রোহিঙ্গা ইস্যুতে অবশেষে মুখ খুললো সৌদি আরব

প্রকাশঃ সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৭

বিডিমর্নিং ডেস্ক-

অবশেষে মিয়ানমারে চলমান রোহিঙ্গা নিপীড়ন,গণহত্যা,ধর্ষণ নিয়ে মুখ খুলেছে সৌদি আরব। দেশটি জানিয়েছে, মুসলিম সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা সংকটের বিষয়টি এখন সৌদি আরবের প্রধান উদ্বেগ। রোহিঙ্গাদের পরিকল্পিত জাতিগতভাবে নিধনযজ্ঞ থামাতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের এগিয়ে আসা উচিত।

বুধবার জেনেভায় জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের ৩৬তম অধিবেশনের আগে দেওয়া ভাষণে সৌদি আরবের পক্ষ থেকে এই আহ্বান জানানো হয়েছে।

অধিবেশনে সৌদি আরবের পক্ষে বক্তব্য দেন জাতিসংঘের নিয়োজিত দেশটির দূত আব্দুল আজিজ বিন মোহাম্মেদ আল-ওয়াসেল। মানবাধিকার কমিশনের অধিবেশনে মিয়ানমারে স্বতন্ত্র আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন পাঠানোর বিষয়ে আলোচনা হয়।

মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ রাখাইনে মানবিক ও ত্রাণ সহায়তা পৌঁছানোর অনুমতি না দেওয়ারও নিন্দা করা সৌদি আরবের পক্ষ থেকে।

রোহিঙ্গাদের সাম্প্রতিক সহিংসতা নিন্দা জানিয়ে সৌদি দূত বলেন, মিয়ানমার সরকার সহিংসতা কবলিত অঞ্চলে ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিশনকে বাধা দেওয়ার ঘটনা দুঃখজনক। এই কমিশন রোহিঙ্গা মুসলমানদের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার ও দেশটির মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে কি না তা খতিয়ে দেখত।

সৌদি দূত উল্লেখ করেন, জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশন রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সহিংসতার বিষয়টি চিহ্নিত করা উচিত। একই সঙ্গে ধর্ম, বর্ণ ও জাতি নির্বিশেষ বৈষম্যহীন মানবাধিকার রক্ষায় মিয়ানমার যাতে আন্তর্জাতিক বাধ্যবাধকতা মেনে চলে তা নিশ্চিত করা প্রয়োজন।

এদিকে মঙ্গলবার সৌদি বাদশা সালমানের সভাপতিত্বে এক বৈঠকে সঙ্গে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য ১ কোটি ৫০ লাখ টাকা ত্রাণ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন বাদশা সালমান।

কমেন্টস