পাঁচ পদের মিষ্টিমুখে বর্ষবরণ

প্রকাশঃ এপ্রিল ১৩, ২০১৮

বিডিমর্নিং ডেস্ক- 

আর দুইদিন পরেই বাংলা বছরের প্রথম দিন, পহেলা বৈশাখ। অনেক আগে থেকেই পহেলা বৈশাখকে ঘিরে বাঙালিদের নানা আয়োজন থাকেই। আরা এই আয়োজনের প্রথম ও প্রধান আকর্ষণই থাকতো নানা ধরনের মিষ্টি। আর এই প্রথা চলে আসছে তখন থেকে এখনো। আর আপনার বৈশাখের আয়োজনে নানা ধরনের মিষ্টান্ন থাকবে না তা কি হয়? আসুন আজ আমরা নতুন বছরকে বরণ করে নেই কয়েক পদের মিষ্টি দিয়ে।

রসগোল্লা 

উপকরণ:
ছানা
দুধ ১ লিটার
সিরকা ১/২ কাপ, পানি ১/২ কাপ একসাথে মিশিয়ে নিন
সিরার জন্য
চিনি ১ ১/২ কাপ
পানি ৩ কাপ

প্রণালি:
দুধ জ্বাল দিয়ে ফুটে উঠলে চুলার আঁচ বন্ধ করে দিন। সিরকা পানির সাথে মিশিয়ে একটু একটু করে দিয়ে নাড়তে থাকুন। দুধ থেকে সবুজ পানি আলাদা হয়ে গেলে পরিষ্কার পাতলা কাপড়ে ছানা ছেঁকে নিন। ১ কাপ পানি ছানার মধ্যে ঢেলে ঝুলিয়ে রাখুন কিছুক্ষণ।

চিনির সাথে পানি দিয়ে সিরা তৈরি করে নিন ফুটে উঠলে আঁচ কমিয়ে রাখুন। ছানার পানি ঝরে গেলে হাত দিয়ে ভালো করে ময়ান দিয়ে রসগোল্লার মতো ছোট ছোট বল তৈরি করুন।

ফুটন্ত সিরায় ছানার বলগুলো ছেড়ে দিন। চুলার আঁচ বাড়িয়ে ঢেকে দিন। কিছুক্ষণ পর একটি বড় চামচ দিয়ে রসগোল্লা সিরায় ডুবিয়ে দিন। মাঝারি আঁচে রেখে রসগোল্লা ফুটাতে হবে ২০/২২ মিনিট। চুলার আগুন নিভিয়ে দিন।

পায়েস 
উপকরণ
তরল দুধ এক কেজি,
আতপ চাল আধা কাপ,
চিনি প্রয়োজন মতো,
কিশমিশ প্রয়োজন মতো,
এলাচ ৩টি,
কাজুবাদাম প্রয়োজন মতো।

প্রণালি :
আতপ চাল ভালো করে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন।
দুধ জ্বাল দিন। দুধ ফুটতে শুরু করলে চাল ঢেলে দিন।
কিছুক্ষণ পর পর নাড়ুন যেন দুধ কড়াইয়ে লেগে না যায়।
যখন চাল সিদ্ধ হবে তখন চিনি দিন।

তারপর অল্প আঁচে নাড়তে থাকুন যতক্ষণ পর্যন্ত না দুধ ঘন হয়।
দুধ ঘন হয়ে এলে পরিমাণ মতো কিশমিশ, কাজুবাদাম কুচি ও এলাচের দানা মিহি গুঁড়া করে মিশিয়ে নামিয়ে ফেলুন। (চাল ভালোভাবে সিদ্ধ হওয়ার পরই চিনি বা গুড় দিতে হবে, না হলে চাল ভালো সিদ্ধ হবে না)।

বাদামের বরফি
উপকরণ:
কাঠবাদাম ১ কাপ
জাফরান ১/৪ টেবিল চামচ
দুধ ২ টেবিল চামচ
চিনি ৩/৪ কাপ
পানি ১/২ কাপ
ঘি ১ চা চামচ
এলাচ গুঁড়ো ১/২ চা চামচ

প্রণালি:
প্রথমে কাঠাবাদাম গরম পানিতে এক ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখুন। তারপর এর খোসা ছাড়িয়ে নিন।

একটি কাপড়ের ভিতর বাদামগুলো রেখে ভাল করে পানি শুকিয়ে নিন। লক্ষ্য রাখবেন যেন একটুও পানি না থাকে বাদামে।

এবার ব্লেন্ডারে কাঠবাদামগুলো গুঁড়ো করে নিন।

একটি প্যানে পানি এবং চিনি মিশিয়ে সিরা তৈরি করে নিন।

চিনির সিরা ঘন হয়ে আসলে এতে কাঠবাদামের গুঁড়ো দিয়ে দিন। ভাল করে নেড়ে চিনির সিরার সাথে বাদামের গুঁড়ো মেশান।

এরপর এতে জাফরান মেশান দুধ দিয়ে দিন। এতে ঘি এবং দারুচিনির গুঁড়ো ভাল করে মেশান।

বাদামের মিশ্রণটি প্যানে না লাগা পর্যন্ত নাড়তে থাকুন। তারপর চুলা নিভিয়ে ফেলুন।

একটি পাত্রে ঘি মাখিয়ে রাখুন। তারপর বাদামের মিশ্রণটি ঢেলে দিন।
এবার এক ঘন্টা অপেক্ষা করুন।

পছন্দ মতো আকারে কেটে পরিবেশন করুন মজাদার বাদামের বরফি।

দুধের সন্দেশ

উপকরণ
কনডেন্সড মিল্ক ১ কাপ
গুঁড়া দুধ দেড় কাপ
মাখন ৮ টেবিল-চামচ (লবণ ছাড়া)।
এলাচগুঁড়া সামান্য (ইচ্ছা)।

প্রণালি:

প্যানে মাখন গলিয়ে, বাকি সব উপকরণ একসঙ্গে দিয়ে দিন।
কাঠের চামচ দিয়ে খুব ভালোভাবে নেড়ে মেশান সবকিছু।
নাড়তে নাড়তে যখন প্যানে আর লাগবে না, হালুয়ার মতো কিছুটা শক্ত দলা বেঁধে যাবে তখন নামিয়ে ফেলুন।

কিছুটা ঠাণ্ডা হলে (হাত দিয়ে ধরা যায় এমন) হাতে তেল মাখিয়ে সঙ্গে ছাঁচগুলোতেও তেল মাখিয়ে সুন্দর করে আকার দিন। পরিবেশন করুন। অনেক দিন রেখে খেতে চাইলে, ‘এয়ার টাইট’ বাক্সে রেখে সংরক্ষণ করতে হবে।

কমেন্টস