দৃক গ্যালারিতে চলছে ডিও ভলেন্টি আর্ট প্রদর্শনী

প্রকাশঃ জুলাই ২৭, ২০১৭

আমজাদ হোসাইন।।

রাজধানীর দৃক গ্যালারিতে চলছে দুই দিনব্যাপী ঢাকা সামার ডিও ভলেন্টি আর্ট প্রদর্শনী। তরুণ শিল্পীদের সাথে থেকে তাদের একটি প্লাটফর্ম করে দেওয়ার জন্য এ আয়োজন করেন মাহির আবরার। তিনি পড়াশোনা করছেন আমেরিকার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে। প্রদর্শনীর আয়োজক মাহির আবরারের সাথে এ নিয়ে বিস্তারিত কথা বলেছেন বিডিমর্নিং প্রতিনিধি আমজাদ হোসাইন।

আমজাদ হোসাইন: ঢাকা সামার ডিও ভলেন্টি আর্ট প্রদর্শনী সম্পর্কে জানতে চাই?

মাহির আবরার: এটি ২৬ ও ২৭ জুলাই দু’দিন ব্যাপী একটি আর্ট প্রদর্শনী। মূলত তরুণ প্রতিভাবানদের জায়গা করে দিতে এ আয়োজন। এখানে বিনামূল্যে যে কেউ ঘুরে যেতে পারবেন।

আমজাদ হোসাইন: এটি আপনার কততম প্রদর্শনী?

মাহির আবরার: এটিই আমার সর্বপ্রথম আর্টপ্রদর্শনী।

আমজাদ হোসাইন: প্রথম দিনে সাড়া কেমন পেলেন?

মাহির আবরার: এক কথায় অসাধারণ। কিছুক্ষণ আগে এক তরুণ আর্টিস্ট তার প্রথম পেইন্টিং বিক্রি করল। তার সীমাহীন খুশিই আমার বড় পাওয়া ছিল।

আমজাদ হোসাইন: চিত্রপ্রদর্শনীর আগ্রহ কোথায় পেলেন?

মাহির আবরার: আর্ট সবসমই আমার ভালোলাগার জায়গা। যদিও নিজে ভাল আঁকতে পারি না। তবে প্রদর্শনীর কথা বলতে গেলে এর পিছনে একটি গল্প আছে। কিছুদিন আগে কানাডায় গিয়েছিলাম। সেখানে এক চিত্রপ্রদর্শনীতে বিশ্বের নানান দেশের চিত্রকর্ম দেখলাম। বিশেষ করে ইন্ডিয়ার। নিজের দেশের চিত্রকর্ম না দেখে মনটা খুব খারাপ ছিল। তবে শেষের দিকে গিয়ে আমাদের এস এম সুলতানের একটি চিত্রকর্ম দেখে মনটা ভরে গেল। তারপর থেকেই চিত্র প্রদর্শনীর কথা মাথায় আসে।

আমজাদ হোসাইন: এই ডিও ভলেন্টি আর্ট প্রদর্শনীর প্ল্যান কবে থেকে শুরু করেন?

মাহির আবরার: খুব বেশি দিন নয়। সামারে যখন বাংলাদেশে আসি তখন দেখলাম অনেকেই তাদের পেইন্টিং বিক্রির জন্য ফেসবুকে পোস্ট দিচ্ছে। আর আমার মতে পেইন্টিং বিক্রির জন্য ফেসবুকে যথাযথ মাধ্যম নয়। তারপর থেকেই এই প্রদর্শনীর প্ল্যান করি।

আমজাদ হোসাইন: আর্টিস্ট কীভাবে সংগ্রহ করলেন?

মাহির আবরার: আমার বন্ধুমহল এবং তাদের পরিচিত সকলকেই জানালাম। তা ছাড়া ফেসবুকেও একটি ইভেন্ট খুলেছি।

আমজাদ হোসাইন: অংশগ্রহণকারী আর্টিস্ট এবং তাদের চিত্রকর্মের সংখ্যা কত?

মাহির আবরার: আমার এখানে আর্টিস্ট অংশগ্রহণ করেছে ১৫ জন। আর চিত্রকর্মের সংখ্যা ৭০ থেকেও বেশি।

আমজাদ হোসাইন: আপনার এই আয়োজনের বিশেষ দিকটি কি?

মাহির আবরার: বিশেষ দিক বলতে গেলে অংশগ্রহণকারীরা সবাই তরুণ। যাদের বয়স ১৮ থেকে ২০-এর মধ্যে। যারা সহজে ভেন্যু পায় না অথবা খরচ বহন করতে পারে না।

আমজাদ হোসাইন: ভবিষ্যতে এমন প্রদর্শনী নিয়ে পরিকল্পনা কী?

মাহির আবরার: আমার এই প্রদর্শনীটি সফল হলে প্রতি বছর এমন আয়োজন করে যাব।

আমজাদ হোসাইন: প্রদর্শনী নিয়ে আর কিছু কি বলতে করতে চান?

মাহির আবরার: একটি কথাই বলব। আপনারা এই চিত্রপ্রদর্শনী দেখতে আসুন।  তরুণ শিল্পীদের পেইন্টিং দেখুন এবং তাদের উৎসাহিত করুন।

কমেন্টস