বাংলাদেশের টি-২০ স্কোয়াডে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারিরাই অনুপস্থিত

প্রকাশঃ মার্চ ১৪, ২০১৮

বিডিমর্নিং স্পোর্টস ডেস্ক-

শ্রীলঙ্কায় নিদাহাস ট্রফিতে শেষ ম্যাচে বাংলাদেশ ব্যাটিং কিছুটা সাফল্য পেলেও বোলিংটা ছিল নির্বিষ। আরো নিদিষ্ট করে বলতে চাইলে বাংলাদেশ পেস ডিপার্টমেন্টের কেউই প্রতিপক্ষের ব্যাটম্যানদের চ্যালেঞ্জ জানাতে পারেনি। মুস্তাফিজ, তাসকিন, রুবেল সকলেই ছিলেন খরুচে।

তবে আফসোসের মূল কারণ এটাই টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের সেরা বোলার নিদাহাস ট্রফিতেই নেই। প্রথমত টি-টোয়েন্টিতে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি সাকিব ইনজুরির কারণে নেই দলে। এরপরেই অবস্থানে থাকা মাশরাফি বিদায় জানিয়েছেন এক বছরের বেশি সময়। তৃতীয় ও চতুর্থ স্থানে থাকা আব্দুর রাজ্জাক ও আল আমিন হোসেন অনেকটাই অদৃশ্য ভাবে নিষিদ্ধের তালিকায় রয়েছেন। চলুন দেখে নেওয়া যাক টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের সেরা ৫ বোলাদের।

১। সাকিব আল হাসানঃ তিনি ৬১ ম্যাচে ৬০ ইনিংসে ২২১.৫ ওভার বল করেছেন। আর রান দিয়েছেন ১৫০৯। মেইডেন ওভারের সংখ্যা ১ টি। মোট উইকেট সংখ্যা ৭৩ টি। সেরা বোলিং ফিগার ১৫ রানে ৪ উইকেট। বোলিং এভারেজ ২০.৬৭। ইকোনোমি ৬.৮০। ৪ উইকেট পেয়েছেন ৩ বার,আর এখন পর্যন্ত ৫ উইকেটের দেখা মিলেনি।

২। মাশরাফিঃ তিনি ৫৪ ম্যাচের ৫৩ ইনিংসে ১৮৯.৫ ওভার বোলিং করে ১ মেইডেনে রান দিয়েছেন ১৫২৭। মোট উইকেটের সংখ্যা ৪২ টি। সেরা বোলিং ফিগার ১৯ রানে ৪ উইকেট। গড় ৩৬.৩৫। ইকোনোমি ৮.০৪। ৪ উইকেট পেয়েছেন ১ বার।

৩। আব্দুর রাজ্জাকঃ ৩৪ ম্যাচের ৩৩ ইনিংসে তিনি ১২১.৪ ওভার বোলিং করেছেন। দিয়েছেন ৮৩৮ রান। মেইডেন ওভারের সংখ্যা ৪ টি। উইকেট পেয়েছেন ৪৪টি। সেরা বোলিং ফিগার ১৬ রানে ৪ উইকেট। বোলিং এভারেজ ১৯.০৪। ইকোনোমি ৬.৮৮। ৪ উইকেট পেয়েছেন ১ বার।

৪। আল আমিন হোসাইনঃ তিনি ২৫ ম্যাচের ২৩ ইনিংসে ৭৯.২ ওভার বোলিং করে ৫৯২ রান দিয়েছেন। মেইডেনের সংখ্যা ০। উইকেট পেয়েছেন ৩৯টি। সেরা বোলিং ২০ রানে ৩ উইকেট। গড় ১৫.১৭। ইকোনোমি ৭.৪৬।

৫। মুস্তাফিজঃ ২১ ম্যাচের ২১ ইনিংসে ৮০.২ ওভার বোলিং করে রান দিয়েছেন ৫৫৩। মেইডেন ০,উইকেট ৩২ টি। সেরা বোলিং ফিগার ২২ রানে ৫ উইকেট। বোলিং এভারেজ ১৭.২৮। ইকোনোমি ৬.৮৮। ৪ উইকেট পেয়েছেন ১ বার ও ৫ উইকেট পেয়েছেন ১ বার।

২৪ উইকেট পেয়ে মাহমুদুল্লাহ ৬ষ্ঠ, ১৮ উইকেট পেয়ে রুবেল ৭ম, ১২ উইকেট পেয়ে আরাফাত সানি ৮ম, সানির সমান সংখ্যক ১২ উইকেট পেয়ে তাসকিন ৯ম ও ৯ উইকেট পেয়ে তালিকার ১০ম স্থানে আছেন ইলিয়াস সানি।

কমেন্টস