Bootstrap Image Preview
ঢাকা, ১৯ বুধবার, সেপ্টেম্বার ২০১৮ | ৪ আশ্বিন ১৪২৫ | ঢাকা, ২৫ °সে

দুঃসংবাদ, ফোরজি নিয়ে বিপাকে দেশের আইফোন গ্রাহকরা

বিডিমর্নিং ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৮, ০৮:৪৮ PM আপডেট: ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৮, ০৮:৪৮ PM

bdmorning Image Preview


বিডিমর্নিং ডেস্ক-

খুব শিগগিরই বাংলাদেশে চতুর্থ প্রজন্মের মোবাইল প্রযুক্তি সেবা ফোর জি চালু হতে যাচ্ছে। এ অবস্থায় স্বভাবতই সবার মনে কৌতূহল দেখা দিয়েছে ফোর জি নিয়ে। বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মের মধ্যে আগ্রহ লক্ষ করা যাচ্ছে।

ফোর-জির কারণে তারা কী সেবা পাবেন, সারা দেশে এই সেবা পাওয়া যাবে কি না, তা নিয়ে এখন চলছে নানা আলোচনা।

কিন্তু এর মধ্যে দুঃখের খবর রয়েছে জনপ্রিয় মোবাইল ফোনসেট আইফোন গ্রাহকদের জন্য। কেননা শুরুতেই ফোর-জি পাচ্ছেন না অ্যাপল ব্যবহারকারীরা।

মুঠোফোন অপারেটর সূত্র জানায়, আইফোনে ফোর-জি সেবা আসতে কিছুটা সময় লাগব। আর সেটা চার থেকে পাঁচ সপ্তাহ হতে পারে।তার মানে হলো মার্চের শেষের দিকে ফোর-জি সেবা পাবেন আইফোন গ্রাহকেরা। বাংলাদেশের মোবাইল অপারেটরদের সঙ্গে কিছু কারিগরি বিষয় যথাযথভাবে শেষ করতে এ সময় লাগবে অ্যাপলের।

এর ফলে যখন অন্যান্য হ্যান্ডসেটের গ্রাহকেরা ফোর-জি সেবা উপভোগ করবেন, তখন আইফোনের মালিকদের তাকিয়ে দেখা ছাড়া আর কিছুই করার থাকবে না।

মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো বলছে, এই সেবা শুরুর মানে হল ‘ইন্টারনেট এক্সপ্রেসওয়েতে’ উঠে যাওয়া। ধীর গতির ভোগান্তি থেকে মুক্তি পেয়ে ইন্টারনেটে গ্রাহকরা ছুটবেন চওড়া রাস্তায়।

উচ্চ গতির কারণে ইন্টারনেট ব্যবহারে সময় বাঁচবে, ইন্টারনেটভিত্তিক সেবাগুলো পাওয়া যাবে বাধাহীনভাবে। প্রচলিত অনেক সেবাই হয়ে যাবে ইন্টারনেটভিত্তিক। তবে মূল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখা না হলে ফোর জি চালুর কোনো সফলতাই আসবে না বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

এদিকে অনেকেরই জিজ্ঞাসা, কী থাকবে ফোর জিতে

১. থ্রিজি সুবিধায় ইন্টারনেট ডাউনলোড বা আপলোডে যে সময় লাগত, ফোর জিতে সে সময় নেমে আসবে প্রায় অর্ধেকে।

২. প্রযুক্তি নিরপেক্ষতার কারণে যে কোনো ব্র্যান্ডেই অপারেটররা ফোর জি সেবা দিতে পারবে। প্রযুক্তি নিরপেক্ষতা তরঙ্গের কার্যক্ষমতা দেড় থেকে দুই গুণ বাড়িয়ে দেয়। এতে শুধু ইন্টারনেটই নয়, ভয়েসকলেও অগ্রগতি হবে।

৩. ফোর জি সেবা ব্যবহারের বড় চ্যালেঞ্জ হবে এটি ব্যবহারের উপযোগী হ্যান্ডসেট। দেশে ৩০% মানুষের হাতে স্মার্টফোন রয়েছে, যার মধ্যে ১০% থ্র্রি-জি ব্যবহারের উপযোগী। ফোর জি হ্যান্ডসেটের চাহিদা তৈরিতে সরকারের সহায়তার প্রয়োজন পড়বে।

৪. ফোর জি গতি পেলে প্রান্তিক মানুষ নানা কাজ করতে পারবে, ফলে তাদের শহরমুখী হতে হবে না। অনলাইনভিত্তিক সেবা বেড়ে যাবে এবং ই-কর্মাসের প্রসার ঘটবে।

৫. ফোর জি চালু হলে প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকেও আউটসোর্সিংয়ের কাজ করার সুযোগ তৈরি হবে; বাড়বে কাজের ক্ষেত্র।

৬. ফোর জি গতিতে দেশে এফ কমার্সভিত্তিক ২০ হাজার পেইজ  বা গ্রুপের প্রসার আরও বাড়বে।

Bootstrap Image Preview