ঈশ্বরদীতে ইয়াবাসহ কৃষকলীগ নেতা গ্রেফতার, ‘পুলিশকে হুমকি’

প্রকাশঃ ডিসেম্বর ৫, ২০১৭

গোপাল অধিকারী, ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধিঃ

ঈশ্বরদীতে ২শ’ পিস ইয়াবাসহ মুলাডুলি ইউনিয়ন কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কার মালিথা ও তার সহযোগীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় উপজেলার সাহাপুর নতুন হাট গোলচত্বর এলাকায় ইয়াবা বিক্রির সময় তাকে হাতেনাতে ইয়াবাসহ গ্রেফতার করে ঈশ্বরদী থানার পুলিশ। এসময় কৃষকলীগ নেতার সাথে থাকা দুলাল শেখ নামের আরেক মাদক ব্যবসায়ীকেও গ্রেফতার করা হয়।

আবু বক্কার মালিথা মুলাডুলি ইউনিয়নের পতিরাজপুর গ্রামের নবির উদ্দিন মালিথার (মৃত) ছেলে এবং তার সহযোগি মাদক ব্যবসায়ী দুলাল শেখ নাটোরের বড়াইগ্রামের আব্দুল কাদের শেখের ছেলে।

ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আজিম উদ্দীন জানান, সাহাপুর নতুন হাট গোলচত্বর এলাকায় ইয়াবার একটি বড় চালান হাত বদল হবে এমন সংবাদের ভিত্তিতে সেখানে অভিযান চালানো হয়। অভিযানের সময় ক্ষমতাসীন দলের নেতা এবং ভূমিমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ সহচর হিসেবে পরিচিত থাকায় পুলিশ বক্কার মালিথাকে গ্রেফতার করতে গেলে তিনি পুলিশকে দেখে নেওয়ারও হুমকি দেয়। এসময় পুলিশ তাকে চ্যালেঞ্জ করে দেহ তল্লাশি চালিয়ে ২০০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে।

তিনি আরও বলেন, আউ বক্কার মালিথার বিরুদ্ধে ঈশ্বরদী থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে, তাকে মঙ্গলবার সকালে পাবনা জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যায় তাকে থানা থেকে ছাড়িয়ে নেওয়ার জন্য ভূমিমন্ত্রীর লোকজন ও মূলাডুলি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সেলিম মালিথা থানায় তদবির করতে গেলেও পুলিশ বক্কার মালিথাকে গ্রেফতার দেখিয়ে মামলা রুজু করে।

মুলাডুলি ইউনয়নের চেয়ারম্যান সেলিম মালিথা এ বিষয়ে বলেন, মাদক সংক্রান্ত কোনো ব্যাপারে আমি থানায় তদবির করিনা। মাদক ব্যবসায়ী যেই হোক তার শাস্তি হওয়া দরকার বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এলাকাবাসী জানান, মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত আবু বক্কার মালিথা পতিরাজপুর গ্রামের সরদার পাড়াসহ বেশ কয়েকটি মাদকের স্পট পরিচালনা করলেও তিনি ভূমিমন্ত্রীর ঘনিষ্ট সহচর ও মুলাডুলি ইউনিয়ন কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক হওয়ায় ভয়ে তার বিরুদ্ধে কেউ কথা বলার সাহস পেতো না।

কমেন্টস