‘রোহিঙ্গাদের ফেরত নিবে মিয়ানমার’

প্রকাশঃ জানুয়ারি ১২, ২০১৭

বিডিমর্নিং ডেস্ক-
গত অক্টোবর থেকে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদেরকে ফিরিয়ে নিতে আগ্রহ দেখিয়েছে মিয়ানমার। দেশটির পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ও অং সান সু চির বিশেষ দূত এই আগ্রহ দেখিয়েছেন বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী।

মিয়ানমারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অং সান সুচির বিশেষ দূত উ চ থিনের সঙ্গে বাংলাদেশের আলোচনার বিষয়ে জানাতে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

বৃহস্পতিবার নিজ মন্ত্রণালয়ে মন্ত্রণালয়ে এক ব্রিফিংয়ে মাহমুদ আলী বলেন, ‘তারা আগ্রহ দেখিয়েছে। মিয়ানমারের আন্তরিকতায় আমরা আশাবাদী।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, বাংলাদেশে সাম্প্রতিক সময়ে ঢুকে পড়া ৬৫ হাজার রোহিঙ্গার পাশাপাশি আরও প্রায় সাড়ে তিন লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে অবস্থান করছে। এদেরকে নিজ দেশে ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারকে উদ্যোগী ভূমিকা নিতে হবে বলে সু চির দূতকে জানানো হয়েছে।

মন্ত্রী জানান, তাদের উদ্বেগের জবাবে দেশটির পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেছেন, প্রাথমিকভাগে গত দুই মাসে দেশটির যেসব নাগরিক বাংলাদেশে এসেছে, তাদের বাছাই প্রক্রিয়া শুরু করবে দেশটি। তবে বাংলাদেশ বলেছে, সবাইকেই ফিরিয়ে নিতে হবে।

মন্ত্রী জানান, রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ রোধে সীমান্ত লিয়াজোঁ অফিস খোলা এবং নিরাপত্তা ও সহযোগিতা বিষয়ে একটি চুক্তি করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে। মিয়ানমার তাতে রাজি আছে।

বাংলাদেশে সীমান্তরক্ষী বাহিনীর কড়া নজরদারির মধ্যও গত তিন মাসে ৬৫ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢুকে পড়েছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। এই অবস্থায় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে দুই দফা ডেকে কড়া প্রতিবাদ জানায় বাংলাদেশ।

এর মধ্যেই মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচির বিশেষ দূত হিসেবে মঙ্গলবার ঢাকায় আসেন দেশটির পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী উ চ থিন। বুধবার তিনি পররাষ্ট্র সচিব এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

মাহমুদ আলী বলেন, সরকারের সঙ্গে বৈঠকে মিয়ানমারের বিশেষ দূত সে দেশের নতুন সরকারের বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়ন ও সহযোগিতা গভীর করার আগ্রহ দেখিয়েছেন। তিনি আলোচনার মাধ্যমে মতপার্থক্য দূর ও সমস্যা সমাধানে মিয়ানমারের আগ্রহের কথা তুলে ধরেন।

কমেন্টস