কাতারকে নিয়ে নতুন খেলা শুরু করেছে সৌদি!

প্রকাশঃ অক্টোবর ১৩, ২০১৭

আন্তর্জাতিক ডেস্ক-

গত জুন মাসে সৌদি আরবের নেতৃত্বে সৌদি জোট কাতারের সাথে সব ধরনের সম্পর্ক ছিন্ন করে। দেশটির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে তারা। তার পর থেকেই কাতার সরকারের বিরোধী হিসেবে পরিচিত প্রবাসী কাতারিদের নিয়ে বেশ কিছু আয়োজন হয়েছে। যেসব অনুষ্ঠানে এই প্রবাসীদের আহ্বান জানানো হয়েছে দেশটিতে সরকার পরিবর্তন ও সাংবিধানিক রাজতন্ত্র ঘোষণার।

এদিকে, কাতারের জন্য প্রবাসী সরকার গঠনের উদ্যোগ নিয়েছেন সৌদি ঘনিষ্ঠ কিছু প্রবাসী কাতারি। সরকার পরিবর্তনের জন্য দেশটির ওপর চাপ সৃষ্টির লক্ষ্যে তাদের এই উদ্যোগ। বিষয়টি সম্পর্কে অবগত একটি সূত্র জানিয়েছে এই তথ্য।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই সূত্র আরো জানিয়েছে, কাতারের আমির তামিম বিন হামাদ আল সানির বিরোধী হিসেবে পরিচিত বেশ কয়েকজন প্রবাসী কাতারি এই পাল্টা সরকার ঘোষণার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। আগামী শনিবার তাদের ঘোষণা আসতে পারে।

কাতারের বর্তমান ক্ষমতাসীন সানি গোত্রের সদস্য সুলতান বিন সুহাইম আল সানি আগেও বেশ কয়েকবার কাতারকে সন্ত্রাসবাদের মিত্র হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। গত ৪ অক্টোবর তিনি টুইটারে লিখেছেন, আসছে সপ্তাহে একটি ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত গৃহীত হতে পারে। ঐ সপ্তাহে আমরা এই সঙ্কট নিয়ে একটি ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত দেখতে পারব।’

আরেক টুইটার পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘১৩ অক্টোবর কাতার পাল্টে যাবে’।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, যুবরাজ সুলতান বিন সুহাইম নতুন এই উদ্যোগটির সাথে জড়িত শীর্ষ দুইজনের একজন, অন্যজন আবদুল্লাহ বিন আলী আল সানি। সুলতান বিন সুহাইম কাতারের প্রথম পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ সুহাইম বিন হামাদের অষ্টম পুত্র। বর্তমানে প্যারিস প্রবাসী এই যুবরাজের সৌদি আরবের সাথে ঘনিষ্ঠ ব্যবসায়িক সম্পর্ক রয়েছে। আর আবদুল্লাহ কাতারের শাসক পরিবারের প্রবাসী সদস্য এবং দেশটির বর্তমান প্রশাসনের কট্টর সমালোচক। তিনি কাতারের সাবেক শাসক শেখ আহমদ বিন আলী আল সানির ভাই। ১৯৭২ সালে শেখ আহমদকে ক্ষমতাচ্যুত করে বর্তমান আমির তামিমের দাদা ক্ষমতা দখল করেন।

এই পরিকল্পনার সাথে আরো জড়িত আছেন কাতার সরকারের সাবেক মুখপাত্র ফাওয়াজ আল আতিয়াহ ও ব্যবসায়ী খালেদ আল হাইল। খালেদ গত মাসে কাতার ইস্যু নিয়ে একটি সম্মেলনও আয়োজন করেন। ওই সম্মেলনকে কেন্দ্র করেই বেশ কিছু রাজনৈতিক ও গণমাধ্যম ভাষ্যকার সঙ্কটের পরিপ্রেক্ষিতে কাতারের ভবিষ্যৎ নিয়ে আলোচনা করতে একত্র হন।

কমেন্টস