বুয়েটের ৩ শিক্ষককে হাইকোর্টের তলব

প্রকাশঃ জানুয়ারি ১৮, ২০১৮

বিডিমর্নিং ডেস্ক-

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে তিন ছাত্রীর ইভটিজিং ও এক ছাত্রের শারীরিক হামলার বিষয়ে করা অভিযোগের বিষয়ে গঠিত তদন্ত কমিটির তিন সদস্যকে তলব করেছেন হাইকোর্ট। বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুর ও বিচারপতি এ কে এম সাহিদুল হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ আজ বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেন।

তিন শিক্ষক হলেন- তড়িৎ ও ইলেক্ট্রনিক কৌশল বিভাগের অধ্যাপক ও কমিটির আহ্বায়ক ড. মো. কামরুল আহসান, যন্ত্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ও কমিটির সদস্য ড. মো. মাকসুদ হেলালী এবং পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. রওশন মমতাজ।

তাদের ২৪ জানুয়ারি হাইকোর্টে এসে তদন্ত প্রতিবেদনের বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন আইনজীবী এবিএম আলতাফ হোসেন।

২০১৫ সালে র‌্যাগিংয়ে ইভটিজিংয়ের অভিযোগ কেন্দ্র করে তিন ছাত্রীকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অব রেসিডেন্স অ্যান্ড ডিসিপ্লিন আবাসিক হল থেকে স্থায়ী বহিষ্কার ও পরীক্ষায় অংশ নেওয়া বিষয়ক একটি শাস্তি দেয়। এর বিরুদ্ধে ওই সময়ে তিন ছাত্রী হাইকোর্টে রিট করেন। তাদের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন ব্যারিস্টার এবিএম আলতাফ হোসেন।

আলতাফ হোসেন জানান, র‌্যাগিংয়ের সময় ওই তিন ছাত্রী এক ছাত্রের বিরুদ্ধে ইভটিজিংয়ের অভিযোগ দায়ের করেন। ওই ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করে। ওই কমিটি ওই বছরের ৩ জুন তদন্ত প্রতিবেদন দেয়। এদিকে তারা বিভিন্ন চাপে অভিযোগ প্রত্যাহার করে নিলেও ২৭ জুলাই তাদের শাস্তি দেওয়া হয়।

ওই শাস্তির আদেশে বলা হয়, ‘২০১৫ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি ইভটিজিংয়ের বিষয়ে তোমার দাখিল করা লিখিত অভিযোগপত্রের পরিপ্রেক্ষিতে ঘটনা তদন্তের জন্য গঠিত তদন্ত কমিটির সুপারিশ এবং বোর্ড অব রেসিডেন্স অ্যান্ড ডিসিপ্লিনের সামনে তোমার বক্তব্য পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পর্যালোচনা ও বিশ্লেষণের মাধ্যমে অপরাধ নির্ধারণপূর্বক অডিন্যান্স রিলেটিং টু দ্য বোর্ড অব রেসিডেন্স অ্যান্ড ডিসিপ্লিন এর ৫ এবং ২৪ ধারা অনুযায়ী সর্বসম্মতভাবে তোমাকে দোষী সাব্যস্ত করে নিম্ন বর্ণিত শাস্তি দেওয়া হয়েছে।

কমেন্টস