যৌবন নদীতে

প্রকাশঃ মে ৩, ২০১৮

গোলাম মোস্তফা

এইতো সেই দিন দেখা,
রাস্তার পাশে কোন এক ঘটনায়।
আমি জানি তুমি আগের মতো নেই,
কোন শব্দ যেমন আগের মতো থাকে না।
তোমার আকাশ-তোমার না বলা কথা ,
আজ কারো জন্য অপেক্ষা করে না।

আমি তোমাকে সবসময় কিছু বলতে চাইতাম,
কোন এক না বলা দেশের কারণে বলা হয়নি।
কখনো হয়তো আমি আর বলতে পারবো না,
সেই দেশ যে জীবন নাম ঘরে আর আসবে না।

এত কষ্ট কেন আমি পাই!
যেখানে তুমি যৌবন নদীতে
নিজের জীবনের কিছু কথা
আর মনে রাখোনি।

আমার কষ্ট হয় দিনের আলোতে।
আমার চোখের জ্বালা হয়!
তোমার ছবির ছায়ার জন্য ,
যখন আমার দৃষ্টিকে বলে এইতো আমি।

আমি কেন পারি না তোমার ছবি ভুলতে,
আমায় বাঁচার সবটুকু নিয়ে ভালো আছোতো!
আমি ভালো নেই তোমার না বলার কথার কারণে।
এইতো সেদিন তুমি আর পাশে একটি ছায়া,
আমি দেখতে পাই এক বেদনার সাগরে।

তোমার মনে আছে সবুজ রেল লাইনের কথা?
এক পা ,দু পা দিয়ে আলতো মায়া করে,
পাশে এসে বলতে তুমি পারবে তো !
আমার জীবন রেল গাড়ীতে চড়তে।

আজ আমি সেই জীবন রেল গাড়ির জন্য,
সবুজ রেল স্টেশনের পাশে।
মাঝে মাঝে নীরব কান্না করি,
তোমার না বলার শব্দের জন্য।

এইতো সেদিন তোমাকে দেখলাম,
মায়া দেহ নিয়ে বসে আছো জানালার পাশে।
ডাকবো বলে দাঁড়িয়ে ছিলাম,
চোখের পাতায় হঠাৎ করে!
পাশে বসে থাকা কেউ,
সেই আবারো না বলা শব্দ আমাকে কষ্ট দেয়।

তোমার দেহে রুগ্ন হাল আগে ছিলো না তো,
এত সুখের বাগানে থেকে একি করেছো দেহের!
মনের জানালার পাশে বসে তুমি বলতে,
আমি হবো দেখার মতো এক মহান মানুষ!
আজ তুমি মহান হয়েছো বটে।
চোখে পানির সাগরে তোমাকে নিয়ে,
আমার না বলার শব্দের দেশে ভালো থাকতে চাই।

এমন ব্যথার ঘরে আমাকে থাকতে দাও,
আমি যে তোমার সুখের আকাশে।
ভালোবাসার রাষ্ট্র তৈরি করেছি,
আমার ভালোবাসার দেশ
তোমার না বলার শব্দ।

কমেন্টস