বসতি হরাইজোন মালিকের সাড়ে ৫ কোটি টাকার ভ্যাট ফাঁকি

প্রকাশঃ জানুয়ারি ১১, ২০১৭

বিশেষ প্রতিবেদক-
রাজধানী বনানীর বহুতল ভবন ‘বসতি হরাইজোন, মালিকের বিরুদ্ধে বিশাল অংকের ভ্যাট ফাঁকির অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত ১৬ বছরে ১৯ তলা এ ভবনের মালিক নুরুল আজিম ভ্যাট বাবদ সরকারের প্রায় ৫ কোটি ৫২ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

এর আগে আজিমের বিরুদ্ধে ভবন ব্যবস্থাপনায় চরম অনিয়ম ও বিল্ডিং কোড না মানার অভিযোগ উঠেছিল। অভিযোগ রয়েছে তারই দায়িত্বহীনতা ও অব্যবস্থাপনার কারণে বিল্ডিং এ লিফট ছিড়ে পড়ে যাওয়া এবং এবার আগুন লাগার মূল কারণ। বিষয়টি জাতীয় রাজস্ব বোর্ডও (এনবিআর) খতিয়ে দেখবে বলেও এনবিআর সূত্রে জানা গেছে।

রাজধানীর অভিজাত এলাকা হিসাবে পরিচিত বনানী। এ এলাকার ১৭ নম্বর রোডে অবস্থিত ১৯ তলা বিশিষ্ট বাড়ি নম্বর ২১। সম্প্রতি আগুন লাগা বসতি হরাইজোন নামের বিশাল এ ভবনটির মালিক অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল নুরুল আজিম। তিনি ২০০১ সাল থেকে আবাসিক এলাকার এ ভবনটি সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে ভাড়া দিয়ে আসছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ২০০১ সাল থেকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অফিস ও কার্যালয়কে ভবনটির সবগুলো ফ্লোর ভাড়া দিয়ে প্রতিমাসে প্রায় ১৮ লাখ টাকা ভাড়া আদায় করন বাড়ির মালিক। এ হিসাবে বছরের ১২ মাসে ভাড়া বাবদ আদায় করেন প্রায় ২ কোটি ১৬ লাখ টাকা। এভাবে গত ১৬ বছরে তিনি মোট ৩৪ কোটি ৫৬ লাখ টাকা ভাড়া আদায় করেছেন।

এছাড়া প্রতিমাসে সার্ভিস চার্জের নামে আদায় করেছেন দুই থেকে আড়াই লাখ টাকা।

কিন্তু সকল প্রতিষ্ঠান থেকে আদায় করা ভাড়ার বিপরীতে ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট আদায় করার নিয়ম থাকলেও নুরুল আজিম ভবনের তা মানছেন না। বিগত ১৬ বছর যাবত তিনি ভাড়ার বিপরীতে ভ্যাট বাবদ কোন কানা-কড়িও সরকারি কোষাগারে জমা দেননি। এতে করে ১৬ বছরে নুরুল আজিম সরকারের প্রায় সাড়ে ৫ কোটি ৫২ লাখ টাকা ভ্যাট হাতিয়ে নিয়েছেন।

এছাড়া ভাড়া বাবদ প্রাপ্য অর্থ ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমে লেনদেন করার জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) নির্দেশনা থাকলেও তিনি তা মানছেন না। আয়ের সঠিক তথ্য গোপন করতে প্রতিমাসে হাতে লেখা রিসিট দিয়েই আদায় করে চলেছেন বিশাল অংকের অর্থ। ভবনে অবস্থান করা একাধিক প্রতিষ্ঠানের অভিযোগ, বছর শেষে আয়কর রিটার্নে আয়ের সঠিক তথ্য গোপন করে কর ফাঁকি দিতেই এ কৌশল বেছে নিয়েছেন নুরুল আজিম।

এ বিষয়ে অভ্যন্তরীন সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব ও এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান বলেন, নুরুল আজিমের দায়িত্ব ছিল নিজে তদারকি করে সরকারের প্রাপ্য ভ্যাট জমা দেওয়া। কিন্তু তিনি এটা না করে আইন ভঙ্গ করেছেন।

তিনি বলেন, বনানী এলাকাতে নুরুল আজিমের মত ভবন মালিকদের ধরতে আমি বিশেষভাবে মনোযোগ দিব। কেন্দ্রীয় মূসক গোয়েন্দা সদস্যকে আমি দ্রুত নির্দেশ দিব নুরুল আজিমের এ বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে। সে যেই হোক কোন ছাড় দেওয়া হবে না।

এ বিষয়ে কথা বলতে একাধিক বার মোবাইলে নুরুল আজিমকে ফোন দেওয়া হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেনেনি।

গত ৯ জানুয়ারি বনানী ১৭ নম্বর রোডের ২১ নম্বর হোল্ডিংয়ের ‘বসতি হরাইজন’ ১৯ তলা ভবনটি আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিসের ধারণা, দোতলার বিদ্যুৎ কন্ট্রোল বোর্ড (বিডি বোর্ড) থেকে আগুনের সূত্রপাত। এর পরই পার্কিংয়ে থাকা দুটি মোটরসাইকেলে আগুন ধরে যায়। বিদ্যুতের তার পুড়ে প্রচণ্ড ধোঁয়ার সৃষ্টি হয়। ধোঁয়া ভবনের ওপরের দিকে ছড়িয়ে পড়ে। ভবনটি বিভিন্ন বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের অফিস ছিল। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন আহত হয়।

কমেন্টস