`স্বপ্ন আত্মবিশ্বাস ও সফলতা’ ‘না গল্পকার’ ‘মৃত্যুর মিছিল’ পাঠককে ভাবায়!

প্রকাশঃ ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০১৮

বিডিমর্নিং ডেস্ক-

বইমেলা শেষ হবার পথে। এখনো মেলায় প্রতিদিনই আসছে নতুন নতুন বই।বাড়ছে পাঠক। বেচা বিক্রিও হচ্ছে বেশি। প্রায় কেউ খালি হাতে ফিরে যাচ্ছেন না বইমেলা থেকে। পছন্দের বই কিনতে পেরেই পাঠক যেমন খুশি তেমনি শেষ মুহুর্ত হলেও পাঠকের জন্যে মেলায় লেখকের বইটি আসায় লেখকও খুশি।

মেলাজুড়ে নতুন বইগুলোর মধ্যে বেশির ভাগই লেখকদের পরিচিত পাঠকের মাধ্যমে বিক্রি হয়। একুশের বইমেলায় কথা হয়েছে কয়েকজন পাঠকের সাথে। সাভার থেকে আসা সুমাইয়া আক্তার নামের পাঠকটি পুরো মেলায় ঘুরে তিনটি বই কিনেছেন। তার মতে, `স্বপ্ন আত্মবিশ্বাস ও সফলতা’ ‘না গল্পকার’ ‘মৃত্যুর মিছিল’ ও পাঠকে ভাবায়! আরো কিছু বই তার পছন্দ হয়েছে আরেকদিন এসে সেগুলো কিনবেন তিনি।

`স্বপ্ন আত্মবিশ্বাস ও সফলতা’ বইয়ের লেখক আ আ আবীর আকাশ। বাংলা প্রকাশনী (স্টল নং ৬৬৫)  থেকে বইটি বের হয়েছে। অন্ধকার থেকে আলোয় ফিরিয়ে আনতে -স্বপ্ন আত্মবিশ্বাস সফলতা’ বইটি দারুন উপকারে আসবে পাঠকের, আবীর আকাশ বলেন।

তবে ‘না গল্পকার’ বইয়ের লেখক মুরাদ কিবরিয়া বইটি পাঠক চিন্তা ও প্রাসঙ্গিকতায় ভিন্ন আঙ্গিকে লেখা।

তার মতে, ”বাড়ি ফেরার এই সমস্ত গল্প বুকে নিয়ে আমি ঘুমিয়ে পড়ি, মাঝরাতে আবার জেগে উঠি, পানি খাই, বারান্দায় গিয়ে বসে থাকি, ভাবি, কত গল্প ভেতরে বাইরে, এই সমস্ত সব গল্প ঈশ্বরের। ঈশ্বরই একমাত্র গল্পকার।” ঈশ্বরকেই একমাত্র গল্পকার মেনে শুরু করেন গল্প বলা। নিজের ভেতর নিজে যিনি ডুবে যান অহর্নিশ, তিনি আবার সরে আসেন, বহুদিন পর প্রেমিকার সঙ্গে দেখা হলে বলেন, ‘দরজা খুলে আমার সামনে দাঁড়ায় নিহারিকা, মহাবিশ্বের সমস্ত গল্পের মালিক এই নারীর সামনে দাঁড়িয়ে আমি স্থানু হয়ে যাই।’ উদাসীনতার উদ্বাহু মেলে দেয়া গল্পগুলোতে হাত রাখলে মনে হতে পারে, জীবন এমন ধীর, শীতল! তবু তো প্রেম থাকে মানুষেরই ভেতর, সে প্রেমের নৈরাজ্যের ভেতর ডুবে থাকে মুহূর্ত, সে সমস্ত মুহুর্তকে হাতের মুঠোয় ধরেছেন গল্পকার। তারপর উড়িয়ে দিয়েছেন অক্ষরে অক্ষরে। আর সেগুলোই একত্র করা হল এই ‘না গল্পকার’ নামক গল্পের সংকলনে। জনান্তিক প্রকাশনী (স্টল-৪৬০-৪৬১)থেকে তার বইটি বের হয়েছে।

কারো স্বপ্ন ও আত্মবিশ্বাস, কারো না বলা গল্প থাকলেও ‘মিত্যুর মিছিল’ নিয়ে লেখা বইটির লেখক লক্ষ্মীপুরের আলোচিত সেই সিভিল সার্জন ডা. সালাহ উদ্দিন শরীফ বলেন, মানবতা ক্রমশই মৃত্যুর দিকে ধাবিত। মানবতার মৃত্যু হলেই সমাজের মৃত্যু। তাই ‘মৃত্যুর মিছিল’ স্মরণ করিয়ে দেয় মানবতা কিভাবে মৃত্যুর মিছিলে পরিণত হয়।

কমেন্টস