কে এই এমপি লিটন?

প্রকাশঃ ডিসেম্বর ৩১, ২০১৬

এই বাড়িতে গুলিবিদ্ধ হন এমপি লিটন

বিডিমর্নিং ডেস্ক-
গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনে দুইবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য মনজুরুল ইসলাম লিটন নিজ বাসভবনে দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত হয়েছেন। তার বুকে ৪টি গুলিবিদ্ধ হয়েছিল বলে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়।

আজ সন্ধ্যা পৌনে ৬টায় গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের বামনডাঙ্গা ইউনিয়নের শাহাবাজ এলাকার নিজ বাসভবনে নেতাকর্মীদের নিয়ে বৈঠক করছিলেন লিটন। এ সময় ৩ যুবক মোটর সাইকেল নিয়ে এসে তাকে কয়েক রাউন্ড গুলি করে পালিয়ে যায়। লিটনের বুকের দুইদিকে ২টি গুলি ও একটি পায়ের উরুতে গুলিবিদ্ধ হয়েছে বলে জানা জানিয়েছেন এমপি লিটনের স্ত্রী খুরশিদা জাহান স্মৃতি।

লিটনের জন্ম ১৯৬৮ সালে। ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি প্রথমবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচন হন।

আততায়ীর গুলিতে সদ্য নিহত লিটন একজন ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার। তাঁর পেশা কৃষি ও ব্যবসায়। তিনি আনন্দ গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ নামের একটি প্রতিষ্ঠানেরও পরিচালক। তাঁর গ্রামের বাড়ি গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বামনডাঙ্গার মাস্টারপাড়ায়।

এমপি লিটনের স্ত্রী খুরশিদা জাহান স্মৃতি গণমাধ্যমকে বলেন, আজ বিকেলের দিকে লিটন নেতাকর্মীদের নিয়ে বাড়ির নীচতলায় বৈঠক করছিলেন। এ সময় ৩ যুবক মোটর সাইকেল নিয়ে বাড়ির সামনে এসে থামে। একজন মোটর সাইকেল স্টারররট দিয়ে বসে থাকে। অপর দুইজনের মধ্যে একজন লিটনকে লক্ষ্য করে গুলি করে দ্রুত পালিয়ে যায়। ৩ যুবকই হেলমেট পরা অবস্থায় ছিল বলে জানান স্মৃতি।

লিটনকে দ্রুত উদ্ধার করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে সন্ধ্যায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

এ ঘটনায় সুন্দরগঞ্জে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে। সুন্দরগঞ্জ এলাকা থমথম করছে।

সুন্দরগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতিয়ার রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, কি কারণে তাকে গুলি করা হয়েছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। উন্নত চিকিৎসার জন্য গুলিবিদ্ধি লিটনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

মেডিকেল সূত্রে জানা গেছে, তার লাশ এখন রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।
উল্লেখ্য, সুন্দরগঞ্জ উপজেলার দহবন্দ ইউনিয়নের গোপালচরণ এলাকায় গত বছরের ২ অক্টোবর এমপি লিটনের পিস্তলের গুলিতে আহত হয় গোপালচরণ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র শাহাদত হোসেন সৌরভ (১২)।

এ ঘটনায় সৌরভের বাবা সাজু মিয়া বাদী হয়ে ৩ অক্টোবর এমপি লিটনকে আসামি করে সুন্দরগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে তাকে ঢাকার উত্তরা এলাকা থেকে পুলিশ গ্রেফতার করে। গত ১৫ অক্টোবর থেকে গাইবান্ধা জেলা কারাগারে ২৪ দিন কারাভোগের পর জামিনে মুক্তি পান আলোচিত এই এমপি।

Advertisement

কমেন্টস