গণমাধ্যম ক্রিকেটের গুরুত্বপূর্ণ অংশ : তামিম

প্রকাশঃ ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮

মেজবা মিলন।।
শ্রীলংকার বিপক্ষে টেস্টে হারের পর টাইগারদের নিয়ে চারি দিকে আলোচনা ও সমালোচনার ঝড় শুরু হয়।বিশেষ করে দ্বিতীয় টেস্টে মোসাদ্দেককে বাদ দিয়ে সাব্বিরকে খেলানোর কারনে।সেই জন্যই চটেছেন টাইগার দলের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন।শুধু তাই নয়,তার মতে জাতীয় দলের এই জায়গাটা অনেক ‘নোংড়া’ হয়ে গিয়েছে।তাই এখানে আর থাকতে চান না তিনি।
নোংরা জায়গাটা কেমন, সেই ব্যাখ্যা চাওয়া হলে খালেদ মাহমুদ একহাত নিয়েছিলেন সংবাদমাধ্যমকে।

“অন্য কিছু নয়। বলার কিছু নেই। আপনারাও জানেন, আমরাও জানি। নোংরা বলতে গেলে যে, মিডিয়ায় যেভাবে বলা হয়… আমাদের ক্রিকেটের একটা বড় অন্তরায় মিডিয়াও। আমরা এত ‘ফিশি’ হয়ে যাচ্ছি আস্তে আস্তে, মিডিয়ার কারণে আমাদের ক্রিকেট আটকে আছে কিনা, সেটাও একটা প্রশ্ন এখন আমার কাছে।”

“মিডিয়ায় এত বেশি আলোচনা হচ্ছে… আমার এটা মনে হচ্ছে, এত বছর ধরে ক্রিকেটে আছি, এত গসিপিং, এত কিছু… ঠিক আছে, এসব হবেই, ভালো-খারাপ আসবেই। সবকিছুই আসবে। কিন্তু কিছু কিছু জিনিস নেতিবাচক হয়ে যাচ্ছে আমাদের ক্রিকেটের জন্য।”

সুজনের কথার প্রেক্ষিতে জানতে চাওয়া হয় টাইগার দলের ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবালের কাছে।অনুশীলনের ফাঁকে সাংবাদিক সম্মেলনে এসে তামিম বলেন,উনি( খালেদ মাহমুদ) কি বলেছেন তাতে আমার না যাওয়ায় ভালো।কিন্তু আমি মিডিয়ার সম্পর্কে এতো টুকু বলতে পারি আলোচনা সমালোচনা সব জায়গাতেই হয়।কিন্তু আমার কাছে যেটা মনে হয় একাটা দল হিসাবে শক্ত থাকি খেলোয়াড় ম্যানেজমেন্ট। মিডিয়া ক্রিকেটের একটি গুরুত্ব পূর্ন অংশ।মিডিয়া মিডিয়ার কাজ করুক আমরা আমাদের কাজ করি।

টি-টোয়েন্টির জন্য টাইগারদের দলে পাচ নতুন মুখ সেই প্রসংজ্ঞে তামিম আরো বলেন, দেখেন স্পেশালি আমি দুই তিন জনের নাম বলতে পারি রাহী লাস্ট দুই বিপিএলে ভালো পারফমার দুই বারি উইকেটের দিক থেকে টপ পারফমার।এরপর আরিফুল হক লাস্ট দুই তিন বিপিএলে ও সমানে ভালো খেলে যাচ্ছে আমার কাছে মনে হয় ও ভালো শর্ট খেলে সেটা খেলার দক্ষতা তার আছে। আমার কাছে মনে হয় না যে এই দুইটা ম্যাচ দেখে ওকে বিচার করা উচিত সামনে আরো ম্যাচ খেলিয়ে দেখা উচিত।আশা করবো প্রথম ম্যাচ থেকে ও নিজের একটা অবস্থান তৈরি করবে যখন সে খেলে।কিন্তু ভালো খেলোয়াড়কে গ্যারান্টি না যে সে ভালো প্রথম ম্যাচ থেকে ভালো খেলবে হয়তো চার নম্বর পাচ নম্বর ম্যাচ থেকেও ভালো করতে পারে।যারা তদেরকে বাছাই করেছেন আমার কাছে মনে হয় এদের সেই দক্ষতা আছে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি খেলার সেই কারনেই তদের দলে নিয়েছেন।

টাগারদের টি- টোয়েন্টি দল: সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান, তামিম ইকবাল, মোস্তাফিজুর রহমান,আফিফ হোসাইন, সৌম্য সরকার, রুবেল হোসেন, আবু হায়দের রনি, আবু জায়েদ রাহী, আরিফুল হক, জাকির হোসেন, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ও মেহেদী হাসান।

উল্লেখ্য, চলতি মাসের ১৫ তারিখ মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে শুরু হবে টি- টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচ।এরপর ১৮ তারিখ সিরিজের শেষ ম্যাচ হবে সিলেটে।

কমেন্টস