দেশবিরোধী কোনো চুক্তি দেশের মানুষ মেনে নেবে না: গোলাম মোস্তফা

প্রকাশঃ এপ্রিল ২১, ২০১৭

বিডিমর্নিং ডেস্ক-

২০ দলীয় জোটের অন্যতম নেতা ও বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেছেন, অনৈতিকভাবে ক্ষমতাসীন সরকার দেশের স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়ে প্রতিবেশীর স্বার্থ রক্ষায় ব্যস্ত। ক্ষতাকে দীর্ঘস্থায়ী করতে স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব বিসর্জন দিয়ে ভারতের সাথে চুক্তি করেছে তারা। কিন্তু, তারা ভুলে গেছে দেশবিরোধী কোনো চুক্তি দেশের মানুষ মেনে নেবে না।

শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে স্বাধীনতা অধিকার আন্দোলন আয়োজিত ‘ভারতের সাথে সার্বভৌমত্ব বিরোধী চুক্তির প্রতিবাদ এবং তিস্তাসহ ৫৪ টি অভিন্ন নদীর ন্যায্য হিস্যার দাবি’ শীর্ষক মানববন্ধনে অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের তিস্তা চুক্তি হলো না, হলো প্রতিরক্ষা চুক্ত। যা দেশের জাতীয় স্বার্থ বিরোধী। তিস্তা ছাড়া অন্য যেকোনো চুক্তি হবে অর্থহীন। সরকারকে দেশের মানুষের মনে ভাষা পড়তে হবে, বুঝতে হবে। অন্যথায় পরিনতি শুভ হবে না।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি ড. কাজী মনিরুজ্জামান মনিরের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাসদুজ্জামান দুদু, বক্তব্য রাখেন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব এডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবি এম মোশাররফ হোসেন, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মো. রহমতউল্লাহ, কল্যাণ পার্টি ভাইস চেয়ারম্যান সাহিদুর রহমান তামান্না, জিনাফ সভাপতি মিয়া মোঃ আনোয়ার প্রমুখ।

এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেছেন, দেশের স্বার্থ অক্ষুন্ন রেখে সীমান্তে হত্যাকান্ড বন্ধ, তিস্তা নদীর পানি বণ্টনসহ দুই দেশের মধ্যে অমীমাংসিত বিষয়গুলো মিমাংসা করা অগ্রাধিকারমূলক কর্তব্য। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য সে বিষয়ে সরকার প্রধান কোন কিছুই করতে পারে নাই। কারণ, তিস্তা চুক্তিসহ দেশের স্বার্থের পক্ষের গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো বাদ দিয়ে সরকার নিজেদের স্বার্থে ‘প্রতিরক্ষা চুক্তি’ স্বাক্ষরের বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়েছে।

তিনি বলেন, সীমান্তে হত্যা বন্ধ করতে, তিস্তা নদীর স্বাভাবিক পানিপ্রবাহ নিশ্চিত করতে, সমতা ও ন্যায়বিচারের ভিত্তিতে পানির অধিকার প্রদান করতে হবে। আর এসকল অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হলে প্রয়োজন একটি গণতান্ত্রিক ও দেশপ্রেমিক সরকার। সেই দেশপ্রেমিক সরকার প্রতিষ্ঠার চলমান সংগ্রমকে চূড়ান্ত বিজয়ের দিকে নিয়ে যেতে হবে।

 

 

Advertisement

কমেন্টস