শত শত রোহিঙ্গা। আমরা একটা পুলিশ ফাঁড়ি দেওয়ার চেষ্টা করছি কিন্তু যতদিন দেওয়া না হচ্ছে ততদিন এই অবস্থা বিরাজ করতে থাকবে কেননা অল্প সংখ্যক পুলিশ দিয়ে নিয়ন্ত্রণ রাখা অনেকটায় কঠিন।

Advertisement

কমেন্টস