ভাষা আন্দোলন আর মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ঐক্যবদ্ধ হতে হবে: গোলাম সারওয়ার

প্রকাশঃ মার্চ ১৯, ২০১৭

বিডিমর্নিং ডেস্ক-

বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ সিনিয়র প্রেসিডিয়াম সদস্য, প্রবীণ রাজনীতিক, ভাষা সৈনিক আলহাজ্ব গোলাম সারওয়ার খান বলেছেন, ‘‘মহান ভাষা আন্দোলন আর মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। ভাষা আন্দোলর আর মুক্তিযুদ্ধের চেতনা থেকে দূরে সরে যাবার কারণেই আজ রাষ্ট্রে ও সমাজে জঙ্গিবাদের উত্থান হচ্ছে।’’

তিনি বলেন, ‘জঙ্গিবাদকে রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহার করলে হবে না। ক্ষুদ্র রাজনৈতিক স্বার্থের উর্দ্ধে উঠে আমাদের জঙ্গিবাদকে মোকাবেলা করতে হবে।’

রবিবার দুপুরে নয়াপল্টনস্থ যাদু মিয়া মিলনায়তনে সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা কর্মী পরিষদের আহ্বায়ক কাজী গোলাম মাহবুবের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ভাসানী সাহিত্য-সাংস্কৃতিক পরিষদ আয়োজিত স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে গোলাম সারওয়ার খান এ কথা বলেন।

পরিষদ আহ্বায়ক মতিয়ারা চৌধুরী মিনু’র সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, এনডিপি প্রেসিডিয়াম সদস্য মোঃ মঞ্জুর হোসেন ঈসা, ন্যাপ নগর সদস্য সচিব মোঃ শহীদুননবী ডাবলু, জাতীয় ছাত্র কেন্দ্রের সমন্বয়কারী সোলায়মান সোহেল, পরিষদ এম.এ. মুক্তাদীর, সাবরিনা সুলতানা প্রমুখ।

এম. গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া বলেন, ‘‘ফালানী কাঁটাতারে ঝুলে থাকে। আমাদের বিজিবি সদস্যদের ধরে নিয়ে মিয়ানমারের মতো দুর্বল দেশও শিকল দিয়ে বেঁধে রাখে। আমরা কোনো প্রতিবাদ করি না। আমরা ক্ষমতার জন্য লড়াই করি। মওলানা ভাসানী, কাজী গোলাম মাহবুব, অলি আহাদ, আবদুল মতিনদের বাদ দিয়ে ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস রচনার চেষ্টা করছি। যা আত্মপ্রতারণা ছাড়া আর কিছুই নয়।’’

তিনি বলেন, ‘‘দুঃখজনক হলেও সত্য কাজী গোলাম মাহবুব জীবনের শেষ মুহুর্তে যে দলের পতাকা গায়ে জড়িয়ে ছিলেন আজ সে দলও তাকে স্মরণ করছে না। জাতি হিসাবে আমরা কতটুকু অকৃতজ্ঞ এটাই তার প্রমাণ।’’

সভাপতির বক্তব্যে মতিয়ারা চৌধুরী মিনু বলেছেন, কাজী গোলাম মাহবুব ছিলেন গণজাগরণের নেতা। তিনি মানুষের মধ্যে চেতনাবোধ তৈরি করে গেছেন। অধিকার আদায়, স্বাধীনতা, সাম্য ও মুক্তির চেতনা। আজকে নেতাদের মধ্যে সেই জাগরণ নেই। দেশের মানুষের কথা বলার স্বাধীনতা নেই। চলাফেরার স্বাধীনতা নেই। কাজী গোলাম মাহবুব বেঁচে থাকলে অবশ্যই জাগরণের কথা বলতেন।

কমেন্টস