মালয়েশিয়ায় সবজি চাষঃ চীনাদের হটিয়ে দখলে নিল বাংলাদেশিদের

প্রকাশঃ ডিসেম্বর ৭, ২০১৭

বিডিমর্নিং ডেস্ক-

চীনাদের হটিয়ে শাক-সবজি উৎপাদনের বিশাল বাজার দখলে নিয়েছে বাংলাদেশিরা। এর ফলে তৈরি হচ্ছে নতুন বিনিয়োগকারী। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ প্রবাসীর এ দেশে বৈধভাবে বাংলাদেশিরা ব্যবসায় বিনিয়োগ করে হচ্ছেন সফল।

প্রবাসী বাঙালি সূত্রে জানা যায়, মালয়েশিয়ায় পতিত জমির অভাব নেই। অনেক সময় সরকারের কাছ থেকে আবার অনেক সময় ব্যক্তি মালিকানার জায়গা নামমাত্র টাকায় কয়েক বছরের জন্য চুক্তিতে নিচ্ছেন বাংলাদেশিরা।

এ ব্যাপারে প্রবাসী বাঙ্গালিরা জানান, নাগরিক হলে এ ব্যবসায় আসা সহজ। অনেকে আবার এদেশের কারও নামে লিজ নিয়ে চাষ করছেন। তবে তারা কলিং ভিসায় আসেননি। যারা রয়েছেন আরও আগে থেকে। আবার কেউ চাইলে ব্যবসায়িক ভিসা কিংবা সেকেন্ড হোমের আবেদন করেও ব্যবসা শুরু করতে পারেন। সেকেন্ড হোমের জন্য বয়স ৪০ এর বেশি হলে এক লাখ রিঙ্গিত (১ রিঙ্গিত=২০ টাকা) ডিপোজিট রাখতে হয় মালয়েশীয় সরকারের কাছে। আর বয়স এর কম হলে তিন লাখ।  কলিং ভিসায় এলে সে কাজ নিয়ে আসবে তাকে সে কাজেই করতে হবে। নইলে সে অবৈধ হয়ে যাবে।

এদিকে বাংলাদেশি ব্যবসায়ী সেলিম ১৮০ বিঘা ও আব্দুল হালিম ৬৩ বিঘা জমিতে চাষাবাদ করছেন। দুজনই মালয়েশিয়ার মালাক্কায় আছেন ২০ বছরের বেশি সময় ধরে। মালয় নারী বিয়ে করে দুজনই এদেশের নাগরিক।

তারা ক্যামেরুন হাইল্যান্ডে বাংলাদেশিদের সফলতার কথা তুলে ধরে দেশের অন্য প্রান্তে চাষাবাদ বাড়ার কথা জানান। একইসঙ্গে এ সেক্টরে যে চীনারা সংখ্যালঘু হচ্ছে তা কয়েকটি বাগান পরিদর্শনেও জানা যায়।

অপরদিকে মালয়েশিয়ার সবচেয়ে ঐতিহাসিক স্থান মালাক্কা ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য সব সময় ছিল বিখ্যাত। বিভিন্ন সময় ব্রিটিশ, ওলন্দাজ, পর্তুগিজরা এলাকাটি দখল করে বাণিজ্য করেছে। পালতোলা জাহাজের যুগেও মালাক্কা প্রণালী ও সমুদ্রবন্দর ছিল গুরুত্বপূর্ণ। আগের সে জৌলুশ কিছুটা কমলেও ব্যবসা-বাণিজ্য এখনও এখানে জমজমাট।

মালাক্কার শত শত একর জমিতে এখন সবজি চাষ করছেন বাংলাদেশিরা। ফলন বেশি এবং সারাবছর সমান ফলন পাওয়ায় লাভ প্রায় ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ। আবহাওয়াগত কারণে এখানে চাষাবাদ অনেক সহজ। সারাবছর আবহাওয়া না গরম না শীত, আবার বর্ষা হওয়ায় চাষ করা সহজ। ক্ষেতে কাজ করা শ্রমিকরাও অধিকাংশ বাংলাদেশি। মালয়েশিয়া ও বাংলাদেশ সরকার কৃষিতে জোর দেওয়ায় এ সেক্টরে লোক পাওয়া সহজ।

প্রসঙ্গত, কৃষিপ্রধান দেশ বাংলাদেশ থেকে এসে কৃষিতে বিদেশের মাটিতেও যে ভালো করা সম্ভব তা প্রমাণ করছে মালয়েশিয়া প্রবাসী বাংলদেশিরা। মালয়েশিয়ার শীতপ্রধান অঞ্চল ক্যামেরুন হাইল্যান্ডে বাঙালি শ্রমিকেরা কৃষিকাজে সফল আগে থেকেই। এখন সেখানে বেড়েছে উদ্যোক্তা। নিজেরা জমি লিজ নিয়ে চাষ করছে সবজি। এক সময় চীনাদের দখলে থাকা ব্যবসার এ খাতে বাংলাদেশিদের আধিপত্য। বাংলাদেশিদের সাফল্য দেখে চীনা মালিকরা সাব কন্ট্রাক্টে ছেড়ে দিচ্ছে জমি। সব মিলিয়ে এখন বাংলাদেশিরাই সংখ্যাগরিষ্ঠ।

ক্যামেরুন হাইল্যান্ডে সব সময় শীতল আবহাওয়া হওয়ায় বিভিন্ন প্রকার কপি, টমেটোর ফলন হয়, যা দেশের অন্য অঞ্চলে হয় না। সঙ্গে অন্য সবজিও ভালো ফলে। পুরো মালয়েশিয়ার সবজির চাহিদার বড় অংশ মেটায় ক্যামেরুন হাইল্যান্ড। সেখানে  সফলতা দেখে দেশটির অন্য অঞ্চলেও বাড়ছে বাংলাদেশিদের শাক-সবজি চাষ। বাড়ছে কৃষিতে বিনিয়োগ। তথ্যঃ সংগৃহীত।

কমেন্টস