শেষ ওভারের রোমাঞ্চে তামিমদের সিরিজে ফেরা

প্রকাশঃ সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৭

বিডিমর্নিং স্পোর্টস ডেস্ক-

আট বছর আগের ভুলকে সংশোধন করে চলেছে পাকিস্তান! তাই পাকিস্তানে আয়োজন করা হয়েছে ইনডিপেন্ডেন্স কাপ। যেখান বিশ্ব একাদশের বিপক্ষে মাঠে নেমেছে পাকিস্তান একাদশ। কাল ইনডিপেন্ডেন্স কাপের দ্বিতীয় ম্যাচে বাইশ গজে পাকস্তানকে আটকে দিল হাশিম আমলা ও থিসারা পেরেরা৷ বুধবার গদ্দাফি স্টেডিয়ামে ইন্ডিপেন্ডেন্স কাপের দ্বিতীয় ম্যাচে রুদ্ধশ্বাস লড়াইয়ে পাকিস্তানকে সাত উইকেটে হারিয়ে সিরিজ ১-১ করল বিশ্ব একাদশ৷

১৭৫ রান তাড়া করে এক বল বাকি থাকতেই ম্যাচ জিতে নিল বিশ্ব একাদশ৷ আমলার অপরাজিত ৭২ এবং পেরেরার অপরাজিত ঝড়ো ৪৭ রানের ইনিংসে সিরিজ জয়ের লড়াইয়ে টিকে থাকলো বিশ্ব একাদশ৷ রুদ্ধশ্বাস জয় এনে ম্যাচের সেরা হলেন শ্রীলঙ্কান অল-রাউন্ডার থিসারা পেরেরা৷ রান তাড়া করতে নেমে তৃতীয় উইকেটে আমলা-পেরেরার পার্টনারশিপে ম্যাচ জিতে নেয় বিশ্ব একাদশ৷ শেষ দিকে বিশ্ব একাদশের ম্যচ জিততে শেষ দুই বলে ৬ রানের প্রয়োজন ছিল। কিন্তু থিথারা পেরেরা ওভারের  পঞ্চম বলে ছয় হাকালে তাদের জয় নিশ্চিত হয়। সিরিজের শেষ ম্যাচ শুক্রবার৷

২০০৯-এ এই গদ্দাফি স্টেডিয়ামের সামনে শ্রীলঙ্কা টিম বাসে জঙ্গিহানায় বন্ধ হয়ে পাকিস্তানের মাটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট৷ কিন্তু দীর্ঘ আট বছর পর পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরাতে উদ্যোগী হয় আইসিসি৷ পাকিস্তানের সঙ্গে বিশ্ব একদাশের তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজের আয়োজন করে বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা৷ মঙ্গলবার প্রথম ম্যাচে পাকিস্তান ২০ রানে জয় পেলেও এদিন সাত উইকেটে ম্যাচ জিতে সিরিজে সমতা ফেরায় বিশ্ব একাদশ৷

প্রথম ব্যাটিং করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ছয় উইকেট হারিয়ে ১৭৪ রান তোলে পাকিস্তান৷পাকিস্তানের হয়ে রান করেন বাবর আজম (৪৫), আহমেদ শাহেজাদ (৪৩) ও শোয়েব মালিক (৩৯)৷ বিশ্ব একাদশের হয়ে বল হাতে স্যামুয়েল বদ্রি ও থিসারা পেরেরা ২টি করে উইকেট পান। এছাড়া বেন কাটিং ও ইমরান তাহির ১টি করে উইকেট পান।

জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ঝড়ো গতিতেই ব্যাটিং শুরু করেন বাংলাদেশি ওপেনার তামিম ইকবাল। তার দুর্দান্ত শুরুর পর দলকে চওড়া কাঁধে টানতে থাকেন আমলা। এরপর চ্যালেঞ্জিং সময়ে ঝড়ো ব্যাটিংয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেন পেরেরা।

প্রথম ম্যাচে বিশ্ব একাদশের হয়ে ব্যাট করতে নেমে ১৮ রান করেছিলেন তামিম। ওই ম্যাচে হার এড়াতে পারেনি তারা। কাল ব্যাট করতে নেমে তামিমের ব্যাট থেকে আসল ২৩ রান। ২টি চার ও ১ ছক্কায় ১৯ বলে ২৩ রান করেন তামিম ইকবাল। দলটির হয়ে ৫৫ বলে সর্বোচ্চ ৭২ রান নিয়ে অপরাজিত ছিলেন আমলা। ৫ চার ২ ছক্কায় এই ইনিংসটি সাজান তিনি। অধিনায়ক ফাফ ডুপ্লেসি করেন ২০ রান। আর শেষ দিকে ব্যাটিং নেমে দলের জয় নিশ্চিত করেন পেরেরা। ১৯ বলে ৪৭ রানের বিধ্বংসী ইনিংসে খেলে দলকে জয় এনে দেন মূলত তিনিই। তার অপরাজিত এ ইনিংসটি ৫টি ছক্কায় সাজানো ছিল।

বল হাতে পাকিস্তানের হয়ে ইমাদ ওয়াসিম, সোহেল খান ও মোহাম্মদ নেওয়াজ একটি করে উইকেট নেন।

Advertisement

কমেন্টস