লোকনাথ মন্দিরে রহস্যময় রাখের উৎসব!

প্রকাশঃ নভেম্বর ১৫, ২০১৭

মোঃ আবু সুফিয়ান জুয়েল।।

আপনজনের কল্যাণ কামনা করে নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন লোকনাথ মন্দিরে পালিত হয়েছে লোকনাথ ভক্তদের রহস্যময় উৎসব রাখের উপবাস। কার্তিক মাসে কলেরা-বসন্তের হাত থেকে বাঁচার জন্য আশ্রম প্রাঙ্গণে ঘিয়ের প্রদীপ ও ধূপ-ধুনা জ্বালানো ও উপবাস পালনের নির্দেশ দিয়েছিলেন লোকনাথ। সেই থেকেই সোনারগাঁয়ের বারদী লোকনাথ আশ্রমে প্রতি বছর কার্তিক মাসে পালিত হয়ে আসছে রহস্যময় এই উৎসব।

কার্তিক মাসের ১৫ তারিখে শুরু হয়ে গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ সোনারগাঁ উপজেলার বারদী লোকনাথ ব্রহ্মচারীর আশ্রমের পাশাপাশি নারায়ণগঞ্জে লক্ষ্মী নারায়ণ জিউর আখড়া ও নারায়ণগঞ্জের মাসদাইরে শশ্মানে লোকনাথ মন্দির এক যোগে অনুষ্ঠিত হয়েছে রাখের উপবাস।

উৎসবের শেষ দিন গতকাল মঙ্গলবার সোনারগাঁ উপজেলার বারদী লোকনাথ ব্রহ্মচারীর আশ্রমে সারেজমনে গিয়ে দেখা যায়, ধান- দূর্বা মাটির প্রদীপ, ঘি, ডাব ও দুধ নিয়ে একে একে মন্দিরে আস্তে থাকেন লোকনাথ ভক্তরা।বেলা যত গড়াতে থাকে লোকনাথ ভক্তদের ভীড় ততই বাড়তে থাকে।

আবার অনেককে দেখা যায় বাড়ি থেকে আনা ফলমূল, ডাব ও দূধ সবকিছু বাবা লোকনাথের নামে অর্পন করে আগরবাতি, মোববাতি জ্বালিয়ে উৎসবের সূচনা করে লোকনাথভক্তরা।

তারপর মন্দিরের সামনে উন্মুক্ত ময়দানে সারিবদ্ধ ভাবে বসে যায় সবাই। নিজ নিজ আসনের সামনে কলাপাতার ওপর রাখা হয় ঘিয়ের প্রদীপ। বিপদ থেকে রক্ষার জন্য যে কয়জন আপনজনের উদ্দেশ্যে প্রার্থনা করা হয়, গুনে গুনে সেই কয়টি প্রদীপ জ্বালিয়ে সামনে রাখা হয়।

দুই থেকে দশটি পর্যন্ত প্রদীপ দেখা গেছে। সূর্যাস্তের সাথে সাথে বেজে ওঠে ঘন্টা এবং উলুধ্বনির মধ্য দিয়ে সবাই একযোগে জ্বালাতে শুরু করে প্রদীপ। আর এর সাথে এক সঙ্গে জ্বলে ওঠে শত শত ঘিয়ের  প্রদীপ।  এর মধ্যে শুরু হয় লোকনাথের নামে আরাধনা। রাত ৮টায় প্রদীপ জ্বালানো শেষে ভাঙ্গা হয় সারাদিনের উপবাস। প্রসাদ গ্রহনের মধ্যে দিয়ে শেষ হয় অনুষ্ঠান।

লোকনাথ মন্দিরে আসা এক ভক্ত অনিল চক্রবর্ত্তী  জানান, আপনজনের মঙ্গল কামনা করে লোকনাথ বাবার এ রাখের উপবাস  পালন করা হয়। প্রতিবছর কার্তিক মাসের ১৫ থেকে ৩০ কার্তিক এই ১৫ দিনের প্রতিটি শনি ও মঙ্গলবার রাখের উপবাস অনুষ্ঠিত হয়।

তিনি আরো বলেন, কলেরা বসন্তের হাত থেকে বাঁচার জন্য কার্তিক মাসে উপবাস পালন এবং আশ্রম প্রাঙ্গণে ঘিয়ের প্রদীপ ও ধূপ ধুনা জ্বালানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন বাবা লোকনাথ। সেই থেকে সোনারগাঁয়ের বারধী লোকনাথ আশ্রমে প্রতি বছর কার্তিক মাসে হয় এই উৎসব। এখন বাংলাদেশসহ বহির বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাবা লোকনাথের মন্দিরে এ উৎসব পালন করা হয়।  প্রতি বছর বাবা লোকনাথের মন্দিরে ঘিয়ের প্রদীপ প্রজ্জলন করা হয়।

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি দিলীপ কুমার মন্ডল বলেন, সবাই যার যার ইচ্ছা পূরণের উদ্যোশে বা মন বাসনা পূরণের লক্ষ্যে এ উপবাস করে থাকে। সারাদিন উপবাস থেকে ধর্মীয় রীতিনীতি থেকে এ পূজা অর্চনা করা হয়।

কমেন্টস