আইসিটি খাতের বিনিয়োগ ও কর্মস্থান বাড়াতে নতুন কর্মসূচি নিয়েছে সরকার

প্রকাশঃ আগস্ট ১, ২০১৭

মোহাম্মদ রানা-

ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণে আইসিটি সেক্টরকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছে বর্তমান সরকার। একের পর এক কার্যক্রম হাতে নিয়ে দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। তারই ধারাবাহিকতায় দেশে আইসিটি খাতের বিনিয়োগ ও কর্মস্থান বাড়াতে নতুন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে সরকার। এজন্য যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক বোস্টন কনসাল্টিং গ্রুপকে(বিসিজি) পরামর্শক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি হোটেলে ‘স্টাটেজিক সিইও আউটরিচ প্রোগ্রাম’ শীর্ষক এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অধীন বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের লিভারেজিং আইসিটি ফর গ্রোথ এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড গর্ভমেন্ট (এলআইসিটি) প্রকল্প ও বিসিজি এই কর্মসূচি বাস্তবায়ন করবে।

কর্মসূচির লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য তুলে ধরেন জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন ও তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বিনিয়োগ বাড়ানো এবং এখাতে তরুণদের কর্মসংস্থানের বাড়ানোর জন্য বোস্টন কনসাল্টিং গ্রুপকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি দেশে বিদেশি বিনিয়োগ বাড়ানোর পাশাপাশি আইসিটি ইকো সিস্টেম তৈরি করতে কৌশলগত ভূমিকা পালন করবে।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘সরকার ২০২৪ সাল পর্যন্ত আইটি ও আইটিএস শিল্পের জন্য কর সুবিধা দিয়েছে। দেশে আইটি পার্কসহ আইসিটি অবকাঠামো গড়ে তোলা হচ্ছে। বিদ্যুৎ উৎপাদন চারগুণ বেড়েছে। প্রত্যন্ত অঞ্চলে পৌঁছে গেছে দ্রুতগতির ইন্টারনেট।

আইসিটি খাতের টেকসই বিনিয়োগের কথা উল্লেখ করে পলক বলেন, ‘আইসিটি খাত সম্প্রসারণে সরকার বিভিন্ন উদ্যোগ বাস্তবায়ন করছে। এজন্য বিদেশি পরামর্শক বোস্টন কনসাল্টিং গ্রুপকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। যাতে করা তারা এদেশে টেকসই বিনিয়োগ পরিবেশ তৈরি করতে পারে। এতে করে আইসিটিতে রপ্তানি বাড়বে।’

download

তথ্যপ্রযুক্তি সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরীরর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিসিজির গ্লোবাল চেয়ারম্যান ড. হ্যান্স পল।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পে কৌশলগত অংশীদার হিসেবে কাজ করছে বিসিজি। এদেশের তরুণদের কর্মসংস্থানের পন্থা বাতলে দিতে প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। যা অচিরেই বাস্তবায়ন হবে। এছাড়াও শিগগিরিই ৫ থেকে ৭টি আইটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে একটি পাইলট আউটরিচ প্রোগ্রাম চালু করা হবে।’

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, বিসিজি আগামী দুই বছর দেশের আইটি প্রতিষ্ঠান ও এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাদের সঙ্গে বিদেশের আইটি প্রতিষ্ঠান ও সিইওদের যোগাযোগ, ব্যবসায়িক সম্পর্ক উন্নয়ন ঘটিয়ে আইসিটি খাতে বিনিয়োগ বৃদ্ধি ও এ খাতে নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য কাজ করবে।

স্ট্রাটেজিক সিইও আউটরিচ প্রোগ্রামের উদ্বোধন উপলক্ষে ‘শিফটিং গিয়ারস: অ্যাকসেলেটরিং বাংলাদেশ আইসিটি গ্রোথ সাইকেল’ শীর্ষক এক প্যানেল ডিসকাশনের আয়োজন করা হয়।

স্টাটেজিক সিইও আউটরিচ প্রোগ্রাম উদ্বোধন উপলক্ষে দু্টি পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন বিসিজির পার্টনার ও কুয়ালালামপুর চ্যাপ্টারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জারিফ মুনীর এবং নয়াদিল্পী চ্যাপ্টারের পরিচালক বিকাশ জৈন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন এলআইসিটি প্রকল্পের কম্পোনেট টিম লিডার সামি আহমেদ।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিসিসির নির্বাহী পরিচালক স্বপন কুমার সরকার, এলআইসিটি প্রকল্প পরিচালক মো. রেজাউল করীম, বেসিস সভাপতি মোস্তাফা জব্বার, মাইক্রোসফট বাংলাদেশের সোনিয়া বশীর কবির, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, ন্যাসকমের সাবেক প্রেসিডেন্ট সোম মিত্তাল, বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট ডেভেলপমেন্ট অথোরিটি, বাংলাদেশ ব্যাংক এবং আইসিটি খাত সংশ্লিষ্টরা।

Advertisement

কমেন্টস