আমি তোমার মা, ধর্ষণ করো আমায়…..(কবিতা)

প্রকাশঃ এপ্রিল ৪, ২০১৮

আমি তোমার মা, ধর্ষণ করো আমায়…..

 

মায়ের পেটে যখন ছিলাম তখন মা বলতেন,

পৃথিবী অনেক সুন্দর, তুমি আসো-

আমরা তোমাকে আলিঙ্গন করবো,

সুস্বাগতম জানাবো, আমি অপেক্ষায় থাকলাম।

কবে হবে আমার সে শুভাগমণের দিন!

আমি বাবাকে বাবা আর মাকে মা বলে ডাকবো।

কতো আনন্দ হবে, আতসবাজি বাজাবে,

দাদু, দীদা, বউদি, দিদি নাচবে আমাকে নিয়ে।

 

একদিন সেই অপেক্ষার পালা শেষ হলো,

জন্ম নিলাম সুন্দর এই ভুবনে।

কাঁদলাম আমি, কিন্তু হাসলো না কেউ,

ভাবলাম, একি আমাকে কেউ বোঝে না!

মায়ের উদর কেটে টেনে বের করছে আমায়,

যেমন যন্ত্রণা হচ্ছিলো মায়ের, তেমন আমারও।

আমার পাশে বসে দাদীমা বলছিলেন, এবারও মেয়ে!

গান্ধা পেটে তো গান্ধাই হবে।

 

অথচ আমার দাদীও একজন নারী!

দাদু ভেবেছিলেন ছেলে হলে মধু খাওয়াবেন,

পাড়ার বড় হুজুর এনে আজান দেওয়াবেন!

কিন্তু সবাই আমাকে দেখে চলে গেলেন কারণ আমি মেয়ে,

আমি অলক্ষি, আমি যৌন দাসী, আমি অপবিত্র।

আমাকে নিয়ে মন্দির, মসজিদ, গির্জায় যেতে নেই।

আমার চেহারা দেখা পাপ, মহা অন্যায়।

 

মানব সভ্যতার শুরুতে আমায় বলি দিতো,

আমাকে মাটি চাপা দিতো,

স্বামীর সহচিতায়ও যাত্রী ছিলাম আমি।

এরপর মুক্তির নামে যুগে যুগে বন্দী আমি!

কারো আদরের বোন, কারো মেয়ে, কারো স্ত্রী আমি, আমার মুক্তি কোথায়?

বের হলে তের হাত কাপড়ের উপর বোরকা পরি,

হাতে, পায়ে উলের মোজা, মাথায় পট্টি,

চোখে কালো চশমা, আরো কত কী!

কারণ আমি নারী, আমি যৌন দাসী।

 

আমি পা’য়ে আলতা দিলে, পা’য়ে নুপুর পরলে,

কোমরে বিছা পরলে বাজবে, সম্মান যাবে!

আমার পরিবার সমাজে মুখ দেখাতে পারবে না।

স্বামীর আগে আমি মরলে, আমি আপদ।

আর স্বামী আগে মরলে আমি অলক্ষ্মী, রাক্ষসী।

সকালে উঠোন ঝাড় না দিলে স্বামী অকালে মরবে।

আমাকে সবার পেছনে হাটতে হবে,

কারণ আমি নারী, আমি যৌন দাসী।

 

অফিস, আদালতে, মিছিলে মিটিংএ আমি আগে,

তেল, সাবান, স্নোর মতো আমিও পণ্য।

আমি বসের সামনে না বসলে কাজে তার মন বসে না,

আমার মুখের হাসি, বাঁকা চোখের চাহনি,

কোমর দোলানো না দেখলে বসের ব্যবসা ছুটে যায়।

প্রতিদিন আমাকে জিন্স, টপ পরা বাধ্যতামূলক

আমার সারা অঙ্গই স্যারের মর্জি!

না হলে চাকরি যায়।

সবাই পুণ্য নিতে বাবা, পীর সাহেবের অনুসারী!

আর অন্তঃপুরে স্বামীর সন্তুষ্টিই আমার পুণ্য।

                                                                         আমার স্কুল, কলেজ, উচ্চশিক্ষা নেই,

                                                                           আমি নারী, বেশি পড়ে লাভ কী!

                                                                       আমার কিছু হলে পরিবারে চুন কালি পড়বে।

                                                                        আমার ভাইয়ের মতো আমার শক্তি নেই,

                                                                আমার আসন শিশু, প্রতিবন্ধীদের সাথে ছয় সিটে।

                                                                    কারণ আমি নারী, সবাই আমাকে নিয়ে সতর্ক!

                                                            আমাকে সে ধর্ষণ করবে, কিন্তু কাউকে করতে দেবে না।

                                                                        কারণ আমি নারী, আমি যৌন দাসী।

 

                                                               আমার বয়স যখন আট মাস, বিছানায় পড়ে থাকি!

                                                                  আমার চোখ ফুটে নি, আমার মুখ ফুটেনি,

                                                                কান্নাই আমার ক্ষুধার ধ্বনি, কষ্টের ধ্বনি।

                                                                 ভালো কি মন্দ বোঝার বয়স হয়নি আমার,

                                                          শুধু নীরবে চেয়ে থাকা আর আঙ্গুল চোষাই কাজ।

                                                              কোথা থেকে যেন এক নর পিশাচ কাছে এলো,

                                                                      আমি হাসলাম, ও আমার হাসি বোঝেনি।

                                                               ও জোর করে আমার সাথে যৌন ক্ষুধা মিটালো।

                                                                 আমি শুধু চিৎকারই দিলাম, কিন্তু ও থামেনি।

                                                                   আমি ততুক্ষণে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লাম।

                                                         কী অন্যায় আমার? বোরকা পরিনি, নাকি পর্দা করিনি?

                                                                   আমি কিছু না বোঝার, না জানার, মাকে মা,

                                                               বাবাকে বাবা না বলার আগেই চলে গেলাম।

 

                                                          আমার কান্নার শব্দ আকাশে, বাতাসে ভাসলো,

                                                                 পশু কাঁদলো, পাখি কাঁদলো, শুধু কাঁদেনি পাষুণ্ড।

                                                                      আমি যখন শৈশবে, আমি ধর্ষিত হই,

                                                                    আমি যখন কৈশরে, আমি ধর্ষিত হই,

                                                                   আমি যখন যৌবনে, আমি ধর্ষিত হই,

                                                                     আমি যখন বৃদ্ধ, আমি ধর্ষিত হই।

                                                                        কী অন্যায় আমার?

                                                                      আমি না থাকলে পৃথিবী হতো না,

                                                                        আমি না থাকলে পাখি গাইতো না,

                                                               আমি না থাকলে মানব সভ্যতাও মুছে যেত।

                                                               আমি শুধু তোমার মা নই, তোমার বোন নই,

                                                                তোমার মেয়ে নই, তোমার স্ত্রীও নই, মনে রেখ!

                                                                      আমি তোমার মতো একজন মানুষ।

                                                              আমারও অনুভূতি আছে, আমারও স্বাধীনতা আছে।

                                                          তোমার পথ আলাদা, আমারও পথ এবং মত আলাদা।

                                                                    আমাকে কেন দশজনে মিলে ধর্ষণ করো?

                                                              আবার সবাই মিলে আমার হাত, পা, মস্তক কেটে,

                                                                         যৌনদ্বারে বেয়নেট ঢুকিয়ে হত্যা করো?

                                                             হিংস্র জানোয়ার যেমন শিকার ধরে ছিড়ে ছিড়ে খায়,

                                                                    তোমরাও সেভাবে আমায় বিভৎস করে খাও!

                                                                তাহলে তোমার আর পশুর মাঝে তফাৎ কোথায়?

                                                                    আমাকে যখন ধর্ষণ করে পথে ঘাটে ফেলে রাখো,

                                                                 তখন কি তোমাদের লজ্জা হয় না, সম্মান যায় না?

                                                               আসলে পোষাক আর পর্দার নামে ভণ্ডামি তোমাদের।

                                                                 সুযোগ পেলেই তোমরা আমাকে আগেই ধর্ষণ করো।

                                                                          চাকরির নামে আমাকে সুযোগ দেয়া,

                                                                      নারী বলে আমাকে বেশি সম্মান দেয়া,

                                                                          পর্দার নামে আমাকে ঘরে বন্দী রাখা,

                                                                            মুক্তির নামে ঘরের বাইরে আনা,

                                                                         সবকিছুর মুলে রয়েছে তোমার সুপ্ত পশুত্ব।

                                                                            আমি তোমার মা, ধর্ষণ করো আমায়।

                                                                                                                            লিখেছেনঃ  হাকিম মাহি (গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব)

                                                                         (আট মাসের ধর্ষিত শিশুর আত্মার শান্তি কামনা করে উৎস্বর্গ করলাম আমার এই কবিতাটি)

কমেন্টস