বার্ণ হাসপাতালের শেষ দিন (কবিতা)

প্রকাশঃ জানুয়ারি ২৫, ২০১৮

বার্ণ হাসপাতালের শেষ দিন

 কাজী মোহাম্মদ নাছিরুল আলম

 

মেডিকেলের ৩য় বর্ষের নাসরিন
স্কলার ছাত্রী, পরিপাটি জীবন
যৌবনের প্রারম্ভে সৌন্দর্যের মহিমায় বিমোহিত।

এরি ফাকে কল্পনার পাখায় ভর করে
দেশ বরেণ্য ডাক্তার হওয়ায় ব্রতের মাঝেও
কামরুলের প্রেমে স্বপ্নের জাল বুনলো
সংসার হবে, ছেলে সন্তান হবে
সুশিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশ-জাতী গঠনে
তার ছেলে সন্তানেরা আকাশচুম্বি ভূমিকা রাখবে।

ভাগ্য বিরাম্বনা!
সন্ত্রাসী ইকবাল এর হাত থেকে
রেহায় পেলো না নাসরিন।

কামনা বাসনার কুপ্রস্তাবে
রাজী না হওয়ায় পাসন্ড ইকবাল
ঝাপিয়ে পড়লো নাসরিনের
পাহাড়সম স্বপ্নকে ধ্বংস করতে
স্বপ্নের জাল টেনে ছিড়ে ছিন্নভিন্ন করতে
আর ধারালো ছুড়ির আঘাতের পর আঘাতে
লাল রঙ্গিন স্বপ্নকে ক্ষত বিক্ষত করতে।

মুহুর্তের মধ্যে উপড়িয়ে নিলো
নাসরিনের ভাসা দুটি চোখ
ঢেলে দিলো নিল বোতলের ঝাঝালো এসিড
মুহুর্তেই নাসরিনের মুখ, বুক, সমস্ত শরীর
এসিড দ্বগ্ধ বিদ্ধগ্ধ যন্ত্রণায় চিকিৎসার্থে
নিয়ে গেল বার্ণ হাসপাতালে।

কল্পনার কলমটি নাসরিনের দু’আঙ্গুলের ফাকে রেখে
অসমাপ্ত স্বপ্নের রেশ টেনে পড়ে রইলো
বার্ণ হাসপাতালের শেষ দিনে।
“সমাপ্ত”

কমেন্টস