ইসরায়েলি বসতি স্থাপন দুই রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানের পথে বাঁধা

প্রকাশঃ জানুয়ারি ১৪, ২০১৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক-

ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে নতুন করে ইসরায়েলি বসতি স্থাপন দুই রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে বলে মনে করে রাশিয়া। শনিবার রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে দেশটির এমন অবস্থানের কথা জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, মস্কো বিশ্বাস করে ইসরায়েলের এ পদক্ষেপ ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে আলোচনার পরিবেশ তৈরিতে সহায়ক নয়। এটি বরং মধ্যপ্রাচ্যে ন্যায়সঙ্গত এবং নির্ভরযোগ্য শান্তি অর্জনের সম্ভাবনাকে আরও কমিয়ে দেবে। পূর্ব জেরুজালেমসহ ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে ইসরায়েলি বসতি স্থাপনের অন্যায্যতার ব্যাপারে রাশিয়ার তার নীতিগত অবস্থান নিশ্চিত করছে।

এর আগে পশ্চিম তীরে নতুন করে ইসরায়েলি বসতি স্থাপনের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জার্মানি। জার্মান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ইসরায়েলের এমন সিদ্ধান্ত  সমস্যা সমাধানের প্রক্রিয়া রুদ্ধ করে দেবে। এ সমস্যা সমাধানের জন্য দুই রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানই সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য সমাধান।

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার পশ্চিম তীরে নতুন করে শতাধিক বসতি স্থাপনের অনুমতি দেয় ইসরায়েল। যদিও আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী ফিলিস্তিনে অভিবাসন এবং এ ধরনের বসতি স্থাপন অবৈধ।

১৯৬৭ সালের পর থেকে ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুজালেমে শতাধিক বসতি স্থাপন করেছে ইসরায়েল। এসব বসতিতে ছয় লক্ষাধিক ইসরায়েলি নাগরিকের বসবাস। ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে ইসরায়েলি বসতি স্থাপনের বিরুদ্ধে নিরাপত্তা পরিষদে একটি প্রস্তাব পাস হয়। এতে বলা হয়, ‘১৯৬৭ সাল থেকে ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে ইসরায়েল যে বসতি স্থাপন করে যাচ্ছে, তার কোনও আইনি ভিত্তি নেই।

কমেন্টস