পেয়ারা নিয়ে ছাত্রী হোস্টেলে ছাত্রলীগ নেত্রীদের সংঘর্ষ, আহত ৯

প্রকাশঃ জুলাই ১৪, ২০১৭

বিডিমর্নিং ডেস্ক-

বরিশাল সরকারি ব্রজমোহন (বিএম) কলেজের বনমালী গাঙ্গুলী ছাত্রীনিবাসে পেয়ারা পাড়াকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে ৯ জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে গুরুতর ৩ জনকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (শেবাচিম) ভর্তি করা হয়েছে।

শুক্রবার (১৪ জুলাই) বেলা ১২ টার দিকে বনমালী ছাত্রী নিবাস চত্ত্বরে ছাত্রলীগের দুই নেত্রী ও তাদের অনুসারীদের মধ্যে মারামারির এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ছাত্রী নিবাসের কাকলী-২ ভবনের সামনে একটি শেড নির্মানের জন্য সেখানে থাকা পেয়ারা গাছটি কেটে ফেলার প্রস্তুতি নিচ্ছিলো ঠিকাদার মো. জুয়েল। ঠিকাদার জুয়েল ছাত্রী নিবাসের ছাত্রলীগ নেত্রী মুনিরাকে পেয়ারা খাওয়ার প্রস্তাব দেয়। মুনিরা তার কয়েক সহযোগীদের নিয়ে সেখানে গিয়ে গাছ থেকে পেয়ারা পাড়ে। এ সময় ছাত্রী নিবাসের প্রতিদ্বন্দ্বী ছাত্রলীগ নেত্রী হেনাসহ তারা অনুসারীরা পেয়ারা পাড়তে বাঁধা দেয়। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে উত্তপ্ত বাদানুবাদ হয়। এক পর্যায়ে হেনা ও তার অনুসারীরা লাঠি-সোটা নিয়ে হামলা চালালে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে ৯ জন আহত হয়। পরে খবর পেয়ে কলেজের উপাধাক্ষ্য স্বপন কুমার পাল, ছাত্রী নিবাসের তত্ত্বাবধায়ক এসএম নাসিরউদ্দিন সহ পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন।

ঘটনায় আহতরা হলেন, পদ বিহীন ছাত্রলীগ নেত্রী মুনিরা আক্তার মনি, শারমিন আক্তার, মারিয়া হোসেন, কান্তা ইসলাম, ইসরাত জাহান, ঝুমুর, ফাতেমা, জান্নাত ও মিষ্টি। এদের মধ্যে শারমিন আক্তার, মারিয়া হোসেন ও ইসরাত জাহানকে শেরে-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে ছাত্রলীগ নেত্রী দাবিদার হেনা আক্তার বলেন, তিনি পরীক্ষা দিয়ে ছাত্রী নিবাসে গিয়ে দেখেন মুনিরা তার অনুসারীদের ২ নম্বর ভবনের সামনের গাছ থেকে পেয়ারা পাড়ছেন। এ সময় তাদের নিষেধ করা হলে, জুনিয়র হয়েও তারা দুর্ব্যবহার করে। এ কারণে ওই ভবনের ছাত্রীরা একজোট হয়ে মুনিরা সহ তার সহযোগীদের লাকড়ি দিয়ে পিটিয়েছে।

ছাত্রলীগ নেত্রী দাবিদার মুনিরা আক্তার জানান, পেয়ারা পাড়ায় ছাত্রী নিবাসের অবৈধ বাসিন্দা হেনা ও তার অনুসারী ঝুমুর, ফাতেমা, জান্নাত ও মিষ্টি সহ কয়েকজন লাঠি-সোটা নিয়ে তাদের উপর হামলা চালায়। এতে তিনি (মুনিরা), শারমিন, মারিয়া, কান্তা ও ইসরাতসহ ৯ জন আহত হন। এদের মধ্যে তিনজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ছাত্রী নিবাসের তত্ত্বাবধায়ক এসএম নাসিরউদ্দিন জানান, পেয়ারা পাড়া নিয়ে দুই নেত্রী ও তাদের অনুসারীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। হেনা ছাত্রী নিবাসের অবৈধ বাসিন্দা নয় বলে তিনি জানান।

কলেজের উপাধাক্ষ্য স্বপন কুমার পাল বলেন, সংঘর্ষের ঘটনা তদন্ত করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কমেন্টস