বিদেশি ‘মেলন’ ফলের চাষ হচ্ছে বাংলাদেশে

প্রকাশঃ জুন ২৫, ২০১৬

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি
ওয়াটারমেলন বা তরমুজ নয়, ফলটির নাম ‘মেলন’। এ ফল প্রধানত তাইওয়ান ও ভারতে উৎপাদন হয়। মধ্যপ্রাচ্যের বাজারে এর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। বাংলাদেশেও আস্তে আস্তে পরিচিতি বাড়ছে। ফাইভ-স্টার বা থ্রি-স্টার মানের হোটেলগুলোতে অতিথিদের চাহিদার তালিকায় ফলটি পাওয়া যায়।

বেসরকারি শস্য গবেষণা প্রতিষ্ঠান এগ্রিকনসার্নের এরিয়া ম্যানেজার খাইরুল ইসলাম এ ফল সম্পর্কে জানান, গত সাত বছর ধরে চুয়াডাঙ্গার গাড়াবাড়িয়া গ্রামে ‘দেশের মাটিতে মেলন চাষের সম্ভাব্যতা’ যাচাইয়ের জন্য গবেষণা চলছে। এগ্রিকনসার্ন এ গবেষণা করছে। লক্ষ্য, আমদানির পরিবর্তে দেশে উৎপাদিত মেলন দিয়ে দেশিয় ভোক্তাদের চাহিদা মেটানো। পাশাপাশি মধ্যপ্রাচ্যের বাজারে রপ্তানি করা।

খাইরুল ইসলাম আরও জানান, সাত বছর গবেষণার পর চলতি বছর তাদের প্রতিষ্ঠান ১২ বিঘা জমিতে মেলন উৎপাদন করেছে। এক বিঘা জমিতে মেলন উৎপাদন করতে খরচ হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ হাজার টাকা। অথচ এক বিঘা জমির মেলনের দাম প্রায় ২ লাখ টাকা। প্রতি বছর আমাদের দেশে প্রায় ২৫ কোটি টাকার মেলন আমদানি করা হয়।

তিনি জানান, এগ্রিকনসার্নের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কৃষিবিদ ড. শেখ আব্দুল কাদের প্রথম বাংলাদেশে মেলন চাষের কথা ভাবেন। দেশে অর্থকরী ফসল চাষের নতুন দ্বার উন্মোচনের লক্ষ্যেই মেলন চাষের পরিকল্পনা করেন তিনি। তার পরিকল্পনা মতোই এদেশে গবেষণা চলছে। দেশের মাটিতে মেলন চাষে শতভাগ সফলতা এলে চাষিদের মাঝে এ চাষ ছড়িয়ে দেওয়া হবে।

কমেন্টস